দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো ইনফ্লুয়েন্সার রেড-কার্পেট মেগা-ইভেন্ট ‘দ্য মার্ভেল অব টুমরো’। দ্য ইয়োর্স ট্রুলি'র গবেষণাভিত্তিক ইনফ্লুয়েন্সার ম্যানেজমেন্ট প্ল্যাটফর্ম ‘দ্য মার্ভেল-বি ইউ’ সম্প্রতি রাজধানীতে এই মেগা-ইভেন্ট আয়োজন করে। দেশের যেসব সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার তাদের কাজের মাধ্যমে গত দুই বছরে সমাজে ইতিবাচক ভূমিকা রাখেন তাদের স্বীকৃতি ও সম্মাননা প্রদানই আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক সীমা হামিদ। সম্মানিত অতিথি ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ (বিপু)। অনুষ্ঠানে ১৫ ক্যাটাগরিতে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

পুরষ্কার বিজয়ীরা হলেন- রাফসান দ্য ছোটভাই, ফুড ব্লগার; হাবিবা আক্তার সুরভী, ফ্যাশন; সাদাত হোসাইন, রাইটার; ডা. সাকলায়েন রাসেল ও সোহেল তাজ, ওয়েল বিং; অন্তিক মাহমুদ, আর্ট; প্রীতম হাসান, মিউজিক; নাভিন আহমেদ, মেকআপ; হৃদি শেখ, ড্যান্স; থটস অব শামস ও রাশেদুজ্জামান রাকিব, কনটেন্ট ক্রিয়েটর; ফারদিন শরীফ (বাংলার রান্নাঘর), কুকিং; নাদির অন দ্য গো ও নিয়াজ মোর্শেদ (ট্র্যাভেলারস অব বাংলাদেশ), ট্র্যাভেল; মুনজেরিন শহীদ, কমিউনিটি ইনগেজমেন্ট; মুনেম ওয়াসিফ, ফটোগ্রাফি; রাফসান সাবাব, স্ট্যান্ডআপ কমেডি; এবং আয়মান সাদিক, বিজনেস নেক্সট জেন। বিশেষ সম্মাননা পুরষ্কার পান- জুবায়ের তালুকদার, মাহমুদা চৌধুরী মলি এবং শাহ রাফায়েত চৌধুরী, কমিউনিটি ইনগেজমেন্ট; শিমারগার্ল, মেকআপ।

অনুষ্ঠানে সীমা হামিদ বলেন, “বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সাররা দেশের জনগণকে বিভিন্নভাবে অনুপ্রাণিত করছে। তাদের কাজ দেখে আমাদেরও অনেক কিছু শেখার আছে। তাই ইনফ্লুয়েন্সারদের প্রতি আমার আহ্বান, সমাজে আপনাদের কাজের কেমন প্রভাব পড়ছে তা অবশ্যই খেয়াল রাখবেন এবং ভালো কাজ করে দেশ ও জাতিকে সমৃদ্ধ করার চেষ্টা চালিয়ে যাবেন।”

প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ (বিপু) বলেন, “করোনা মহামারিতে সংকটময় পরিস্থিতির সাক্ষী হয়েছি আমরা। তবে এর মাঝেও দেশের সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সাররা সমাজে যে ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করেছেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। আমার বিশ্বাস, তাদের হাত ধরেই আগামী দিনের বাংলাদেশ হয়ে উঠবে সুন্দর, পরিবেশবান্ধব ও আধুনিক।” সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

বিষয় : ‘দ্য মার্ভেল অব টুমরো’ সোস্যাল মিডিয়া

মন্তব্য করুন