হুয়াওয়ের শ্বেতপত্র প্রকাশ

ভবিষ্যতে মহামারি ঠেকাবে ফাইভজি

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০২০   

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ভবিষ্যতে মহামারি প্রতিরোধের পাশাপাশি চিকিৎসার কার্যকরী বাড়াতে ফাইভজি (পঞ্চম প্রজন্ম) প্রযুক্তি কী ধরনের ভূমিকা রাখবে, তার ওপর একটি শ্বেতপত্র প্রকাশ করেছে চীনের বিশ্বখ্যাত প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে ও বিশ্বের অন্যতম বড় হিসাব নিরীক্ষণকারী প্রতিষ্ঠান ডিলোয়েট। ফাইভজির মূল ফিচারগুলো অন্যান্য প্রযুক্তির সঙ্গে কীভাবে সমন্বয় সাধন করতে পারে, শ্বেতপত্রে তাও তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়া শ্বেতপত্রে মহামারির মতো জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যসেবা খাতের ডিজিটাল রূপান্তরের গুরুত্বও তুলে ধরা হয়েছে।

"ফাইভজির সাহায্যে 'কভিড-১৯' মোকাবিলা :গণস্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নতির সুযোগ" শিরোনামের এ শ্বেতপত্রে করোনা নিয়ন্ত্রণ ও চিকিৎসায় চীনের সাফল্যকে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় দেশটির বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারের তথ্য চাহিদা নিরূপণে ফাইভজি অভিজ্ঞতা কীভাবে কাজে দিয়েছে, তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে।

শ্বেতপত্রে বলা হয়েছে, সংক্রমিত ব্যক্তির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাসহ করোনাভাইরাসের মতো মহামারির প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে কার্যকর যোগাযোগ ও তথ্য-উপাত্ত আদান-প্রদানের গুরুত্ব অপরিহার্য। ফাইভজির মতো শক্তিশালী মোবাইল নেটওয়ার্ক অবকাঠামোর মাধ্যমে দূর থেকে রোগীকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ, রোগ নিণয় এবং সংক্রমণ পর্যবেক্ষণে প্রয়োজনীয় থার্মাল ইমেজিং করা সম্ভব। এটি ক্লাউড ভিত্তিক তথ্যসমৃদ্ধ ডিজিটাল জরুরি সাড়া প্রদান প্ল্যাটফর্ম হিসেবে নজির স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছে।

শ্বেতপত্রে আরও বলা হয়, হুয়াজং ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এবং ল্যানওন টেকনোলজির সঙ্গে কাজ করছে হুয়াওয়ে। অংশীজনের সঙ্গে পরিচালিত উদ্ভাবন কর্মসূচির জন্য আগামী পাঁচ বছরে ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনাও করেছে হুয়াওয়ে।