হাজারো বীণার সুর

প্রকাশ: ১২ জানুয়ারি ২০১৯     আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০১৯      

আহমেদ সুমন

হাজারো বীণার সুর

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

আজ ১২ জানুয়ারি ২০১৯। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ২০০১ সাল থেকে এ দিনটিকে কর্তৃপক্ষ 'জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস' হিসেবে পালন করছে। ১৯৭০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে যোগদান করেন বিশিষ্ট রসায়নবিদ অধ্যাপক ড. মফিজউদ্দিন আহমদ। ১৯৭১ সালের ১২ জানুয়ারি পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রিয়ার অ্যাডমিরাল এস এম আহসান আনুষ্ঠানিকভাবে 'জাহাঙ্গীরনগর মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়'-এর উদ্বোধন করেন। তবে এর আগেই ৪ জানুয়ারি অর্থনীতি, ভূগোল, গণিত ও পরিসংখ্যান বিভাগে ক্লাস শুরু হয়। প্রথম ব্যাচে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ছিল ১৫০ জন। স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট পাস করা হয়। এই অ্যাক্টে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম রাখা হয় 'জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়'। প্রায় ৭শ' একর ভূমির ওপর প্রতিষ্ঠিত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ৫টি অনুষদের অধীনে ৩৩টি বিভাগ চালু আছে। এ ছাড়া ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি (আইআইটি), ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (আইবিএ-জেইউ), বঙ্গবন্ধু তুলনামূলক সাহিত্য ও সংস্কৃতি ইনস্টিটিউট, ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেন্সিং ও ভাষা শিক্ষা কেন্দ্র রয়েছে। আবাসিক হল ১৬টি। প্রাকৃতিক জলাধার ও অতিথি পাখির অভয়ারণ্য প্রতিষ্ঠায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অনন্য। পাখিমেলা ও প্রজাপতি মেলা আয়োজনে এ প্রতিষ্ঠানের কীর্তি দেশজুড়ে সমাদৃত। প্রাণিবিদ্যা বিভাগের আয়োজনে বিপন্নপ্রায় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র এবং প্রজাপতি পার্ক স্থাপন করে জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান দেশ-বিদেশে প্রশংসা লাভ করেছে। বিপন্নপ্রায় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রের পরিচালক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মোস্তফা ফিরোজ পরিবেশের প্রতি অবদানের জন্য জাতীয় পরিবেশ পদক অর্জন করেছেন। প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অপর অধ্যাপক ড. মনোয়ার হোসেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রজাপতি সংগ্রহ করে সেসব প্রজাপতির নামকরণ করেছেন, যা অনন্য। ১৯৯৮ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা লাঠি হাতে যৌন নিপীড়নে অভিযুক্ত ছাত্রদের ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করার অনন্য নজির স্থাপন করেছে। হাইকোর্টের নির্দেশনার আলোকে দেশের মধ্যে প্রথম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েই 'যৌন নিপীড়নবিরোধী অভিযোগ সেল' গঠিত হয়েছে। বাংলাদেশে পুতুল নাচের ইতিহাস, ঐতিহ্য নিয়ে গবেষণার জন্য পুতুল নাট্য গবেষণা কেন্দ্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম খোলা হয়েছে। বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু-কিশোরদের জন্য আনন্দশালা নামে একটি স্কুল বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েই প্রথম খোলা হয়েছে। বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম দেশের সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে প্রথম নারী উপাচার্য। এখানে বিশ্বমানের গবেষণা প্রতিষ্ঠান 'ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র' নির্মাণের মাধ্যমে বিজ্ঞান চর্চার অনন্য নজির স্থাপন করা হয়েছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের 'মুক্তমঞ্চ' বাংলাদেশ তো বটেই, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে প্রথম, যা উপাচার্য অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকীর সময় তৈরি করা হয়। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে দেশের সাংস্কৃতিক রাজধানী বলা হয়। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের নেত্রী প্রীতিলতার নামে হলের নামকরণ, ভাষা আন্দোলনের স্মারক ভাস্কর্য 'অমর একুশ', মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য 'সংশপ্তক', ভাষা শহীদ সালাম, বরকত, রফিক ও জব্বারের নামে, জাতির পিতার নামে 'বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান', ঘাতক-দালাল নির্মূল আন্দোলনের পুরোধা জাহানারা ইমামের নামে, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নামে, জাতির পিতার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে, নারী জাগরণের অন্যতম পথিকৃৎ কবি সুফিয়া কামাল নামে, বঙ্গবন্ধুর প্রেরণাদানকারী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব নামে হলের নামকরণের মধ্য দিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য ফুটে উঠেছে।

প্রাক্তন শিক্ষার্থী, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়