ব্যবহারকারীদের কার্যক্রম নজরদারি করে টিকটক। ভিয়েনাভিত্তিক গবেষক ফিলিক্স ক্রাউস এমন দাবি করেছেন। নিজের গবেষণায় তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করে তিনি বলেছেন, ব্যবহারকারীরা তথ্য অনুসন্ধানে সার্চ বারে কী লিখছেন তা নজরদারিতে রাখে টিকটক অ্যাপ। অ্যাপটির মাধ্যমে বাইরের কোনো সাইটে গেলে ওই পোর্টালে ব্যবহারকারী কী করছেন তা নজরে রাখতে পারে টিকটক।

ফিলিক্স ক্রাউস বলছেন, ব্যবহারকারী টিকটক অ্যাপে থাকা কোনো লিংকে ক্লিক করলে অ্যাপটি ওই ওয়েবসাইটের সঙ্গে নতুন কোড যুক্ত করে দেয়। এই কোড ব্যবহারকারীর পুরো কার্যক্রমের ডাটা সংগ্রহ করে টিকটকের কাছে পাঠাতে পারে। এতে ক্রেডিট কার্ড নম্বর কিংবা পাসওয়ার্ডের মতো গোপন তথ্য-উপাত্তও হাতিয়ে নিতে সক্ষম টিকটক। কোড যুক্ত করার বিষয়টি স্বীকার করে টিকটক দাবি করছে, ডিবাগিংয়ের মতো কাজের জন্য ওই কোড বসায় তারা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, টিকটকের কোনো ভিডিওর লিংকে ক্লিক করলে প্রচলিত ব্রাউজারে না খুলে সেটি টিকটকের নিজস্ব ইন-অ্যাপ ব্রাউজারে খোলে। এতে ওই বিশেষ কোড বসানোর সুযোগ পায় টিকটক। তাঁরা বলছেন, টিকটক জেনেবুঝেই এটি করে। ফলে এটি কোনোভাবেই ন্যায়সংগত নয়। উল্লেখ্য, অ্যাপ যাচাইয়ে 'ফাস্টলেন' নামের কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা ক্রাউস। কয়েক বছর আগে কোম্পানিটি অধিগ্রহণ করে গুগল।