বৈদেশিক লেনদেনে উদ্বৃত্ত বেড়েছে

প্রকাশ: ১১ মে ২০১৬      

বিশেষ প্রতিনিধি

বিদেশের সঙ্গে লেনদেনে বাংলাদেশের অনুকূলে উদ্বৃত্ত বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) বাংলাদেশের সামগ্রিক ভারসাম্যে ৩৫৩ কোটি ডলারের উদ্বৃত্ত রয়েছে। আগের মাস ফেব্রুয়ারি শেষে যা ছিল ৩১৫ কোটি ডলার। আর গত অর্থবছরের ৯ মাসে ছিল ২৮৯ কোটি ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংক প্রকাশিত সর্বশেষ লেনদেনের ভারসাম্য বিষয়ক প্রতিবেদনের এ পরিসংখ্যান দেওয়া হয়েছে।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি আলোচ্য ৯ মাসে কমেছে। বেড়েছে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ বা এফডিআই। রেমিট্যান্স কিছুটা কমলেও রফতানি খাত তুলনামূলক শক্তিশালী থাকা ও আমদানি ব্যয় পরিমিত থাকার কারণে বাংলাদশের চলতি হিসাবে উদ্বৃত্ত বেড়েছে। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেল ও অন্যান্য পণ্যের মূল্য কম থাকায় আমদানির জন্য কম ব্যয় হচ্ছে। এটিই লেনদেনের ভারসাম্যের স্বস্তিদায়ক অবস্থার মূল কারণ বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়কালে এফওবি (পরিবহন এবং জাহাজীকরণ ব্যয় ছাড়া) ভিত্তিতে আমদানি ব্যয় হয়েছে ২ হাজার ৮৯৯ কোটি ডলার।
গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি। রফতানি আয় হয়েছে ২ হাজার ৪৩৫ কোটি ডলার। রফতানি আয় বেড়েছে ৭ দশমিক ৯৬ শতাংশ। আমদানি ও রফতানি পার্থক্য অর্থাৎ বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪৬৪ কোটি ডলার। গত অর্থবছরের (২০১৪-১৫ ) একই সময়ে বাণিজ্য ঘাটতি ছিল ৪৬৭ কোটি ডলার।
বেড়েছে বিদেশি বিনিয়োগ :চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে দেশে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আগের অর্থবছরের তুুলনায় ২১ দশমিক ৫৪ শতাংশ বেড়েছে। তবে এ সময়ে পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ হারে কমেছে। জুলাই থেকে মার্চ পর্যন্ত বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে ১৬৩ কোটি ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ১৩৪ কোটি ডলার। এ সময়ে পোর্টফলিও বা পুঁজিবাজারে নিট বিনিয়োগ হয়েছে মাত্র ৫ কোটি ৫২ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে পোর্টফলিও বিনিয়োগ ছিল ৩৬ কোটি ডলার।