ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি: দালাল এনাম ও রাজ্জাক রিমান্ডে

প্রকাশ: ৩০ মে ২০১৯   

সিলেট ব্যুরো

এনামুল হক ও আবদুর রাজ্জাককে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করা হয়— সমকাল

এনামুল হক ও আবদুর রাজ্জাককে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করা হয়— সমকাল

ভূমধ্যসাগর হয়ে লিবিয়া থেকে ইতালিতে মানবপাচারকারী এনামুল হক ও আবদুর রাজ্জাককে রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বৃহস্পতিবার সিলেটের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট লায়লা মেহের বানু তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

নগরীর রাজা ম্যানশনের ‘নিউ ইয়াহিয়া ওভারসিজ’ নামের অবৈধ ট্রাভেলস ব্যবসায়ী এনামের ৬ দিনের এবং তার সহযোগী রাজ্জাকের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে।

এ তথ্য নিশ্চিত করে চাঞ্চল্যকর মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির ইকোনমি ক্রাইম স্কোয়াডের পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম জানান, আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনি ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন।

এদিকে নৌকাডুবি থেকে বেঁচে ফেরা বিল্লাল হোসেন বৃহস্পতিবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।

অবৈধভাবে ইতালিতে পাচারের সময় গত ৯ মে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে বাংলাদেশিসহ অন্তত ৬৫ জনের মৃত্যু হয়। এই নৌকায় করে দালাল এনামুলের মাধ্যমে ইতালি যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের বিল্লাল হোসেন। নৌকাডুবিতে নিহত ফেঞ্চুগঞ্জের মুহিদপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের ভাই মফিজ উদ্দিন বাদি হয়ে ১৬ মে রাতে এনামসহ ২০ মানবপাচারকারীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। সেই রাতেই র‌্যাব অভিযান চালিয়ে এনামসহ তিনজনকে ঢাকার বিভিন্ন জায়গা থেকে গ্রেফতার করে।

এই মামলার আসামিরা হলেন– সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার পনাইরচক গ্রামের প্রয়াত আব্দুল খালিকের ছেলে এনামুল হক, একই উপজেলার হাওরতলা গ্রামের ইলিয়াস মিয়ার ছেলে জায়েদ আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রাজ্জাক হোসেন, ঢাকার সাইফুল ইসলাম, মঞ্জুর ইসলাম ও তাদের সহযোগী অজ্ঞাত আরও ১০-১৫ জন।