সিলেটে পৌনে পাঁচ কোটি টাকার বেশি মূল্যের অবৈধ মাদকদ্রব্য ধ্বংস করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। প্রায় ২০ মাস ধরে সিলেট ব্যাটালিয়নের (৪৮ বিজিবি) পৃথক অভিযানে বিশাল পরিমাণ এ মাদকদ্রব্য জব্দ করা হয়েছিল।

২০১৯ সালের ১৩ জুন থেকে চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত জব্দ করা মাদকদ্রব্যের সঙ্গে ২০ জনকে আটকও করেছে বিজিবি।

বুধবার দুপুরে নগরীর আখালিয়ায় সিলেট সেক্টর সদরদপ্তরের বাস্কেটবল গ্রাউন্ডে আনুষ্ঠানিকভাবে মাদকদ্রব্যগুলো ধ্বংস করা হয়।

মাদকদ্রব্য ধ্বংস করা হচ্ছে- সমকাল

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিজিবির উত্তর-পূর্ব রিজিয়ন, সরাইলের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এবিএম নওরোজ এহসান বলেন, সীমান্তে নিরাপত্তার পাশাপাশি চোরাচালান প্রতিরোধে সর্বদা তৎপর বিজিবি। মাদক নিয়ন্ত্রণে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা ও উদ্যোগ।

এই অনুষ্ঠান শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সরকার বিজিবিকে ত্রি-মাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলেছে। এই উন্নয়নের ছোঁয়া সিলেটেও লাগবে।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বিজিবির সিলেট সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মোহা. আমিরুল ইসলাম, সিলেট ব্যাটালিয়ন (৪৮-বিজিবি) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আহমেদ ইউসুফ জামিল, কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের সহকারী কমিশনার প্রভাত কুমার সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মিয়া মোহাম্মদ আশিস বিন্ হাছান, পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সামছুজ্জামান সরকার, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সানজিদা চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে চার কোটি ৭৮ লাখ ৬৭ হাজার ৩৩০ টাকার বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য ধ্বংস করা হয়। এসবের মধ্যে ১৯ হাজার ৮৮ বোতল বিভিন্ন ধরনের ভারতীয় মদ, ৪২ লিটার বাংলা মদ, ৪৯৭ বোতল বিভিন্ন ধরনের বিয়ার, চার হাজার ২১ বোতল ফেনসিডিল, নয় হাজার ৭৯৩ পিস ইয়াবা, ৯১ হাজার ৬৮০ কেজি গাঁজা, এক হাজার ৭০ প্যাকেট ভারতীয় সিগারেট, ৬৬ লাখ ৯৭ হাজার ১২৫ পিস ভারতীয় বিড়ি, ১৯০ কেজি তামাক পাতা ও ২৬ কেজি চা-পাতা ধ্বংস করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন