সময় থাকুক হাতের মুঠোয়

প্রকাশ: ২১ অক্টোবর ২০১৯      

সায়মা আফরীন সোহা

ঘড়ির কাঁটা আর ক্যালেন্ডারের পাতার সঙ্গে তাল মেলাতে পারছেন না আপনি। সারাক্ষণ সময়ের সঙ্গে ঘোড়দৌড়ে হাঁপিয়ে উঠছেন। কিন্তু জানেন কি, একটুখানি সময় ব্যবস্থাপনায় গুছিয়ে কাজ করতে পারবেন আপনি



সময় নেই। দম ফেলার অবকাশ নেই। মুখে মুখে এখন এমন কথা-ই। কর্মক্ষেত্র-সন্তান দেখাশোনা-বাসার কাজ। হাঁপিয়ে উঠছেন নগরের মানুষ। গৃহিণীরা সারাদিন ঘর ব্যবস্থাপনায় থাকলেও তারা কুলিয়ে উঠতে পারেন না ঘড়ির কাঁটার সঙ্গে। কেন এই সময়ের সঙ্গে পেরে না ওঠা- প্রশ্নের উত্তর মেলে না অনেক সময়। কিন্তু জানেন কি, একটু সুন্দর ব্যবস্থাপনা,পরিকল্পনা সময়কে আপনার হাতের মুঠোয় এনে দেবে?

পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ

যে কাজ আপনার সারাদিনের, তার একটি পরিকল্পনা করে ফেলুন। দরকার হলে লিখে ফেলুন তা একটি কাগজে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেই কাজগুলো করতে হবে। আপনার কার্যতালিকার সব কাজ করার কোনো প্রয়োজন নেই। জরুরি প্রয়োজনভিত্তিক কাজগুলো করার দিকে মনোযোগ দিন। এটি মনে রাখবেন, 'জরুরি কাজ' এবং 'গুরুত্বপূর্ণ কাজ' দুটি ধারণার মধ্যে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে।

একসঙ্গে অনেক কাজ নয়

একই সঙ্গে একাধিক কাজ কখনোই আপনার কাজকে সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে না। সময়কে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে হলে আপনার উচিত একটি কাজ সম্পন্নের পর অন্য কাজ সময়মতো সম্পন্ন করা।

সময় নষ্ট নয়

আপনার কাজ সম্পন্ন করার জন্য নির্দিষ্ট দিন, তারিখ ও সময় নির্ধারণ করে নিন। কখন, কবে কোন কাজটি করবেন, তা আগে থেকেই পরিকল্পনা করে রাখুন। অন্য কাউকে তাদের কাজ দ্বারা আপনার সময়কে পূর্ণ করার সুযোগ দেবেন না। আপনার নিজের কাজের পরিকল্পনা রাখুন এবং নিজের সময়কে পূর্ণভাবে কাজে লাগান।

প্রয়োজন বিরতি

যদি আপনি ক্লান্ত হয়ে পড়েন, তবে কখনোই দরকারি কাজ ঠিকমতো সম্পন্ন করতে পারবেন না। এটি আপনার কাজের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে। সুতরাং কাজের মাঝে একটি নির্দিষ্ট সময় পরপর বিরতি নিন এবং এই বিরতির সময় কম্পিউটারে যে কোনো কাজ থেকে বিরত থাকা নিশ্চিত করুন।

ভাগ করে দিন কাজ

কাউকে কোনো কাজ অর্পণে লজ্জিত হবেন না। যদি কেউ দ্রুত এবং দক্ষতার সঙ্গে কোনো কাজ করতে সক্ষম হয়, তবে তার ওপর আপনার কাজটি অর্পণ করুন। এর ফলে আপনার সময় বাঁচবে এবং সময়কে আপনি পূর্ণভাবে কাজে লাগানোর সুযোগ পাবেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কম সময়

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাটানো সময়কে সীমিত করুন। আপনার অনেক সময় বেঁচে যাবে।

না বলতে শেখা

কোনো কিছুতে না বলতে পারার ক্ষমতা সহজ কোনো কাজ নয়। কিন্তু আপনার সময় ব্যবস্থাপনার জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একাধিক বিষয়ে ব্যস্ততা মূল কাজ থেকে আপনার মনোযোগের বিঘ্ন ঘটাতে পারে। তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত, আপনার সীমাবদ্ধ সময়কে কীভাবে কাজে লাগাবেন। া