দূরপাল্লার যানবাহন চালু করুন

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে চলছে লকডাউন। মানুষের প্রয়োজনের কথা বিবেচনা করে সরকার ধীরে ধীরে লকডাউন শিথিল করলেও দূরপাল্লার যানবাহন চালু করেনি। যার ফলে ঈদের আগে বিপুল জমায়েত করে মানুষ বাড়ি ফিরেছে। এখন দূরপাল্লার যানবাহন চালু করা না হলে তারা একইভাবে কর্মস্থলে ফিরবে। এতে ভোগান্তি যেমন বাড়বে, অন্যদিকে বাড়বে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা। এ ছাড়া এক মাসেরও বেশি সময় ধরে দূরপাল্লার যানবাহনের কর্মচারীরা কর্মহীন হয়ে আছে। পরিবার নিয়ে চরম কষ্টে দিন কাটছে তাদের। সব দিক বিবেচনায় দূরপাল্লার যানবাহন চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।

আবদুল্লাহ আল মামুন
শিক্ষার্থী, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষা খাতে অনিশ্চয়তা দূর হোক

করোনার ছোবলে সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত দেশের শিক্ষা খাত। সরকারের সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী ২৩ মে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং ২৪ মে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার কথা থাকলেও চলমান বিধিনিষেধ বৃদ্ধির কারণে তা আর সম্ভব হচ্ছে না। ফলে লাখ লাখ শিক্ষার্থী দিন অতিবাহিত করছে অনিশ্চয়তা আর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দীর্ঘ সময় ধরে বন্ধ থাকায় সেশনজটের কবলে পড়েছে অনেকে। তারা যে নির্ধারিত সময়ে একাডেমিক পড়ালেখা সম্পন্ন করতে পারবে না, তা নিশ্চিত বলা যায়। আবার অনেক শিক্ষার্থী লেখাপড়া থেকে ঝরে পড়ছে। শিক্ষা খাতে সময়োপযোগী এবং যথাযথ পদক্ষেপ চাই।

ফজলে রাব্বি
শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

যৌতুক সামাজিক অভিশাপ

যৌতুকের জন্য নারী নির্যাতনের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। যৌতুকের কারণে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে নির্যাতিত হচ্ছে অনেক নারী। এসব নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যৌতুক প্রদান, গ্রহণ বা দাবি করলে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর এবং সর্বনিম্ন এক বছর কারাদণ্ড বা জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবে। কিন্তু আইন করে এখন পর্যন্ত এ সমস্যার সমাধান হয়িন। যৌতুক দেওয়া ও নেওয়া দুটোই শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এই অপরাধ থেকে উদ্ধার পেতে হলে শুধু সরকারি আইন, আদালত ও শাস্তি যথেষ্ট নয়। এ জন্য পারিবারিক ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

আল-আমিন আহমেদ
শিক্ষার্থী, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ

মন্তব্য করুন