চিঠিপত্র

প্রকাশ: ১০ আগস্ট ২০১৯      

কলাগাছী-চুকনগর সড়ক বেহাল

যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার সুফলাকাঠী ইউনিয়ন থেকে চুকনগর ও খুলনা যাওয়ার (আট কিলোমিটার) কলাগাছী-চুকনগর সড়কটির বেহাল দশা। সড়কটির পিচ-খোয়া উঠে গেছে অনেক আগেই, তৈরি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। সড়কটি সংস্কার না করায় প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে মানুষ। এতে সড়কটিতে প্রতিদিনই ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। নোয়াপাড়া-চুকনগরগামী সড়কের আশপাশে কয়েকটি বড় বাজার এবং বাণিজ্য কেন্দ্র থাকায় এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যাত্রীবাহী বাস, টেম্পো, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, পিকআপভ্যান, ইজিবাইক, অটোরিকশাসহ নানা ধরনের যানবাহন চলাচল করে। যশোরের পূর্বাঞ্চলের মানুষকে বিভাগীয় শহর খুলনা যেতে আট কিলোমিটার এবং চুকনগর থেকে এ অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক শহর নওয়াপাড়ায় যেতে ১০-১৫ কিলোমিটার দূরত্ব কমে যাওয়ায় এ সড়কটি খুবই ব্যস্ত থাকে। প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করলেও দীর্ঘ এক যুগ ধরে সড়কটির বেহাল দশা। এ অবস্থায় সড়কটি মেরামত করে এলাকাবাসীর কষ্ট লাঘবের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

মো. আবদুর রহমান
ইংরেজি ভাষা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণ জরুরি

বাংলাদেশের আটটি বিভাগীয় শহরের মধ্যে খুব বেশি পরিমাণে উন্নয়ন বৈষম্য বিদ্যমান। দুই-তিনটি শহরের তুলনায় অন্য শহরগুলো সব দিক থেকে অনেক পিছিয়ে। দেশের শিক্ষা, বাণিজ্য, চিকিৎসাসহ যাবতীয় কর্মকাণ্ডের সিংহভাগই ঢাকাকেন্দ্রিক। এতে ঢাকায় মানুষের সংখ্যা বাড়ছে এবং শহরটি বসবাসের অনুপযোগী হচ্ছে। অন্যপক্ষে, অন্য শহরগুলো উন্নয়নবঞ্চিত হচ্ছে। শহরগুলোয় তুলনামূলকভাবে বাড়ছে না শিক্ষা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অবকাঠামোগত উন্নয়নের ক্ষেত্রেও পিছিয়ে থাকছে ঢাকার বাইরের শহরগুলো। বিভাগীয় শহরগুলোকে কেন্দ্র করে দেশকে আটটি রাজ্যে বিকেন্দ্রীকরণ করা গেলে উন্নয়ন হবে বিভাগ বা রাজ্যভিত্তিক। এতে রাজধানী ঢাকা মুক্তি পেত নানা সমস্যা থেকে। বিকেন্দ্রীকরণ করা হলে দেশে বেকারত্বের হার কমে আসার পাশাপাশি অপরাধ প্রবণতাও কমে আসবে। বিকেন্দ্রীকরণ ছাড়া উন্নয়ন বৈষম্য কমানো কিংবা সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করা অসম্ভব।

শাবলু শাহাবউদ্দিন, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা