প্রীতি ও বিশ্বকাপের প্রস্তুতির ম্যাচে তিউনিসিয়া প্রথমার্ধে বেশ ক’বার নেইমার জুনিয়রকে ট্যাকল করে। ফাউলের জেরে ২৭ মিনিটে লাইদোনি হলুদ কার্ড দেখেন। তাতেও শান্ত হয়নি তিউনিস খেলোয়াড়রা। 

ম্যাচের ৪২ মিনিটে খুবই বাজেভাবে নেইমারকে ফাউল করেন ডায়লান ব্রোন। তার মুভমেন্ট, ট্যাকল, মাঠ ছাড়ার সময়কার শারীরিক ভাষা দেখে যে কারো মনে প্রশ্ন জাগবে- ব্রোন কি নেইমারকে ইনজুরিতে ফেলার পরিকল্পনা নিয়ে খেলছিলেন? 

প্রশ্ন ব্রাজিল কোচ তিতের মনেও জেগেছে। ম্যাচ শেষে তিউনিসিয়ার খেলোয়াড়দের মনোভাবে অত্যন্ত অবাক বলে জানিয়েছেন তিনি। এভাবে নেইমারকে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দেওয়ার চিন্তা মাথায় নিয়ে একটা দল খেলতে পারে, ভাবতেই পারেননি তিনি।   

তিতে বলেন, ‘গ্যালারির পরিবেশ এমন ছিল যে, সকলেই তিউনিসিয়ার দর্শক। আমাদের দর্শক খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এটা দলের জন্য লড়াকু এক পরিবেশ। বিশ্বকাপে খেলবে এমন দুটি দলের বিপক্ষে আমরা প্রীতি ম্যাচ নিয়েছি। যাতে মূল আসরের প্রতিযোগিতার ভাবটা থাকে। যেখানে শারীরিক, মানসিক এবং টেকনিক্যাল পর্যায়ে বড় প্রত্যাশা থাকবে।’ 

কিন্তু তিউনিস খেলোয়াড়দের মনোভাব নিয়ে তিতে বলেন, ‘ওরা সাত ম্যাচে অপরাজিত ছিল। আমরা জানতাম, মাঠে ম্যাচটা প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ হবে। কিন্তু ভাবিনি যে, নেইমারের সঙ্গে এমন কিছু হবে। একটা খেলোয়াড়কে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দেওয়ার গতিবিধি ছিল তাদের।’ 

ম্যাচটা অবশ্য ব্রাজিল ৫-১ গোলের বড় ব্যবধানে জিতেছে। রাফিনহা দুই গোল করেছেন। নেইমার, রিচার্লিসন এবং পেদ্রো একটি করে গোল করেছেন। ম্যাচটা ছিল বিশ্বকাপের আগে ব্রাজিলের শেষ প্রস্তুতির সুযোগ। প্রতিপক্ষ নেইমারকে টার্গেট করেছিল দাবি করলেও পুরো ম্যাচে নেইমারকে খেলানোর ঝুঁকিও নিয়েছেন কোচ তিতে।