হাসপাতালে জবাবদিহি নিশ্চিত হোক

জনস্বাস্থ্য

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ড. জেবউননেছা

ক'দিন আগে বাসার গৃহপরিচারিকার হাতে দেখি এক প্যাকেট ওষুধ। জানতে চাইলে সে বলছে, গ্রামের এক ফার্মেসির দোকানের ডাক্তার তাকে ওষুধটি সেবন করতে বলেছে। আমি সে ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্রটিতে দেখি একটি সাদা কাগজে লেখা, সঙ্গে এক প্যাথলজির নামে রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট। সেখানে সব রক্তের মাত্রা একই রকম। বিষয়টি সন্দেহজনক মনে হলে আমি তার বাড়ির মানুষের কাছ থেকে সেই চিকিৎসকের যোগাযোগের নম্বর সংগ্রহ করি এবং সেই ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলি। ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি, সে নিজেকে পল্লী চিকিৎসক বলে দাবি করছে এবং তার ডাক্তারির কোনো ডিগ্রি নেই। কিন্তু সে বছরের পর বছর নিজের নামের পাশে ডাক্তার ব্যবহার করছে। বিষয়টি জানার পর সে আমার কাছে ক্ষমা চেয়ে বলছে, সে আর কোনোদিন প্রয়োজনের অতিরিক্ত ওষুধ বিক্রি করবে না এবং নিজের নামের সঙ্গে ডাক্তার শব্দটি ব্যবহার করবে না। তার গ্রামের লোকের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি, তার কাছে কেউ কোনো সমস্যার কথা নিয়ে গেলে মাত্রাতিরিক্ত টাকার ওষুধ বিক্রি করে। যেমন আমার গৃহপরিচারিকার কাছ থেকে এক হাজার ৩০০ টাকার ওষুধ বিক্রি করেছে। এ রকম গ্রামের সহজ-সরল মানুষের সঙ্গে সে প্রতারণা করছে বছরের পর বছর ধরে। কথাটি শুনে নিজের বিবেকবোধের কাছে তাড়িত হতে থাকল। ঘটনাটি ঘটেছে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা থানায়। বিষয়টি নিয়ে সংশ্নিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক এবং সিভিল সার্জনের সঙ্গে কথা বলি। জেলা প্রশাসক, কলমাকান্দা উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য। তারা সেখানে ফার্মেসি পরিদর্শনে যান। ওখানে গিয়ে মোবাইল কোর্ট প্র্যাকটিস ও ভোক্তা অধিকার আইনে মামলা করা হয়। জরিমানাস্বরূপ ২০ হাজার টাকা ও সেই ভুয়া প্যাথলজিকে ভেঙে-গুঁড়িয়ে ফেলা হয়।

৩৭৬.২২ কিলোমিটারের কলমাকান্দায় রয়েছে একটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এখানেই বেশিরভাগ মানুষ চিকিৎসা গ্রহণ করে। এই এলাকার বেশিরভাগ মানুষই বড় রকমের চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দ্বারস্থ হয়। এ ছাড়া সদরে রয়েছে কিছু বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্র। তবু যদি যোগাযোগ ব্যবস্থাকে বিশ্নেষণ করা হয় দেখা যায়, কলমাকান্দায় পর্যাপ্ত পরিমাণ পাকা রাস্তার যথেষ্ট অভাব। পর্যাপ্ত ব্রিজ-কালভার্ট নেই। উপজেলা শহর থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে রয়েছে অটোরিকশা ও সাধারণ রিকশা। কলমাকান্দা থেকে ময়মনসিংহ জেলার দূরত্ব ৬৯.১ কিলোমিটার। কলমাকান্দায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ডার্মাটোলজিস্ট, গাইনি, সার্জারি, মেডিসিন, অ্যানেস্থেসিয়া ও ডেন্টাল সার্জন বিশেষজ্ঞের পদ থাকলেও কোনো বিশেষজ্ঞ নেই। শুধু একজন কার্ডিওলজিস্ট রয়েছেন এবং এই বিভাগে একটি ইসিজি মেশিন ছাড়া কিছু নেই। একটি এক্স-রে মেশিন যা-ও ছিল, গত ৮-৫-২০১১ সাল থেকে অকেজো। এখন পর্যন্ত নতুন কোনো মেশিন আসেনি। এ ছাড়া বেশ কয়েক বছর ধরে দুটি অ্যাম্বুলেন্সও সচল নয়। ৫০ শয্যাবিশিষ্ট এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীও পর্যাপ্ত সংখ্যায় নেই। পিয়ন চারজন থাকার কথা থাকলেও আছে একজন। ওয়ার্ডবয় তিনজন থাকার কথা থাকলেও আছে একজন, সিকিউরিটি গার্ড থাকার কথা একজন, বাবুর্চি দু'জনের একজন নেই, সুইপার পাঁচজন থাকার কথা থাকলেও আছে তিনজন। সেখান থেকে একজনকে বাবুর্চি না থাকার কারণে তাকে রান্নার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। দু'জন আয়া থাকার কথা থাকলেও নেই। একজন মালী আছে, তাও প্রেষণে। বেশ কয়েক বছর ধরে গাইনি বিশেষজ্ঞ না থাকায় অত্র এলাকায় গর্ভবতী নারীদের সেবা প্রাথমিক পর্যায়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার দিয়ে থাকেন। কিন্তু অপারেশনের মাধ্যমে বাচ্চা প্রসব করার জন্য ডাক্তার নেই। অথচ পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৭ সালে এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণের জন্য বহির্বিভাগের রোগী এসেছেন ২৫ হাজার ৪০৪ জন। জরুরি বিভাগে এসেছেন ৮ হাজার ১০৭ জন। ফোঁড়া কাটা, ছোটখাটো কাটা-ছেঁড়ার জন্য রোগী এসেছেন ৭৫৭ জন। ২ লাখ ৭১ হাজার ৯১২ জনের অবস্থান এই কলমাকান্দা উপজেলায়। এখানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এমন দুরবস্থায় গ্রামের মানুষ তখন স্থানীয় ফার্মেসি বা পল্লী চিকিৎসক নামধারী ব্যক্তির শরণাপন্ন হয়। তখন এই ফার্মেসির মালিকরা পুঁজিবাদীদের মতো অর্থ বাড়াতে প্রয়োজনাতিরিক্ত ওষুধ বিক্রি করেন। লামিয়া ফার্মেসির ভুয়া চিকিৎসক শেখ সাদিক নিজেই স্বীকার করেছেন, তিনি আর কোনোদিন প্রয়োজনের অতিরিক্ত ওষুধ বিক্রি করবেন না এবং নিজের নামের সঙ্গে ডাক্তার ব্যবহার করবেন না।

আরেক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, দেশের মানুষের জন্য ৫৭ হাজার রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের সিংহভাগই থাকেন শহরে। যেসব চিকিৎসক মফস্বলে দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে যান, তারা বেশিদিন থাকতে চান না। আমার পরিচিত একজন চিকিৎসককে দেখেছি তিনি মফস্বলে পোস্টিং পেয়েছেন, কিন্তু সেখানে সব সময় থাকেন না। তাকে জিজ্ঞেস করার পর তিনি বলেছেন, তিনি যে বিভাগের চিকিৎসক সে বিভাগে পর্যাপ্ত মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও ডাক্তার নেই। তাই রোগীরা এলেও যন্ত্রপাতির অভাবে তাদের ঢাকা রেফার করা হয়। উপজেলাপ্রতি চার থেকে পাঁচ লাখ লোকের জন্য চিকিৎসকের সংখ্যা খুবই নগণ্য। যে কারণে গ্রামের মানুষ পল্লী চিকিৎসকদের ওপর আস্থা রাখতেই পছন্দ করে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত প্রতিপাদ্য- 'স্বাস্থ্য সুরক্ষা :সবার জন্য, সর্বত্র'। এই স্লোগান সামনে রেখে বাংলাদেশও স্বাস্থ্যসেবার দিকে এগিয়ে যাবে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সরকার স্বাস্থ্যসেবার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যা প্রশংসার দাবি রাখে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোয় মুঠোফোনে সেবা প্রদান, স্বাস্থ্য আপা, ১৩ হাজার ৬৩৬টি কমিউনিটি ক্লিনিক, মাতৃমৃত্যু হ্রাস পেয়ে জীবিত জন্মে-১৭৬-এ দাঁড়িয়েছে। আইন, বিধি, নীতিমালা প্রণয়ন, বিদ্যমান আইনের সংস্কার, পরিবার পরিকল্পনা সামগ্রীর নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ, চট্টগ্রাম ও রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১৬ প্রণীত হয়েছে এবং বিভিন্ন জেলায় নতুন সরকারি মেডিকেল চালু করা হয়েছে এবং আরও অনেক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার। দেশে ৩ হাজার ৫৭৫টি হাসপাতাল রয়েছে। সেসব হাসপাতালের ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে জবাবদিহি বাড়ানো দরকার। রোগীদের জন্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা, উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা, সঠিক পরিবীক্ষণের ব্যবস্থা করা খুব প্রয়োজন। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, দেশে সরকারি-বেসরকারি ১০ লাখের বেশি পল্লী চিকিৎসক রয়েছেন। এসব পল্লী চিকিৎসককে নন-গ্র্যাজুয়েট ডাক্তার হিসেবে স্বীকৃতি, প্রতিবেশী দেশের মতো একাডেমিক বোর্ড গঠন, উন্নত প্রশিক্ষণ দিয়ে সনদ দেওয়া এবং পল্লী চিকিৎসক নীতিমালা যথাযথভাবে তৈরি করে তার বাস্তবায়ন করা এখন সময়ের দাবি। জনস্বাস্থ্য রক্ষায় জবাবদিহি বৃদ্ধি করা, আমলাতান্ত্রিক জটিলতার অবসান, প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনায় সমন্বয় সাধন, মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও ওষুধপত্রের সরবরাহ বৃদ্ধি, সেই সঙ্গে যেসব ভুয়া চিকিৎসক, ভুয়া ক্লিনিক ও ভুয়া হাসপাতাল রয়েছে সেগুলোকে চিহ্নিত করে আইনের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান করলে সমাজের স্বাস্থ্য ও জনস্বাস্থ্য দুটোই সুস্থ থাকবে বলে আপাতদৃষ্টিতে মনে হয়। সুন্দর-সুস্থ জাতি গঠনে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় বিকল্প নেই।

সহযোগী অধ্যাপক, লোকপ্রশাসন বিভাগ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
asiranjar@yahoo.com

সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ১৯ আসন নিয়ে পুলিশের ...

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

দূরে মাইকে কোথাও বেজে চলেছে বিজয় দিবসে কচিকাঁচার কণ্ঠে আমার ...

সরব বাবলা, নীরব সালাহ উদ্দিন

সরব বাবলা, নীরব সালাহ উদ্দিন

ঢাকা-৪ আসনে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যাপকভাবে এগিয়ে আছেন মহাজোটভুক্ত জাতীয় পার্টির ...

২৭ লাখ নারী ভোটার নিয়ে বিশেষ কৌশল ৩২

২৭ লাখ নারী ভোটার নিয়ে বিশেষ কৌশল ৩২

চট্টগ্রামের বন্দর-পতেঙ্গা আসনে ৫ লাখ ৮ হাজার ভোটারের প্রায় অর্ধেকই ...

রক্তিম অলরেডসে রং চটা ম্যানইউ

রক্তিম অলরেডসে রং চটা ম্যানইউ

কোন দলের রং বেশি লাল। রেড ডেভিলস নাকি অল রেডসদের। ...

আ স ম রবের নির্বাচনী অফিসে তালা, ভাঙচুরের অভিযোগ

আ স ম রবের নির্বাচনী অফিসে তালা, ভাঙচুরের অভিযোগ

লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার বড়খেরী ও চরগাজী ইউনিয়নে আ স ম ...

শিক্ষামন্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন সমশের

শিক্ষামন্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন সমশের

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনে বিকল্পধারা বাংলাদেশ মনোনীত ...

ড. কামাল নীতিহীন: তোফায়েল

ড. কামাল নীতিহীন: তোফায়েল

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ...