রাত পোহালেই সিলেটে প্রথম ওয়ানডেতে আয়ারল্যান্ডের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথমবারের মত পূর্ণাঙ্গ সফরে বাংলাদেশে এসেছে আইরিশরা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের পর তিন টি-টোয়েন্টি ও এক টেস্ট খেলবে। এরপরই তারা বাংলাদেশকে আতিথেয়তা দেবে। তবে সিরিজটি নিজেদের মাঠে আয়োজন না করে বাংলাদেশকে আইরিশরা আতিথেয়তা দেবে ইংল্যান্ডের চেমসফোর্ডে। 

২০২০ সালে সফরটি হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে তা স্থগিত হয়ে যায়। অবশেষে আয়ারল্যান্ড সিরিজের সূচি ঘোষণা করলো দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সুপার লিগের অ্যাওয়ে সিরিজ খেলতে চলতি বছরের মে মাসে উড়াল দেবে বাংলাদেশ।

আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের তিন ওয়ানডে খেলবে দুই দল। সিরিজটির আয়োজক এসেক্স। খেলা হবে ক্লাউডি কাউন্টি গ্রাউন্ডে। ম্যাচগুলো হবে ৯, ১২ ও ১৪ মে। বাংলাদেশের জন্য এই সিরিজটি তেমন গুরুত্বপূর্ণ না হলেও আয়ারল্যান্ডের জন্য বাঁচা-মরার লড়াই। কারণ বাংলাদেশকে ৩-০তে হারালে আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে সরাসরি বিশ্বকাপে চলে যাবে আইরিশরা। আর ৩-০ ব্যবধানে জিততে না পারলে জুনে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কোয়ালিফায়ারে মুখোমুখি হবে।

আয়ারল্যান্ডে ওই সময়ে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বৃষ্টিতে কোনো ম্যাচ যেন পণ্ড না হয় এজন্য ইংল্যান্ডে সিরিজ সরিয়ে নিয়েছে। বিশ্বকাপে নিজেদের সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখতে সম্ভাব্য সকল সুযোগ তৈরি রাখছে আয়ারল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।