ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

সবকিছুই করবে অ্যাপ!

সবকিছুই করবে অ্যাপ!

ছবি: সংগৃহীত

সাব্বিন হাসান

প্রকাশ: ২৯ জানুয়ারি ২০২৪ | ০৬:১১ | আপডেট: ২৯ জানুয়ারি ২০২৪ | ১১:৫১

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড হয়েছে এমন পাঁচটি অ্যাপ গবেষণা সুস্পষ্ট করেই বলা যায়, সারাবিশ্বের প্রায় প্রত্যেক ডিজিটাল নাগরিকই এখন অ্যাপ ব্যবহার করছেন। তাও আবার একটি-দুটি নয়; একাধিক অ্যাপ। অর্থাৎ পুরো ডিজিটাল জনসংখ্যাই এখন অ্যাপ নিয়ন্ত্রিত। বিশ্বের বহু দেশে এখনই অ্যাপ ছাড়া কিছুই করা যায় না। লিখেছেন সাব্বিন হাসান

অ্যাপ দুনিয়ায় একচ্ছত্র আধিপত্য করছে গুগল। অ্যাপ ডাউনলোডের পরিসংখ্যানই তা সুস্পষ্ট করছে। ঠিক তার পরেই দ্বিতীয় সর্বাধিক ডাউনলোড করা অ্যাপ হচ্ছে ইনস্টাগ্রাম। অ্যানালিস্ট প্ল্যাটফর্ম অ্যাপ রিপোর্ট বলছে, গুগল অ্যাপটি এখন পর্যন্ত প্রায় ৪৫ কোটি বার ডাউনলোড করা হয়; যার মধ্যে শুধু ২০২৩ সালেই অ্যাপটি চার কোটি বার ডাউনলোড করেছেন গ্রাহকরা।

সর্বশেষ বছরের পরিসংখ্যানে প্রকাশ, অ্যাপ জনপ্রিয়তার প্রধানতম মাপকাঠি হচ্ছে তা কী পরিমাণ ডাউনলোড করা হয়। প্রকাশিত ওই তালিকায় শীর্ষেই আছে গুগল। অ্যাপ দুনিয়ায় প্রতিনিয়ত নিত্যনতুন ভাবনা যুক্ত হচ্ছে। বিলিয়ন ডলার ইন্ডাস্ট্রি ছাড়িয়ে গেছে অ্যাপের দাপট। সামনের সময়ে যা আরও বড় পরিবর্তনের সঙ্গে অপ্রতিরোধ্য বাণিজ্যের কথাই বলে দিচ্ছে। 

অন্যদিকে, ইনস্টাগ্রাম যেন গুগলকে ছুঁইছুঁই করছে। সর্বশেষ বছরে ইনস্টাগ্রাম অ্যাপটি প্রায় ৩০ কোটি বার ডাউনলোড করা হয়। খবরের সূত্র বলছে, তৃতীয় স্থানে আছে ভারতের অ্যাপ রিলায়েন্স জিও। মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন অ্যাপটি এখন পর্যন্ত প্রায় ২৭ কোটি বার ডাউনলোড করা হয়। তবে লক্ষণীয় বিষয়, শুধু ২০২৩ সালেই অ্যাপটি ১ কোটি ৮০ লাখ বার ডাউনলোড করেন গ্রাহকরা। পরিসংখ্যানের দিকে দৃষ্টি রাখলে জনপ্রিয়তার বিষয়টি আরও খানিকটা সুস্পষ্ট হবে।

ডাউনলোড তালিকা

গুগল : ডাউনলোড ৪৫ কোটি। সর্বশেষ বছরে চার কোটি।
ইনস্টাগ্রাম : ডাউনলোড প্রায় ৩৭ কোটি। সর্বশেষ বছরে চার কোটি।
রিলায়েন্স জিও : ডাউনলোড প্রায় ২৭ কোটি। সর্বশেষ বছরে ১ কোটি ৮০ লাখ।
ফ্লিপকার্ট : ডাউনলোড ২২ কোটি। সর্বশেষ বছরে ২ কোটি ৮০ লাখ।
হোয়াটসঅ্যাপ : ডাউনলোড ২১ কোটি। সর্বশেষ বছরে দুই কোটি।
মেটা : ডাউনলোড প্রায় ২১ কোটি।  সর্বশেষ বছরে দুই কোটির বেশি।

জনপ্রিয় অ্যাপ

সর্বাধিক ডাউনলোড বা জনপ্রিয়তার পরিসংখ্যান বলছে, যে তত্ত্ব সামনে আনছে তা সুস্পষ্টভাবেই ভবিষ্যতে অ্যাপ দুনিয়ার নিয়ন্ত্রণ পরিষ্কার করে দিচ্ছে। যার নেতৃত্বে নিজেদের শক্ত অবস্থান তুলে ধরেছে মেটা, হোয়াটসঅ্যাপ, ফ্লিপকার্ট, ইনস্টাগ্রাম ও রিলায়েন্স জিও অ্যাপ। নিজেকে এখন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে ধরে রেখেছে ফেসবুক আর মেসেঞ্জার।

যদি তিন প্ল্যাটফর্মের হিসাব বিবেচনা করা হয় তাহলে তো মেটার কাছাকাছি আর কোনো প্ল্যাটফর্মই অতটা শক্তিশালী নয়। বিগত বছরে সাত কোটি ডাউনলোড নিয়ে একেবারে নিজেকে আলাদা জায়গায় প্রতিষ্ঠিত করেছে মেটা। হিসাব বলছে, অ্যাপ জনপ্রিয়তার কারণে রেকর্ড পরিমাণ ডাউনলোড প্ল্যাটফর্মটিকে ৭৮ কোটির বেশি ডাউনলোডে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে। অন্যদিকে গুগলের প্রধান সংস্থা আলফাবেট এইএনসির ডাউনলোডও ৫৩ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। সবকিছু বিবেচনা করে ডিজিটাল বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভবিষ্যৎ দুনিয়ার সবকিছুই নিয়ন্ত্রণ করবে অ্যাপ; তা প্রায় সুস্পষ্ট। ধীরে ধীরে অ্যাপে যুক্ত হচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অভূতপূর্ব সব ফিচার।

বছরের শুরুতেই নিজেকে আরও অপ্রতিরোধ্য করতে মেসেঞ্জার অ্যাপকে এবার সুরক্ষায় কথা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। সামাজিক যোগাযোগের চেহারা বদলে দেওয়া জনপ্রিয় মেসেঞ্জার অ্যাপে কমবেশি সবাই নিবন্ধিত। বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে সহজে যোগাযোগ ছাড়াও ব্যক্তিগত কথাবার্তার জন্য অ্যাপটি আগাগোড়াই জনপ্রিয়। তবে থেকে থেকে অ্যাপটির সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে, বিতর্ক ছড়িয়েছে। আর সে প্রশ্নেই জাকারবার্গ এবার মেসেঞ্জার অ্যাপ নিয়ে জানান দারুণ খবর। অ্যাপটি দ্রুতই হোয়াটসঅ্যাপের মতো এন্ড টু এন্ড এনক্রিপটেড হবে। ফলে সুরক্ষায় যুক্ত হবে বাড়তি নিশ্চয়তা।

ব্যক্তিগত কথাবার্তা ও বার্তাবিনিময়ে নিজেকে আরও সুরক্ষিত করবে মেসেঞ্জার। মূল প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ মেটার কর্মীরাও নিজের প্রতিষ্ঠান থেকে মেসেঞ্জারের উন্নয়নের কোনো অংশে প্রবেশের সুযোগ পাবেন না।

নতুন ফিচার যুক্ত হবে এআই মেসেজিং। ফলে নিবন্ধিতদের জন্য আরও সুযোগ্য হবে মেসেঞ্জার। তা ছাড়া চ্যাটে বর্ণিল থিম, স্ট্য়াটিক কালার ও গ্র্যাডিয়েন্ট থিমে পরিবর্তন আসবে। থাকবে ইমোজির নতুনত্ব, যা কাস্টমাইজ করার স্বাধীনতা পাবেন নিবন্ধিতরা। সব মিলিয়ে চলতি বছরে অ্যাপ দুনিয়ায় বর্ণিল আর উত্তেজিত সব পরিবর্তন আসছে, তা প্রায় নিশ্চিত করেই বলা যায়।

ই-কমার্সে অ্যাপ

সারাবিশ্বে ই-কমার্স খাতে অ্যাপ বৈপ্লবিক পরিবর্তনের আভাস দিয়েছে। ফ্লিপকার্টকে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে মিশো। বিশ্বের ছোট সব শহরের চাহিদা পূরণে সামর্থ্য দেখিয়েছে মিশো। ২০২৩ সাল শেষে সাড়ে তিন কোটির বেশি সক্রিয় ব্যবহারকারী নিয়ে মিশো সহজেই অন্যসব জনপ্রিয় ই-কমার্স অ্যাপ থেকে তুলনামূলক এগিয়ে যায়। সক্রিয় ব্যবহারকারীর পরিপ্রেক্ষিতে ই-কমার্স প্রযুক্তি সংস্থা অ্যামাজন আর ফ্লিপকার্টের মধ্যে প্রতিযোগিতা এখনও চলমান। বছরের শেষে ফ্লিপকার্টের আট কোটির বেশি গ্রাহক সুবিধা নেন। অন্যদিকে অ্যামাজনের সাত কোটির বেশি সক্রিয় নিবন্ধনকারী নিয়ে কিছুটা পিছিয়ে পড়ে। তবে অ্যাপভিত্তিক ব্যবসার পরিসর বাড়িয়েছে ই-কমার্স খাতের সবাই।

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড হয়েছে এমন পাঁচটি অ্যাপ গবেষণা সুস্পষ্ট করেই বলা যায়, সারাবিশ্বের প্রায় প্রত্যেক ডিজিটাল নাগরিকই এখন অ্যাপ ব্যবহার করছেন। তাও আবার একটি-দুটি নয়; একাধিক অ্যাপ। অর্থাৎ পুরো ডিজিটাল জনসংখ্যাই এখন অ্যাপ নিয়ন্ত্রিত। বিশ্বের বহু দেশে এখন অ্যাপ ছাড়া কিছুই করা যায় না।

আরও পড়ুন

×