ইন্টারনেট ও অবাধ তথ্যপ্রবাহের এ যুগে তরুণরা বর্তমান মুহূর্তকে ভবিষ্যতের জন্য ধারণ করে রাখতে চায় ক্যামেরায়। এক্ষেত্রে তাদের অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে মোবাইল ক্যামেরা। পোর্টেবল, সহজে বহনযোগ্য, প্রায় খরচহীন, মানসম্মত ছবি-ভিডিও– এসব কারণে স্মার্টফোন দিনদিন জনপ্রিয় হচ্ছে। সাথে একটা ফোন থাকা মানেই অনেক কিছুর সমাধান। একের ভেতর সব কাজ করে এমনই একটা ফোন হচ্ছে অপো এফ১৯ প্রো। মধ্যম বাজেটের ফোনটি সম্প্রতি বাজারে আসার পর থেকেই তরুণদের মধ্যে দারুণ সাড়া ফেলেছে। ফোনটির বিশেষ কিছু দিক তুলে ধরতেই এ আয়োজন।

ফ্রন্ট-রিয়্যার দুই ক্যামেরায় একসাথে কাজ করে

আমার কাছে ফোনটির সবচেয়ে যে বিষয়টি ভালো লেগেছে তা হলো ডুয়েল ভিউ ভিডিও। নতুন এ ফিচারটি দিয়ে ফ্রন্ট ও রিয়্যার দুটো ক্যামেরা একসাথে কাজ করা এবং স্বত:স্ফূর্তভাবে ভিডিও রেকর্ড করা যায়। একইসময় দুই ক্যামেরাতেই স্ক্রিনে প্রিভিউ দেখে নেওয়া যায়। তার মানে চারপাশের পরিবেশ ও নিজের অভিজ্ঞতা এ দুটো ‘পয়েন্ট অব ভিউ’ ফুটে উঠবে ভিডিও’তে।

এআই কালার পোট্রেট ভিডিও

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই কালার পোট্রেট ভিডিও এআই কালার ফটোর মতোই। এফ১৯ প্রো এআই কালার পোট্রেট ভিডিও ধারনে সাহায্য করে। ফিচারটি ভিডিওতে মানুষকে সাবজেক্ট হিসেবে চিহ্নিত করে ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে আলাদা করে ফেলে। তারপর ভিডিও’তে সাবজেক্ট হিসেবে কালারকে ধরে রাখে। ব্যাকগ্রাউন্ড কালারকে মনোটোন কালার হিসেবে মিউট করে রাখে।

মনক্রোম ভিডিও

ভিডিওর তিনটি আরজিবি (লাল, সবুজ ও নীল) কালারের মধ্যে যেকোন একটিকে ফোকাস করবে এই ফিচার। নির্বাচিত কালার’টি হাইলাইটেড করার পর বাকি তিনটি কালার ধূসর হয়ে যাবে। শক্তিশালী কালার কনট্রাস্টিং এর পর ভিডিওতে হলিউডের মতো ড্রামাটিক ইফেক্ট ফুটেজ পাওয়া যাবে যা যে কাউকে চমকে দিবে। উল্লেখ্য, মনোক্রম ভিডিও শুধুমাত্র রিয়্যার ক্যামেরায় সাপোর্ট করে।

ডায়নামিক বোকেহ

এটি এমন একটি পোট্রেট ইফেক্ট দিবে যার ফলে ছবির মান হবে চোঁখ ধাঁধানো। পোট্রেট শট নেওয়ার সময় এর এআই কোয়াড ক্যামেরা সাবজেক্টকে চিহ্নিত করে ফেলে। এমনকি এইচডিআর অলগরিদম প্রযুক্তি অল্প আলোতেও সাবজেক্টকে উজ্জ্বল করে তোলে। একইসাথে ব্যাকগ্রাউন্ডকে মোশন-ব্লার করে ফেলে। দিন-রাত সবসময়ই ডায়নামিক বোকেহ ফিচারটি কাজ করে।

স্লিক ডিজাইন

৬.৪৩ ইঞ্চি ডিজাইনের আল্ট্রা স্লিম ফোনটির ওজন মাত্র ১৭২ গ্রাম এবং পুরুত্ব ৭.৮ মিলিমিটার। তাই সারাদিন যেকোন কাজে নির্বিঘ্নে বহন করতে পারবেন ফোনটি। সুপার অ্যামোলেড পাঞ্চ হোল ডিসপ্লে ফোনটির স্ক্রিন টু বডি রেশিও ৯০.৮ শতাংশ। তাই নিজের মতো করে এইচডি কোয়ালিটির ভিডিও কনটেন্ট উপভোগ করা যাবে।

দাম ও অফার

বাংলাদেশি গ্রাহকদের জন্য ফ্যান্টাস্টিক পার্পল এবং ফ্লুইড ব্লাক এই দুই কালারের চোখ ধাঁধানো ট্রেন্ডি ফোনটির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৮,৯৯০ টাকা। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে তরুণদের ভালোলাগা ও মন জয় করার সবরকম ফিচারই রয়েছে এফ১৯ প্রো স্মার্টফোনে। কারণ ভিডিও ধারণ থেকে শুরু করে মোবাইলে যা যা করতে ভালোবাসে তরুণ প্রজন্ম তার সব ফিচারই রয়েছে এখানে। তাহলে আর দেরি কেন আজই লুফে নিন অপো এফ১৯ প্রো স্মার্টফোনটি।

মন্তব্য করুন