সফল অস্ত্রোপচারের পর রোগীটিকে বাঁচানো যাবে তো?

প্রকাশ: ১৮ মে ২০১৪      

গওহার নঈম ওয়ারা

ব্রিটিশরা রেল, বরফ, চা, জেলখানা প্রভৃতি সভ্যতার নিদর্শন আমাদের উপহার দেওয়ার পাশাপাশি জন্ম আর মৃত্যুর হিসাব রাখার জন্য একটা আইনও উপহার দেয় ১৮৭৩ সালে। সব আইনের সঙ্গে সঙ্গে তার বিধিও জারি করতে হয়। ব্রিটিশরা এসব ব্যাপারে খুবই কেতাদুরস্ত। আইন পাস করে কুম্ভকর্ণের নিদ্রায় যাওয়া দূরে থাক, ছোটখাটো একটা হাই নেওয়ারও ফুরসত দেয় না। তবে আমাদের বেলায় সব সময় বিধি বাম। আইন করতে দাতা কর্ণ আর বিধির বেলায় করুণের ধন।
ব্রিটিশদের আইনের খোলনালচে পাল্টে যুগোপযোগী করা হয় ২০০৪ সালে। উদ্দেশ্য জন্ম নিবন্ধন প্রক্রিয়াটাকে সৎ , সহজ ও নিরাপদ করা। এ দেশের প্রায় সব স্কুল পাস ভদ্রলোকের বয়স নিয়ে ভেজাল আছে। বয়স জিজ্ঞেস করলেই প্রশ্ন করে, উত্তর দেয় না। যেমন আলু-পেঁয়াজের দাম জানতে চাইলে বিক্রেতা পাল্টা প্রশ্ন করেন_ নেবেন কতটুকু। বেশি নিলে এক রকম দাম, কম নিলে অন্য ব্যবস্থা। জন্ম তারিখ জানতে চাইলে পাস করা মানুষ তেমনিভাবে পাইকারিটা বলবে না, খুচরা দিয়ে কাজ সারবে।
সার্টিফিকেটের, না আসল_ কোনটা বলবে। জন্ম আষাঢ়-শ্রাবণ যে মাসেই হোক, ক্লাস নাইনে বোর্ড রেজিস্ট্রেশনের সময় ক্লাসটিচার (কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষক) ছাত্রের মেধা, শরীরের গড়ন, বাপের পেশা, সামাজিক প্রতিপত্তি ইত্যাদি বিবেচনায় জন্ম সন ঠিক করে দিতেন। তবে মাসের ক্ষেত্রে মাঘ মাস অর্থাৎ জানুয়ারি তাদের খুবই পছন্দের ছিল। সেসব কারণে এ দেশের বড় একটা জনগোষ্ঠীর কাগজে-কলমে জন্ম জানুয়ারি মাসে। প্রায় পাইকারি হারেই তাই।
এসব অনাচার দূর করে সবার জন্য এক নিয়মের স্বচ্ছ ও ন্যায়সঙ্গত ব্যবস্থা চালুর লক্ষ্যে ২০০৪ সালে জন্ম নিবন্ধন আইন ও ২০০৬-এর বিধি প্রণয়ন করা হয়। ২০১০ সালে হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন পদ্ধতির বদলে ক্রমশ অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের কাজ শুরু হয়। বিধিমালা জারি হওয়ায় এবং স্কুলে ভর্তি হওয়ার সময় জন্ম নিবন্ধনের সনদ প্রদর্শন বাধ্যতামূলক করায় চারদিকে বেশ সাজ সাজ রব পড়ে যায়। কাজ বেড়ে যায় ইউনিয়ন সেবা কেন্দ্রের।
অনলাইন জন্ম নিবন্ধন করলে সেটা আর পরিবর্তন করা যায় না। ফলে বয়স কমানো বা বাড়ানোর কলমটি যখন খুশি তখন আর নাড়ানো যাবে না। তবে একেবারেই যে যাবে না বা যাচ্ছে না তা কিন্তু নয়। সুজলা-সুফলা এই দেশে যেমন গাছার চেয়ে আগাছা বাড়ে দ্রুত তেমনি বুদ্ধির চেয়ে কুবুদ্ধি গজায় চটজলদি।
১৮ বছর না হলে মেয়ের বিয়ে দেওয়া আইনসিদ্ধ নয়। অতএব ১৫ বছরের মেয়ের বয়স বাড়িয়ে আরেকটা জন্ম নিবন্ধন সনদ কীভাবে বের করা যায়? মেয়ে পালিয়ে গেছে তার প্রেমিকের সঙ্গে। তার আঠারো বছর হওয়ার পর স্বামী বাছাই করা তার হক। সে সেটা জেনেই আঠারো বছর পর পালিয়েছে। দাম্ভিক পিতার কাছে এটা ইজ্জতের ব্যাপার। কাজেই তার বয়স কম দেখিয়ে আরেকটা জন্ম সনদ না আনলে ছেলে পক্ষকে কাবু করা যাবে না, কাজেই আরেকটা সনদ দরকার।
আবার শিক্ষা নীতির ভুল ব্যাখ্যা করে বয়স ছয় না পেরোলে ক্লাস ওয়ানে বা প্রথম শ্রেণীতে কাউকে ভর্তি করা হচ্ছে না। অর্থাৎ পাঁচ বছর এগারো মাস হলেও ভর্তি হবে না_ অসহায় বাবা-মা তখন ছয় বছরের কিছু বেশি দেখিয়ে ভর্তি কাজ সেরে ফেলছে। তবে বাবা-মার সঙ্গে শিশুটি আবার হোঁচট খাচ্ছে এসএসসির দ্বারপ্রান্তে এসে। পরিপত্রে এসএসসির নূ্যনতম বয়স বলা হয়েছে ১৫। এক বছর বাড়িয়ে প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি হওয়া শিশুটির বাবা-মার জন্ম সংশোধনের সুযোগ নেওয়ার ইচ্ছা হতেই পারে। অতএব সেও এসে দাঁড়াচ্ছে আরেকটা সংশোধিত সার্টিফিকেটের আবেদনের লম্বা লাইনে।
বিদেশের শ্রমবাজারে যোগ দিতে ১৮ বছরের ছেলেকে ২৪ বছর বানিয়ে রফতানি করা হচ্ছে, আবার গৃহকর্মীর কাজে ৪০ বছরের সকিনা যাচ্ছে ২৮ বছরের কর্মী হয়ে। তাদের সবারই এক সময় প্রয়োজন পড়ছে সংশোধিত নতুন একটা জন্ম নিবন্ধন সনদ। কীভাবে পাওয়া যাবে সেটা? পথ বের করে ফেলতে সময় লাগছে না। ঠিকানা পরিবর্তন, বাবা-মার নাম কিছুটা পরিবর্তন, রহমানকে রেহমান করলেই লেঠা চুকে যাচ্ছে।
সব ফুটা বা ছেঁড়ার সেলাই বা তালি চলে না। তবে এই ছ্যাদাগুলো বন্ধের ব্যবস্থা নিতে হবে। কী ব্যবস্থা নিতে হবে সে জবাব খোঁজার আগে পরিপত্র জারি আর ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে সাবধান হতে হবে। যেখানে ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে সেখানে ত্বরিত ব্যবস্থা নিতে হবে। বলতে হবে, ছয় বছর না পেরোলেও যে কোনো শিশু এটা-এটা পারলে ক্লাস ওয়ানে ভর্তি হতে পারে। জন্ম নিবন্ধন জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যেই করতে হবে। যে কোনো পরিবর্তন যেন সহজ না হয়, সস্তা না হয়। মেশিন যেন আমাদের সঙ্গে মিশে চারশ' বিশ হয়ে না যায়, অন্যথায় বিষে নীল হয়ে যাবে দেশ।
স গবেষক

পরবর্তী খবর পড়ুন : সম্পর্কের সেতুবন্ধ

সাতক্ষীরায় ৭৪ জন গ্রেফতার

সাতক্ষীরায় ৭৪ জন গ্রেফতার

সাতক্ষীরা জেলাব্যাপী বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৭৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার ...

ড. কামাল হোসেনের দুঃখ প্রকাশ

ড. কামাল হোসেনের দুঃখ প্রকাশ

রাজধানীর মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে সাংবাদিকদের সঙ্গে শুক্রবারের ঘটনার জন্য ...

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি অস্ট্রেলিয়ার

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি অস্ট্রেলিয়ার

অস্ট্রেলিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে পশ্চিম জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত ...

নজরুলকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রের শুটিং চুরুলিয়ায়

নজরুলকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রের শুটিং চুরুলিয়ায়

পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের বড় পোস্ট অফিসের ঠিক উল্টোদিকের ফুটপাত। চারপাশে ব্যস্ত ...

ড. কামালের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

ড. কামালের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের ...

দলগুলোকেই অঙ্গীকার করতে হবে

দলগুলোকেই অঙ্গীকার করতে হবে

নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে সব সময়ই অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের ...

এভাবে চললে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে

এভাবে চললে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে

সবাই চাচ্ছে সহিংসতা বন্ধ হোক। এভাবে সহিংসতা হলে পুরো নির্বাচনী ...

ধানের শীষে একাকার ঐক্যফ্রন্ট-জামায়াত

ধানের শীষে একাকার ঐক্যফ্রন্ট-জামায়াত

শরিক হিসেবে জামায়াতে ইসলামী না থাকলেও একসঙ্গে কাঁধ মিলিয়েই ধানের ...