রাজশাহীতে হাসপাতালের সামনে থেকে স্কুলছাত্র সানিকে (১৭) তুলে নিয়ে কুপিয়ে হত্যার বিচার দাবিতে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন এলাকাবাসী। সোমবার বিকেলে মহানগরীর রেলগেট শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বরে এই বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভে নিহত সানির আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও এলাকাবাসী যোগ দেন। সানির লাশ নিয়ে বিক্ষোভকারীরা হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে দ্রুত গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবি জানান। একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা লাশ নিয়ে মহাসড়কে বসে পড়লে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নওগাঁ মহাসড়কের সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে রাস্তায় দীর্ঘ যানজট বেঁধে যায়।

নিহত সানির মা বলেন, ‘রোববার আমার ছেলের জন্মদিন ছিলো। তার বন্ধুরা মিলে জন্মদিন পালন করতে গিয়ে একজন পড়ে গিয়ে আহত হয়। তাকে চিকিৎসা করানোর জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে হাসাপাতালের সামনে থেকে তুলে নিয়ে যায় সবজিপাড়ার ছেলেরা। সেখানে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। খুনিদের ফাঁসি চাই।’

সানির বাবা রফিকুল ইসলাম পাখি বলেন, ‘আমার ছেলে তাদেরকে চেনেও না, জানেও না। পরিকল্পিতভাবে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। খুুনিদের কঠোর বিচার চাই।’

এই বিষয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, এই ঘটনায় রাতেই হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

উল্লেখ্য, রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পূর্বশত্রুতার জের ধরে রাজশাহীর হেতেমখাঁ সবজিপাড়া এলাকায় সানিকে তুলে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। সানি রাজশাহী পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম পাখির ছেলে। সানি এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। তার বাড়ি বোয়ালিয়া থানার দড়িখরবোনা এলাকায়।