রোববার কমার পর গতকাল সোমবার বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। সিমেন্ট, কাগজ ও ছাপাখানা এবং টেলিযোগাযোগ খাতের বেশিরভাগ শেয়ার দর হারালেও অন্য সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারের দর কমেছে। তবে তুলনামূলক বেশি বেড়েছে বস্ত্র এবং বীমা খাতের শেয়ারের দর। এদিকে, সূচক ও লেনদেনের পরিমাণও কিছুটা বেড়েছে।

প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইতে ২৩৭ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৯১টির দর কমেছে, অপরিবর্তিত ৫৪টির দর। অধিকাংশ শেয়ারের দর বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ১৯ পয়েন্ট বেড়ে ৬৩২০ পয়েন্ট ছাড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ৭০০ কোটি ৭৬ লাখ টাকার শেয়ার, যা রোববারের তুলনায় ১০৬ কোটি টাকা বেশি।

বস্ত্র খাতের তালিকাভুক্ত ৫৮ কোম্পানির মধ্যে ৪৫টির দর বেড়েছে। অপরিবর্তিত ছিল আটটির। বাকি পাঁচটিতে কমার পরও এ খাতের সার্বিক শেয়ারদর বেড়েছে দেড় শতাংশ। এ ছাড়া মিউচুয়াল ফান্ডগুলোর দরও বেড়েছে। লেনদেন হওয়া ৩৫টি ফান্ডের মধ্যে ১৯টির দর বেড়েছে, কমেছে তিনটির। বাকি ১৩টি অপরিবর্তিত। এ খাতে দরবৃদ্ধির হার দেড় শতাংশ।

এ ছাড়া বীমা খাতের ৫৪ কোম্পানির মধ্যে ৪৩টির দর বেড়েছে, কমেছে ১০টির। তারপরও এ খাতের সার্বিক দর বেড়েছে সোয়া ১ শতাংশ। তবে সিমেন্ট খাতের সাত কোম্পানির মধ্যে পাঁচটির এবং কাগজ ও ছাপাখানা খাতের ছয় কোম্পানির মধ্যে পাঁচটির দর কমেছে। খাতওয়ারি সর্বোচ্চ ১২৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বস্ত্র খাতে, যা মোট লেনদেনের ১৮ শতাংশের বেশি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ওষুধ ও রসায়ন খাতে প্রায় ৮১ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে।