ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ হেমায়েত উল্লাহকে অপসারণ করেছে বীমা খাতের নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ আইডিআরএ। বুধবার বীমা কোম্পানিটির চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়ে অপসারণের কথা জানানো হয়েছে। সংশ্নিষ্ট সূত্রে এ কথা জানা গেছে।

এ অপসারণ বৃহস্পতিবার থেকে কার্যকর হবে। এ অবস্থায় চিঠিতে সিইওর অব্যবহিত নিচের পদের কাউকে আপাতত সিইওর দায়িত্ব অর্পণ করতে পর্ষদকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে আগামী তিন মাসের মধ্যে সিইও নিয়োগ দিতেও বলেছে আইডিআরএ। হেমায়েত উল্লাহর বিরুদ্ধে বীমা কোম্পানির সাবেক দুই চেয়ারম্যানের দুর্নীতির সহযোগী হিসেবে কাজ করার অভিযোগ রয়েছে।

আইডিআরের চিঠিতে বলা হয়েছে, এ কোম্পানি পরিচালনায় বিভিন্ন অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা, আর্থিক অনিয়ম, বীমা পলিসি গ্রাহক ও বীমাকারীর স্বার্থের ক্ষতি হতে পারে- এমন কর্মকাণ্ডের তথ্য তাদের নজরে এসেছে। বীমা গ্রাহকদের থেকেও নানা অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা বন্ধে হেমায়েত উল্লাহ ব্যবস্থা নিতে পারেননি। উল্টো তার বিরুদ্ধেই নানা অনিয়মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে, যার তথ্য-প্রমাণ আইডিআরএর কাছেও রয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) থেকে হেমায়েত উল্লাহর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন এবং মিথ্যা তথ্য সংবলিত সম্পদ বিবরণী দাখিলের অভিযোগ রয়েছে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে দুদক মামলাও করেছে এবং তার বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

মাত্র দুই সপ্তাহ আগেই ফারইস্টের পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে দেয় শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এপচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। নতুন ১০ জন স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দিয়ে পর্ষদ পুনর্গঠন করেছে সংস্থাটি।