শীত শুরু হতে না হতেই ইউক্রেনের জ্বালানি অবকাঠামোয় হামলা বাড়িয়েছে রাশিয়া। বুধবার ইউক্রেনজুড়ে নতুন করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ব্ল্যাকআউট হয়েছে দেশটির বিভিন্ন স্থান। কিয়েভের ৮০ শতাংশ বাসিন্দা পানি ও বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছে।
রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অনেক বিদ্যুৎ স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশের বেশিরভাগ গ্রিড মেরামতের প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা। বুধবার ইউক্রেনের বিভিন্ন স্থানে রাশিয়ার নতুন করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত সাতজন নিহত হয়েছেন। কমপক্ষে ৭০টি ক্রুজ মিসাইল হামলা হয়েছে বলে দাবি দেশটির সামরিক বাহিনীর। হামলায় ইউরোপের বৃহত্তম জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ হয়ে যায়। পরে ডিজেলের মাধ্যমে তা সচল করা হয়। জাপোরিঝিয়া প্লান্টে গোলাবর্ষণ নিয়ে বারবার সতর্ক করে আসছে আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা (আইএইএ)। সংস্থাটি বলছে, এ ধরনের কর্মকাে বড় ধরনের বিপর্যয় সৃষ্টি হতে পারে। যদিও রাশিয়া-ইউক্রেন কোনো পক্ষই নিজেদের হামলার কথা স্বীকার করেনি।

এদিকে নতুন করে হামলা চালিয়ে রাশিয়া মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। প্রচ শীতে রাশিয়া সন্ত্রাসী ফর্মুলায় লাখ লাখ মানুষকে ঘর ছাড়তে বাধ্য করেছে। বুধবার রাতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। জেলেনস্কি বলেন, কিয়েভের পরিস্থিতি খুবই জটিল। বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। মেয়র ভিটালি ক্লিটসকো বলেন, রাজধানীর ৮০ শতাংশ বাসিন্দার কাছে বিদ্যুৎ এবং পানি নেই।

অন্যদিকে, ইউক্রেনজুড়ে বুধবার একাধিক বিদ্যুৎ উৎপাদন অবকাঠামোয় দফায় দফায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় রাশিয়ার তীব্র নিন্দা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র অ্যাড্রিয়েন ওয়াটসন বলেন, রাশিয়া ইচ্ছাকৃতভাবে জ্বালানি সেক্টরে হামলা চালাচ্ছে। শীত আসার আগে ইউক্রেনের জনগণের বিরুদ্ধে ভয়াবহ আক্রমণের দিকে ঝুঁকেছে।

ইউক্রেনকে সাহায্য করতে এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ৪০ কোটি ডলারের নতুন প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

ইউনেস্কোর একটি গুরুত্বপূর্ণ কমিটি থেকে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত পদত্যাগ করার পর সংস্থাটির কাজের অচলাবস্থা উঠে গেছে। এ কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। খবর বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্সের।