টেলিযোগাযোগ খাতে সেবার মান বাড়াতে একযুগ আগে অবকাঠামো শেয়ারিং নীতিমালা করা হয়। কিন্তু প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে মোবাইল অপারেটরগুলো পরস্পরের সঙ্গে টাওয়ার শেয়ারিংয়ে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। এতে মানসম্মত নেটওয়ার্ক সম্ভব হচ্ছে না। গ্রাহকরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অন্যদিকে অবকাঠামো উন্নয়নে অযাচিত ব্যয়ের পাশাপাশি বিদ্যুতের ব্যবহারও বাড়ছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টার ইনে টেলিকম অ্যান্ড টেকনোলজি নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি) আয়োজিত নেটওয়ার্ক উন্নয়নে অবকাঠামো ভাগাভাগির চ্যালেঞ্জ বিষয়ে এক গোলটেবিল বৈঠকে আলোচকরা এসব মতামত তুলে ধরেন।
অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে বলা হয়, দুই দশকে সারাদেশে মোবাইল টাওয়ার বসেছে প্রায় ৩৫ হাজার। এর মধ্যে অপারেটরদের হাতে আছে ২৪ হাজার ৪২৫টি। এসব টাওয়ারের মাত্র ১৭ শতাংশ শেয়ার হচ্ছে। শেয়ারের বাইরে রয়েছে প্রায় ২০ হাজার টাওয়ার। অপারেটরগুলোর মধ্যে রবি ৩০, গ্রামীণফোন ১৮ ও বাংলালিংক ১৭ শতাংশ টাওয়ার শেয়ার করছে। গত বছর মে মাসে বিটিআরসি অবকাঠামো ভাগাভাগির জন্য চুক্তির নির্দেশ দিলেও কোনো কোনো মোবাইল অপারেটর এতে রাজি হয়নি। বাধ্য হয়ে অনেক অপারেটর নিজস্ব টাওয়ার নির্মাণ বাড়িয়েছে। যত টাওয়ার বসছে, তত বিদ্যুতের ব্যবহার বাড়ছে। অপচয় হচ্ছে জমি। এগুলো পরিচালনায় ব্যয় বাড়ছে অপারেটরদের।
অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, অপ্রয়োজনে একই জায়গায় একাধিক অবকাঠামো গড়ে তোলা সমীচীন নয়। সেবার মান না বাড়ালে কোনো অবস্থাতেই গ্রাহক ধরে রাখতে পারবেন না।
বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদার বলেন, অবশ্যই মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে হবে। টাওয়ার শেয়ারিং করতে সমস্যা কোথায়, তা দেখতে হবে। এখন জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে হচ্ছে। এটি করতেও টাওয়ার শেয়ারিং জরুরি।
গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য দেন- বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল মতিন, টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাহাব উদ্দিন আহমেদ, ফাইবার অ্যাট হোমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মইনুল হক সিদ্দিকী, গ্রামীণফোনের হেড অব রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স হোসেন সাদাত, বাংলালিংকের চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স তাইমুর রহমান, ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের (আইএসপি) সংগঠন আইএসপিএবির সভাপতি এমদাদুল হক, রবি আজিয়াটার (স্পেকট্রাম অ্যান্ড টেকনিক্যাল রেগুলেশন) এপিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট অনামিকা ভক্ত প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ইডটকো বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর রিকি স্টেইনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।