বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) গত তিন বছরে জৌলুস হারিয়েছে। দেশের এই টি২০ টুর্নামেন্ট আন্তর্জাতিক মানের দাবি করা হলেও ব্যবস্থাপনায় ক্রমেই পিছিয়ে পড়ছে। তিন মাস আগে বিপিএল আয়োজনের সিদ্ধান্ত হলেও ডিআরএস (ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম) প্রযুক্তি আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। 

খরচ কমাতে বিকল্প ডিআরএস রাখা হচ্ছে টুর্নামেন্টে। ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত বিপিএলের অষ্টম আসর থেকেই বিকল্প ডিআরএস দিয়ে কাজ চালাচ্ছে বিসিবি। বিকল্প ডিআরএসে আলট্রা এডজ (বল ব্যাটে বা প্যাডে লেগেছে কিনা তা নির্ধারণ করা) এবং বল ট্র্যাকিং (বলের গতিপথ দেখার জন্য) সুবিধা থাকছে না। এতে রিভিউ নেওয়ার পুরো সুবিধা পাওয়া যাবে না। ভিডিও গ্রাফ দেখে আউট বা নটআউটের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আম্পায়ারদের।

বিশ্বের সর্বত্রই এখন ক্রিকেট ম্যাচে ডিআরএস দেখা যায়। বিশেষ করে ফ্র্যাঞ্চাইজ়ি লিগে ডিআরএস ছাড়া কল্পনাই করা যায় না। কিন্তু বিপিএলে এবারো ডিআরএস না থাকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কেনো এবারো শুরু থেকে থাকছে না ডিআরএস?

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের গভর্নিং কাউন্সিলের অন্যতম সদস্য ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেছেন, 'হক আই(কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত দিক ও লক্ষ্য নির্ণায়ক প্রযুক্তি) এবং ভার্চুয়াল আই প্রযুক্তি (কম্পিউটারের সাহায্যে তৈরি ত্রিমাত্রিক পরিবেশ) পাওয়া যাচ্ছে না। অস্ট্রেলিয়া বা নিউজিল্যান্ড থেকে এই প্রযুক্তি নিয়ে আসতে হয়। এ জন্য তাদের আগে থেকে জানাতে হয়। এবারও আমরা এলিমিনেটর এবং ফাইনালে পুরো ডিআরএস পাব।'

বিপিএলের গত আসরের শুরুতেই আম্পায়ারিং নিয়ে তৈরি হয় বিতর্ক। ঢাকা পর্বের খেলা শেষে সেই বিতর্ক উত্তাপ ছড়ালে চট্টগ্রাম পর্ব থেকে অল্টারনেটিভ ডিআরএস ব্যবস্থা করে বিসিবি। সেটি এডিআরএস নামে পরিচিত, মূলত স্লো মোশন রিপ্লে দেখে টিভি আম্পায়ার দেন সিদ্ধান্ত। তবে এলবিডব্লিউর ক্ষেত্রে বলের গতিপথ অনেকটা ধারণার উপর থেকে দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হয় তাদের।