ইনোভেশন ও অটোমেশন নিয়ে কাজ করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং থিংক গ্রুপের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। 

সোমবার বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম এবং থিংক গ্রুপের পক্ষে পরিচালক ও সহপ্রতিষ্ঠাতা আশিকুর তানিম সমঝোতায় স্বাক্ষর করেন। 

জানা গেছে, থিংক গ্রুপ স্বাস্থ্যসেবা, কৃষি, শিক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে কাজ করে। সমঝোতার আওতায় থিংক গ্রুপকে কালিয়াকৈরে ‘বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি’তে এক একর জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। থিংক গ্রুপ এই পার্কে আইওটি ডিভাইস উৎপাদন করবে। 

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম বলেন, কালিয়াকৈরে অবস্থিত ‘বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি’ দেশের প্রথম ও বৃহত্তম হাই-টেক পার্ক। ৩৫৫ একর জমিতে স্থাপিত ‘বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি’তে বর্তমানে ৪২টি কোম্পানিকে জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে সেখানে ১৪টি কোম্পানি উৎপাদন শুরু করেছে। কোম্পানিগুলো এই পার্কে মোবাইল ফোন অ্যাসেম্বলিং ও উৎপাদন, অপটিকাল কেবল, হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার, ডাটা-সেন্টারসহ বিভিন্ন উচ্চ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে। দেশের বিভিন্ন পার্কে এ পর্যন্ত ৩২৭ কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে এবং প্রায় ১৩ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। 

থিংক গ্রুপ দ্রুত এই পার্কে কাজ শুরু করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। 

এসময় বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা ও থিংক গ্রুপের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন