চিঠিপত্র

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০১৮      

অবৈধভাবে জমি ভোগদখল
বিত্তবান শ্রেণির কিছু অসাধু লোক দরিদ্র মানুষের জায়গা-জমি অসৎ উপায়ে ভোগদখল করছে। চোখে দেখা সত্ত্বেও এদের এই অসদাচরণের প্রতিবাদের ভাষা ক'জনেরই-বা থাকে? ভুল বুঝিয়ে কুচক্রী মহল জায়গা-জমি ছিনিয়ে আনছে। কেউ কেউ কম শিক্ষিত মুরব্বিদের ভুল বুঝিয়ে তাদের কাছ থেকে ফাঁকা দলিল বা কাগজে টিপসই এনে পরে তাতে প্রয়োজনীয় লেখা বসিয়ে, জায়গা দখলের অপচেষ্টা করছে। অসহায় মানুষ সরকারি জায়গায় একটু ঠাঁই নিলে মামলা-মোকদ্দমা হয়, অথচ ধনবানরা সরকারি জমি অবৈধ উপায়ে ভোগদখল করলে কিছুই হয় না। প্রশাসনও এখানে নীরব ভূমিকা পালন করছে। ভূমিদস্যুরা মধ্যবিত্ত এবং অসহায় শ্রেণিকে ঠকিয়ে জায়গা ভোগদখল করে তাদেরকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। প্রশাসনের কাছে

নালিশ দিলেও তা বিত্তবানদের অর্থের জোরে ভেস্তে যাচ্ছে। ভুক্তভোগীরা প্রাণ বাঁচানোর দায়ে শেষ সম্বলটুকু এই ভূমিদস্যুদের কাছে বিলিয়ে দিচ্ছে। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করছি।

তাইফুর রহমান মুন্না, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট

আর কত প্রাণ অকালে ঝরে যাবে?
ইদানীং সড়ক দুর্ঘটনা দৈনন্দিন জীবনের নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনগণের মনে একটি প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে- এই সড়ক দুর্ঘটনা আর কত দিন চলবে? বেপরোয়া গাড়ি চালানো, অপরিপকস্ফ ড্রাইভার, ওভারটেকিং, ফিটনেসহীন গাড়ি ছাড়াও রয়েছে বাসচালক-হেলপারদের ইয়াবা আসক্তি, লঘু শাস্তি, জনসাধারণের অসতর্কতা। আর কয়েকদিন পর পবিত্র ঈদ। সময় থাকতেই দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সঠিক পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। আশা করি, জনসাধারণের কথা চিন্তা করে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে যানবাহনের মালিকপক্ষ, সরকার ও সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষ সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণ করবে।

নাজমুন আরা শামীমা, শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সারা বছর অটুট থাক
ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি। ঈদ ব্যতীত অন্য সময়ে কেন জানি এই ভালোবাসা ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে যথেষ্ট ঘাটতি দেখা যায়। বিভিন্ন দ্বন্দ্বের সূত্র ধরে অনেক সময় খুবই অপ্রীতিকর এমনকি খুনোখুনির ঘটনাও ঘটে। এবারের ঈদে পরস্পর যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি হবে, তা যেন সারা বছর অটুট থাকে, এই প্রার্থনাই করি।


মো. জাহানুর ইসলাম, ঢাকা