তারকা সংবাদ

প্রকাশ: ০১ জুন ২০১৯     আপডেট: ০১ জুন ২০১৯      

এমদাদুল হক মিলটন

ঈদ উৎসবকে রঙিন করে তুলতে চ্যানেলগুলো প্রচার করবে অসংখ্য নাটক ও টেলিছবি। টেলিভিশনের পাশাপাশি বিকল্প মাধ্যম ওয়েবের জন্যও নাটক নির্মাণ করছেন নির্মাতারা। এতে ভিন্ন ভিন্ন গল্প ও একাধিক চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তারকারা দাঁড়িয়েছেন ক্যামেরার সামনে। তারকাদের ঈদের আয়োজন নিয়ে এ প্রতিবেদন

বছরের আবর্তনে প্রতিবার ঈদ হাজির হয় নতুন রূপে, নতুন ঢঙে। এক পশলা আনন্দের বার্তা নিয়ে চারপাশে ছড়িয়ে দেয় প্রশান্তির আবেশ। উৎসবের আমেজে চারপাশ বর্ণিল সাজে সেজে ওঠে। ঈদের সময় কেতাদুরস্ত পোশাকে আপনজনের সঙ্গে ঘুরে বেড়ানো কিংবা অখণ্ড অবসরের সময়টিতে পরিবারের সবাই মিলে টিভি সেটের অনুষ্ঠানে সময় কাটানো নেহাত মন্দ হয় না। আর টেলিভিশন চ্যানেলগুলোও এ সময় বাহারি রকমের অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে দর্শকদের বিনোদিত করে। তার মধ্যে সবার দৃষ্টি থাকে ছোট পর্দার ঈদের নাটক নিয়ে। বছরব্যাপী চ্যানেলগুলোয় অসংখ্য নাটক সম্প্রচারিত হলেও ঈদকে ঘিরে নির্মাতা থেকে অভিনেতা সবারই থাকে বিশেষ পরিকল্পনা। এ সময় দর্শকের কথা মাথায় রেখে মানসম্মত আয়োজনের পাশাপাশি নাটকের বাজেটেও আনা হয় বড় ধরনের পরিবর্তন। বরাবরের মতে, এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না। তবে ক্রিকেট বিশ্বকাপের কারণে আয়োজনের কিছুটা বাঁক বদলেছে। বিটিভি থেকে শুরু করে দেশের সব বেসরকারি টিভি চ্যানেলে নাটক-টেলিছবি ও ওয়েব সিরিজ প্রচার করবে। ঈদে নির্মাতাদের মধ্যে ছিল তারকা শিল্পীদের নিয়ে কাজ করার প্রতিযোগিতা। ঈদে নাটক ও টেলিছবি নিয়ে বরাবরই দর্শকদের বেশি আগ্রহ থাকে। ঈদে বিনোদনের বড় বাজেটই থাকে টিভি নাটক ও টেলিছবিকে ঘিরে।

এবার ইউটিউবে নাটক প্রচারের সংখ্যা গত বছরের চেয়ে বেশ বেড়েছে। ঈদের কাজের তালিকা ঘাঁটলে সহজেই এর প্রমাণ মিলে। নাটকের তালিকায় চোখ রাখলে, বিস্মিত হবেন। এত নাটক! তালিকা যত বড়ই হোক, আয়োজনের কোনো কমতি থাকবে না, এমন কথা বলেছে টিভি চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। নির্মাতারা চান নাটকের মাধ্যমে দর্শকদের পরিপূর্ণ বিনোদন দিতে, নয়তো ব্যতিক্রমী কাজের মধ্য দিয়ে তাদের মনে দাগ কাটতে। একই চিন্তাধারা থাকে অভিনয়শিল্পীদেরও। তারা চান ভিন্নধর্মী বা আগে যে ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেননি তেমন কিছু করে দেখাতে। আর অনবদ্য অভিনয় করে দর্শক-মনে চিরস্থায়ী আসন করে নেওয়ার বাসনাও লালন করেন অনেকে। এবার জেনে নেই ঈদ নাটক ও টেলিছবিতে অভিনয় করা শিল্পীদের সংবাদ। অভিনয়ে নিজেকে ভাঙতে নানা ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাকিয়া বারী মম। দর্শকদের মনোযোগ কাড়তে সময় লাগেনি তার। এ কারণে তার কাজ নিয়ে দর্শকের কৌতূহল থাকে সব সময়। কিন্তু কাজের সংখ্যা বাড়ানোর ইচ্ছা নেই বলেই মম বাছ-বিচার করে নাটক কিংবা টেলিছবিতে অভিনয় করেন। তাই তো যে কোনো ঈদে মম'র ঈদের কাজের তালিকা থাকে সংক্ষিপ্ত। এই ঈদে সরদার রোকনের 'অচেনা মনের গলিতে', 'আমি তুমি প্রেম পর্ব', শিহাব শাহিনের 'বাউণ্ডুলে', সৈয়দ শাকিলের 'ওপার আকাশ'সহ কয়েকটি নাটক ও টেলিছবিতে মমকেদেখা যাবে। 

সারা বছর ছোটপর্দায় খুব একটা দেখা গেলেও ঈদে বেশি ব্যস্ত সজল। এবার তাকে দেখা যাবে মাসুদ হাসান উজ্জ্বলের ওয়েবসিরিজ 'পাফ ড্যাডি, সরদার রোকনের 'মায়েরা পাখির মতো হয়' সহিদুন্নবীর 'দোস্ত-দুশমন' নাজমুল রনির 'ঝগড়া চলছে' ফেরদৌস হাসান রানার 'বাম দিক থেকে চলুন'সহ আরও বেশ কয়েকটি নাটকে। মজার বিষয় হলো, সজল নিজেও চান না ঈদের সর্বাধিক নাটকের শিল্পী হিসেবে নিজেকে দেখতে। কেউ বন্ধু, কেউ ছোট ভাই হিসেবে, নয়তো ভিন্নধর্মী কাজের আশ্বাস দিয়ে অনেকে আমার কাছে আসে। শিডিউল দেওয়ার মতো দিন খুঁজে পাই না, তবু অনেকে নাছোড়বান্দা। কী করব বলুন! তাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে অভিনয় করতেই হয়। এ কারণেই আমার নাটক, টেলিছবির সংখ্যা এত বেশি। 

নাটকের সংখ্যার দিক থেকে এবার পিছিয়ে থাকেননি অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা। চলচ্চিত্রে ব্যস্ততার জন্য খুব বেশি নাটক ও টেলিছবিতে অভিনয় করেননি তিনি। এবার ভিন্নধর্মী গল্প ও চরিত্র নির্বাচন করে কাজ করলেও নাটক, টেলিছবির তালিকাটা কীভাবে যেন বড় হয়ে গেছে, বলছেন তিশা। শুধু সম্ভাবনাময় নতুন নির্মাতা নয়, তিশা অভিনয় করেছেন এ সময়ের আলোচিত নির্মাতাদের নাটক ও টেলিছবিতে। সরদার রোকনের পরিচালনায় 'মায়েরাও পাখির মতো হয়' নাটকের জুটি বেঁধেছেন সজলের সঙ্গে। এটি প্রচার হবে চ্যালেই আইয়ে। এ নাটকে তিশাকে দেখা যাবে বস্তির মেয়ের চরিত্রে। এ ছাড়া তিনি ওসমান মিরাজের 'বকুলের কথা' নাটকে কাজের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। মাবরুর রশিদ বান্নাহর পরিচালনায় 'আঙুলে আঙুল', 'যতন করে মনে রেখো' নাটকে তাকে দেখা যাবে তাহসান খানের বিপরীতে। শ্রাবণী ফেরদৌসের পরিচালনায় তিনি অভিনয় করেছেন 'দাবাং গার্ল'রূপে। 

অন্যদিকে বড় ছেলেখ্যাত নির্মাতা মিজানুর রহমান আরিয়ানের নাটকে এবার দেখা যাবে অভিনেতা অপূর্বকে। নাটকের নাম 'বাইশে শ্রাবণ'। এতে তার বিপরীতে আছেন মেহজাবিন। এ ছাড়াও শিহাব শাহিনের রচনা ও পরিচালনায় 'বাউণ্ডুলে', সৈয়দ শাকিলের 'ওপারে আকাশ', মাহমুদ মাহিনের 'এভাবেও ফিরে আসা যায়', সোহেল আরমানের 'বেলি ফুলের বিয়ে'সহ আরও একাধিক নাটক ও টেলিছবিতে দেখা যাবে এই অভিনেতাকে। পাশাপাশি ঈদ ইত্যাদিতেও অংশ নিয়েছেন তিনি। এখানে দর্শকের সঙ্গে সরাসরি অভিনয় করবেন অপূর্ব। তিনি বলেন, টেলিভিশন ও অনলাইন মিলিয়ে ঈদের জন্য প্রায় ১৫টি নাটকে আমাকে দেখা যাবে।' 

যে কাজের সঙ্গে অপর্ণা যুক্ত থাকেন, তা সেরা কাজ হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করেন। এ কারণে ভক্তরা বলেন, চরিত্রের সঙ্গে অনায়াসে মিশে যেতে পারেন তিনি। নাটক-চলচ্চিত্র কিংবা টেলিছবি যাই হোক না, চরিত্র নিপুণভাবে ফুটিয়ে তোলেন তিনি। এই ঈদেও অপর্ণাকে দেখা যাবে আজাদ কালামের পরিচালনায় জমজ-১১, মাবরুর রশিদ বান্নাহর 'আমাদের দিনরাত্রি', সাজ্জাদ সুমনের 'ক্লাসলেস মোকলেস', 'ম্যান ইজ মকবুল'। এই ঈদে প্রায় দু'ডজন নাটকে অভিনয় করেছেন ইরফান সাজ্জাদ। খাইরুল পাপনের 'টক ঝাল মিষ্টি', মাবরুর রশিদ বান্নাহর 'ভাই পারলে মাফ করবেন', হাসান রেজাউলের 'শেষ বিকেলে মেয়ে', মনসুর আলম নির্ঝরের 'শিরোনাম নেই', রাইসুল তমালের 'ভালোবাসায় অভিমান থাকতে নেই', রাজীব রসুলের 'ফিফটি ফিফটি', ওসমান মিরাজের 'বকুল কথা, 'ঘুড্ডি', 'ভিন্ন শহরের গান'; প্রীতি দত্তের 'লাভ স্টোরি', আবু হায়াত মাহমুদের 'বাকের ভাই'তে তাকে দেখা যাবে। 

লাক্স তারকা নাদিয়া মিম 'প্রিয়ন্তি', 'রোদেলা বৃষ্টি' নাটক দিয়ে অভিনয়ে মুগ্ধতা ছড়াবেন তিনি। এ ছাড়া অভিনেতা তৌসিফ মাহবুব অভিনয় করেছেন দয়াল সাহার রচনায় ও ইউসুফ আলী খানের পরিচালনায় 'কটন বার', ইমরাউল রাফাতের পরিচালনায় 'প্রথম প্রেমই শেষ প্রেম নয়', সাজিন আহমেদের পরিচালনায় 'উবার'।