হাতে হাত রাখি

প্রকাশ: ১১ মে ২০১৪

ইকবাল ইউসুফ

একটু ভিন্ন ধরনের উদ্যোগ। সময় তখন সকাল সাড়ে ৮টা। 'হাউস অব ভলান্টিয়ার্স'-এর ১৪ সদস্য বাংলাদেশ ব্যাংক আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রবেশ করেন ভূমিকম্প সচেতনতা কর্মসূচির আওতায় শিক্ষার্থীদের সচেতন করে তোলার জন্য। হাউস অব ভলান্টিয়ার্স এ বিদ্যালয়ের মোট ৮০৪ শিক্ষার্থীকে ভূমিকম্পের কারণ, ক্ষয়ক্ষতি ও ভূমিকম্প-পরবর্তী করণীও সম্পর্কে সচেতন করে তোলা হয়। প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আওতায় ছিল ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন, প্রশ্নোত্তর পর্ব ইত্যাদি। প্রত্যেক শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের অংশগ্রহণ ও উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো।
হাউস অব ভলান্টিয়ার্স পরিচালিত ভূমিকম্প সচেতনতা কর্মসূচির প্রধান লক্ষ্য হলো ১০০ ভলান্টিয়ারকে এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা। পরে তাদের মাধ্যমে ৪ হাজার ৫০০ স্কুল শিক্ষার্থীকে এ বিষয়ে সচেতন করে তোলা এবং ভূমিকম্পবিষয়ক তথ্য-উপাত্ত নিয়ে একটি ওয়েবসাইট প্রকাশ করা। এই প্রোগ্রামের আওতায় এ পর্যন্ত ৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মোট ৪ হাজার ১৪০ শিক্ষার্থীকে এ সম্পর্কে সচেতন করা হয়েছে। ক্যাম্পেইন পরিচালনার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় সঞ্চালক এবং স্বেচ্ছাসেবক তৈরির লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে পাঁচটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। ইএমকে সেন্টার, আরসি সেন্টার (ডিইউ), ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় ১৪৭ স্বেচ্ছাসেবক অংশগ্রহণ করে। আরও ২টি ক্যাম্পেইন আয়োজন এবং ভূমিকম্প প্রস্তুতিবিষয়ক ওয়েবসাইট প্রকাশের মাধ্যমে এই প্রকল্প সম্পন্ন করা হবে।
হাউস অব ভলান্টিয়ার্সের মূল লক্ষ্য হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্বেচ্ছাসেবী কর্মকাণ্ডে উৎসাহী করে তোলা এবং তাদের নিয়ে একটি জ্ঞানভিত্তিক প্রযুক্তিনির্ভর সমাজ গঠন করা। এটি ২০০৭ সালে ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটউট অব আইটি (এমআইটি) দ্বারা প্রতিষ্ঠা লাভ করে। একই সময়ে বাংলাদেশে এর কার্যক্রম শুরু হয় এবং ২০০৯ সালে এটি আনুষ্ঠানিকভাবে নিবন্ধিত হয়। বর্তমানে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩টি কমিটি দিয়ে সব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে। ভূমিকম্প সচেতনতা কর্মসূচি ছাড়াও হাউস অব ভলান্টিয়ার্সের বর্তমানে আরও ২টি কার্যক্রম চলমান।
কম্পিউটার ফর বাংলাদেশ কর্মসূচির লক্ষ্য হলো কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কম্পিউটার শিক্ষার ব্যাপারে আগ্রহ গড়ে তোলা এবং কম্পিউটার বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা দেওয়া। বর্তমানে এ কর্মসূচির আওতায় নিজেদের অর্থায়নে কুমিল্লায় ২টি এবং শেভরনের পৃষ্ঠপোষকতায় সিলেট ও মৌলভীবাজারে দুটি কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। বুক ফর বাংলাদেশ কর্মসূচির আওতায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে ব্যক্তিগত, প্রাতিষ্ঠানিক ও লাইব্রেরি থেকে সংগৃহীত প্রায় ১০ হাজার বই, গবেষণাপত্র ও সাময়িকী বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ মিলিয়ে ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এর পাঠাগারে পেঁৗছে দেওয়া হয়েছে। যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের জ্ঞানভাণ্ডার সমৃদ্ধ করার সুযোগ পাচ্ছে। হ