ডেঙ্গু প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিন

করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যাও। ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তদের মধ্যে শিশুর সংখ্যা বেশি, এমনকি কয়েকজন শিশু মৃত্যুবরণও করেছে। ডেঙ্গুর প্রকোপ রাজধানী ঢাকাতেই বেশি, তবে অন্য জায়গাগুলোকে ডেঙ্গু-ঝুঁকিমুক্তও বলা যাবে না। তাই সবাইকে সচেতন থাকবে হবে। বাসাবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা ও যেখানে লার্ভা জন্মানোর আশঙ্কা রয়েছে সেখানে এডিসের লার্ভা নিধনে মশার ওষুধ ছিটাতে হবে। শিশুদের যত্নে তাদের শরীর ঢেকে ও মশারির ভেতরে রাখতে হবে। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসার পাশাপাশি ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার যথাযথ ব্যবস্থা রাখতে হবে। স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত কর্তৃপক্ষসহ সব নাগরিককে ডেঙ্গু রোধে ব্যবস্থা নিয়ে সচেতনতার সঙ্গে থাকতে হবে।

এম. নাজমুল হক চৌধুরী
শিক্ষার্থী, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি

সড়ক সংস্কার করুন

যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার অন্তর্গত একটি গ্রাম হরিহরনগর। এ গ্রামে প্রায় তিন হাজার মানুষের বাস। আশির দশকে এ গ্রামের রাস্তা ছিল চলাচলের অনুপোযোগী। ফসলি জমির ভেতর দিয়ে গ্রামের মানুষ চলাচল করত। ১৯৯৪ সালে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে গ্রামের রাস্তাটি সংস্কার করা হয়। এরপর দীর্ঘ ২৫ বছর অতিক্রান্ত হলেও তা আর সংস্কার করা হয়নি। বর্তমানে রাস্তার বিভিন্ন অংশে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার পাশ ঘেঁষে আবাদি জমি এবং ডোবা-নালা থাকায় অনেক স্থানে ভেঙে গেছে। এ ছাড়া বর্ষা মৌসুমে রাস্তার বিভিন্ন অংশ পিচ্ছিল হওয়ায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। এমতাবস্থায় গ্রামের মানুষের যাতায়াতের সুবিধায় রাস্তাটি সংস্কার করা জরুরি। হরিহরনগর গ্রামের যাতায়াতের প্রধান রাস্তাটি সংস্কারে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

মু'তাসিম বিলল্গাহ মাসুম
মনিরামপুর, যশোর

বৈষম্যের শিকার সাত কলেজ

করোনা সংক্রমণের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় লাখ লাখ শিক্ষার্থী সেশনজটে পড়েছে। সেশনজট কমাতে অটোপাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু অটোপাস পেয়েছে কেবল প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। অনার্স পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে এখন পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত আসেনি। যদিও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে পরীক্ষা নিয়েছে, কিন্তু সব প্রতিষ্ঠানে এমন পদ্ধতি বাস্তবায়ন হয়নি। বিশেষ করে ঢাবি অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা পড়েছেন চরম হতাশায়। তারা নিদারুণ বৈষম্যের শিকার। সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষা গ্রহণের দাবি জানিয়ে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে। কিন্তু কোনো অগ্রগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এ বিষয়ে উদ্যোগ নিতে সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সোহেল ইসলাম জাফর
শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

মন্তব্য করুন