মেয়েদের সাফজয়ী দলের ১৪ ফুটবলারই বসুন্ধরা কিংসের। মেয়েদের ক্লাব ফুটবলে করপোরেট এ ক্লাবটি বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। কিন্তু কিংস ছাড়া পেশাদার লিগের অন্য ক্লাবগুলো মেয়েদের প্রিমিয়ার লিগে আসতে চায় না। তাই মেয়েদের ঘরোয়া লিগের কাঠামোও অতটা মজবুত নয়। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে আরও কঠোর হওয়ার আহ্বান বাফুফে সহসভাপতি ও বসুন্ধরা কিংস সভাপতি মো. ইমরুল হাসানের।

শুধু তাই নয়, দায়িত্বের খাতিরে ক্লাবগুলোর এগিয়ে আসা উচিত বলে সমকালকে বলেন ইমরুল, 'মেয়েদের লিগ নিয়ে কিছুটা গৌরব আছে এই জন্য যে, আমরা দু'বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছি কোনো পয়েন্ট নষ্ট না করে। পাশাপাশি একটা আক্ষেপের বিষয়, একতরফা লিগ খেলে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় তৃপ্তি পাইনি আমরা। কারণ, প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক লিগ খেলে শিরোপা জেতার আনন্দ অন্য রকম। সে জন্য আমি বাফুফেকে কিছুটা কঠোর হওয়ার অনুরোধ করব। কঠোর হবে এই জন্য, বাফুফে যদি চায় তাহলে প্রিমিয়ারের দলগুলো খেলতে অবশ্যই বাধ্য। এ রকম একটা নিয়ম করা উচিত, যাতে প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষস্থানীয় দল যারা আছে, তাদের সঙ্গে সার্ভিসেস দলগুলোকে নারী লিগে অন্তর্ভুক্ত করা যায়। তাহলে আমার মনে হচ্ছে, নারী লিগটা আরও জমজমাট হবে। তাহলে আরও কিছু নতুন নতুন প্লেয়ার বেরিয়ে আসবে। যেটা জাতীয় দলকে অবশ্যই সহযোগিতা করবে এবং আমাদের যে সাফল্যের সূচনা হয়েছে, এই সূচনাগুলো পরিপূর্ণতার দিকে এগিয়ে যাবে।'

বয়সভিত্তিক সাফে সাফল্য এনে দেওয়া মেয়েদের সংবর্ধনা দিয়েছিল বসুন্ধরা। এবার তো হিমালয়ের মাঠে বিজয়ের কেতন উড়িয়ে ইতিহাস গড়েছেন সাবিনা খাতুনরা। তাঁদের জন্য আরও বড় সংবর্ধনার ব্যবস্থা করতে যাচ্ছেন তাঁরা।

শুধু তাই নয়, মেয়েরা যাতে নিরবচ্ছিন্নভাবে অনুশীলন করতে পারে, সে জন্য কিংস অ্যারেনায় মাঠও প্রস্তুত হচ্ছে বলে জানান ইমরুল, 'আসলে আমরা চাচ্ছি নারী ফুটবলটা আরও এগিয়ে যাক। আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন, শুধু নারী দলের অনুশীলনের জন্য একটা প্র্যাকটিস মাঠ করছি; এই বসুন্ধরা কমপ্লেক্সের মধ্যে। আমি মনে করি, নারী ফুটবলের জন্য বড় অগ্রগতি। এতে নারী দল সারাবছর নিরবচ্ছিন্নভাবে অনুশীলন করবে। আশা করি, দু-তিন মাসের মধ্যে কাজটি শেষ হয়ে যাবে।'

ঘরোয়া ফুটবলের নতুন ক্যালেন্ডার এরই মধ্যে ঘোষণা করেছে বাফুফে। দলবদলের তারিখও চূড়ান্ত করেছে ফেডারেশন। তার আগে অবশ্যই ঘর গুছিয়ে ফেলার কাজটা অনেকটা সেরে নিয়েছে লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা। এবার পাঁচ বিদেশি অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে প্রতিটি ক্লাব। এর মধ্যে দু'জন এশিয়ান, বাকি তিনজন নন-এশিয়ান কোটা। এরই মধ্যে নন-এশিয়ান তিন ফুটবলারকে চূড়ান্ত করেছে বসুন্ধরা। রবসন রবিনহোর মতো বাকি দুই ফুটবলারও ব্রাজিলিয়ান বলে জানিয়েছেন ইমরুল। তবে এ মুহূর্তে নাম প্রকাশ করতে চাচ্ছেন না তিনি।