কাতার বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের অন্যতম ভরসা এডেন হ্যাজার্ড। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদে কঠিন সময় পার করছেন তিনি। মৌসুমে ম্যাচ খেলারই সুযোগ পাচ্ছেন না। বেঞ্চে গরম করতে হচ্ছে তাকে। বিশ্বকাপের আগে আত্মবিশ্বাস পাওয়ার মতো ম্যাচ খেলার সুযোগ তিনি পাবেন বলেও মনে হচ্ছে না। 

বুধবার রাতে রিয়াল মাদ্রিদ ঘরের মাঠে সেল্টিকের বিপক্ষে ৫-১ গোলে জিতেছে। লস ব্লাঙ্কোসদের তারুণ্যে ধসে গেছে স্কটিশ ক্লাবটি। দলটির হয়ে গোল করেছেন রিয়ালের চার তরুণ তুর্কি ভিনিসিয়াস জুনিয়র, রদ্রিগো গোয়েস, ফেদে ভালভার্দে এবং মার্কো অ্যাসেনসিও। সঙ্গে বুড়ো মডরিচ এক গোল করেছেন। 

ইনজুরির কারণে করিম বেনজেমা শুরুর একাদশে ছিলেন না। কিন্তু তার জায়গায় হ্যাজার্ডকে সুযোগ দেননি কোচ। এমনকি এই ম্যাচে শুরুর একাদশে ভিনি-রদ্রিগোর সঙ্গে খেলান মার্কো অ্যাসেনসিওকে। রদ্রিগো ছিলেন স্ট্রাইকার পজিশনে। সুযোগ পেয়ে অ্যাসেনসিও গোলও করেছেন। 

দ্বিতীয়ার্ধে ভিনিসিয়াসকে বদলি হিসেবে তুলে নেন কোচ। নামান ইনজুরি থেকে ওঠা করিম বেনজেমাকে। সেখানেও চেলসি থেকে ১০০ মিলিয়নে কেনা হ্যাজার্ডকে এড়িয়ে যান কোচ। হতাশ হতে হয় হ্যাজার্ডের। এরই মধ্যে তো গুঞ্জন উঠে গেছে জানুয়ারির শীতকালীন মৌসুমে দল ছাড়বেন তিনি। যাবেন প্রিমিয়ার লিগের অ্যাস্টন ভিলায়।

চলতি মৌসুমে হ্যাজার্ড লা লিগায় তিন ম্যাচ এবং চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তিন ম্যাচে মাঠে নামা র সুযোগ পেয়েছেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তিন ম্যাচে তিনি ১৩১ মিনিট খেলার সুযোগ পেয়েছেন। একটি গোল ও একটি অ্যাসিস্ট দিয়েছেন। অন্যদিকে তিন লা লিগা ম্যাচে ৯৮ মিনিট খেলেছেন তিনি। গড়ে যা ৩৩ মিনিট করে। কোন গোল বা গোলে সহায়তা দিতে পারেননি। 

এডেন হ্যাজার্ড তাই রিয়াল মাদ্রিদের সর্বকালের সবচেয়ে বাজে সাইনিং হওয়ার পথে আছেন। তার প্লেয়িং পজিশন লেফট উইঙ্গ বা সেন্ট্রাল মিডফিল্ড। ওই দুই জায়গাায় ভিনিসিয়াস জুনিয়র ও লুকা মডরিচ খেলছেন। ভেদে ভালভার্দেকেও মাঝে মধ্যে পরীক্ষা করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে হ্যাজার্ডের রিয়াল মাদ্রিদ এখান থেকে সামনে এগোনোর সম্ভাবনা একেবারেই কম।