নেইমার, দানিলো ও অ্যালেক্স সান্দ্রো যে ক্যামেরুনের বিপক্ষে খেলছেন না- সেটা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল ব্রাজিলিয়ান টিম ম্যানেজমেন্ট। শুধু এ তিন চোটাক্রান্তই নন, সেরা একাদশের কাউকেই সম্ভবত আজ ক্যামেরুনের বিপক্ষে শুরুতে নামাবেন না ব্রাজিল বস আদেনর বাচ্চি তিতে। ঝুঁকি এড়াতে এবং সুযোগ পেয়েছেন বলে রিজার্ভ বেঞ্চের শক্তিটা পরখ করে দেখতে চান তিনি।

প্রথম দুই ম্যাচে জিতে এরই মধ্যে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করে ফেলেছে ব্রাজিল। পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের 'জি' গ্রুপের সেরা হওয়াও অনেকটা নিশ্চিত। ক্যামেরুনের কাছে হেরে গেলেও তাদের শীর্ষে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। এই গ্রুপ থেকে ব্রাজিলকে পেছনে ফেলার সম্ভাবনা রয়েছে শুধু সুইজারল্যান্ডের। এ জন্য ক্যামেরুনের কাছে ব্রাজিলের হারের পাশাপাশি সার্বিয়াকে নূ্যনতম তিন গোলের ব্যবধানে হারাতে হবে সুইসদের। এই সমীকরণগুলো মেলানো কঠিনই নয়, প্রায় অসম্ভবও। তাই কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চাইছেন না ব্রাজিল বস। এমনিতেই তিনজন চোটে পড়ে গেছেন, এখন প্রায় আনুষ্ঠানিকতায় পরিণত হওয়া ম্যাচে যদি সেরা একাদশের আরও কেউ আঘাত পেয়ে বসেন, তাহলে সেটা হবে রীতিমতো বোকামি। রিজার্ভ বেঞ্চকে বাজিয়ে দেখার এর চেয়ে ভালো সুযোগ আর হয় না। ঠিক এমনি পরিস্থিতিতে ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশম তিউনিসিয়ার বিপক্ষে শেষ গ্রুপ ম্যাচে রিজার্ভ বেঞ্চ থেকে আটজনকে সুযোগ দিয়েছিলেন। তিতে হয়তো তাঁকেও ছাড়িয়ে যাবেন। পুরো একাদশই সাজাতে পারেন রিজার্ভ বেঞ্চ দিয়ে।

ব্রাজিলিয়ান গণমাধ্যম 'গ্লোবো' এরই মধ্যে ক্যামেরুনের বিপক্ষে সম্ভাব্য একাদশ দিয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, অ্যালিসন বেকারের বদলে গোলপোস্টের নিচে আজ দাঁড়াবেন এডারসন। সেন্টার ব্যাক দু'জন হলেন ব্রেমার এবং এডার মিলিতাও। দানিলো বদলে সুইসদের বিপক্ষে রাইট ব্যাক হিসেবে খেলেছিলেন মিলিতাও। নিয়মিত অধিনায়ক থিয়াগো সিলভা বিশ্রামে থাকায় রাইট ব্যাক দানি আলভেজ এ ম্যাচে নেতৃত্ব দেবেন। ৩৯ বছর বয়সে খেলতে নেমে ব্রাজিলের পক্ষে সবচেয়ে বেশি বয়সে বিশ্বকাপ খেলার রেকর্ডও করতে যাচ্ছেন তিনি। গত ম্যাচে এলেক্স সান্দ্রোর বদলে ম্যাচের শেষ দিকে নেমেছিলেন লেফট ব্যাক অ্যালেক্স তেলেস। আজ তিনি শুরু থেকেই নামবেন। ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে ফ্যাবিনহো এবং গুইমারেস বা ফ্রেডের মধ্যে একজন খেলবেন। ফলস নাইন হিসেবে আজ শুরু থেকেই নামবেন রদ্রিগো। দুই উইংয়ে গ্যাব্রিয়েল মার্তেনেল্লি ও অ্যান্থনি। সেন্টার ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুস। এই একাদশের কেবল মিলিতাও ও ফ্রেড গত ম্যাচের শুরুর একাদশে ছিলেন। বাকি ৯ জনই শুরুর একাদশে প্রথম সুযোগ পাচ্ছেন। তবে ব্রাজিলের এই রিজার্ভ একাদশও তারকায় ঠাসা। অনেক দলের সেরা একাদশেও হয়তো এর অর্ধেক তারকা নেই।

আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে অবশ্য ক্যামেরুন ম্যাচের একাদশ নিয়ে পরিস্কার করে কিছু বলেননি তিতে, 'আমাদের ২৬ জন সর্বোচ্চ পর্যায়ের অ্যাথলেট রয়েছে। কারা খেলবে? লিভারপুলের ফ্যাবিনহো আছে, সিটির এডারসন আছে, মার্তেনেল্লি ও জেসুস আছে; যারা কিনা আর্সেনালের মূল ভরসা। সত্যিকার অর্থেই আমাদের দলে ভীষণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলে। আমার কাজ হলো এই প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য সর্বোত্তম পরিস্থিতি তৈরি করা।' শেষ ষোলোতে তাদের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের নিয়েও জানতে চাওয়া হয়েছিল। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিতে। সংবাদ সম্মেলনে তাঁর পাশে ছিলেন দানি আলভেজ, যিনি কিনা আজ অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন। বর্ষীয়ান এ রাইট-ব্যাকেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন কোচ। গত পরশু রাতে অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ফুটবলসম্রাট পেলের সুস্বাস্থ্যও কামনা করেন তিনি।