চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে বাড়ছে বিতর্ক

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

আনন্দ প্রতিদিন প্রতিবেদক

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন [এফডিসি] এখন সরগরম। সিনেমার শুটিং না থাকলেও প্রতিদিনই বিভিন্ন তারকা আসছেন। কারণ, ২০১৯-২১ মেয়াদি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৫ অক্টোবর। ভোটগ্রহণের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বিতর্ক বাড়ছে শিল্পী সমিতির গত মেয়াদের কমিটির কর্মকা@ নিয়ে। তার মধ্যে অন্যতম সমিতির সদস্য যোগ-বিয়োগে অসচ্ছতা। শিল্পী সমিতির গত মেয়াদে নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ৬২৪ জন। পরে খসড়া থেকে বাদ পড়া ও নতুন মিলে প্রায় ১৮১ জনকে সহযোগী সদস্য করা হয়েছে, যারা এবার ভোট দিতে পারবেন না। তাদের মধ্যে পাঁচটি ছবিতে অভিনয় না করাতে অনেক নায়িকারও ভোটাধিকার খর্ব করা হয়েছে। আবার ১৯ জনকে করা হয়েছে নতুন ভোটার, যাদের অধিকাংশকে নিয়মের বাইরে গিয়েই সদস্য করা হয়েছে। যদিও এ বিতর্কের জবাব দিয়ে মিশা-জায়েদ বলেছেন, তারা নিয়মের বাইরে কিছুই করেননি।

২০১৭ সালের ৫ মে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান ক্ষমতায় আসার পর বেশ কিছু ইতিবাচক কাজ দিয়ে যেমন প্রশংসিত হয়েছেন। তবে মিশা-জায়েদ কমিটি জয়ী হওয়ার পর সংগঠনটির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রতি বছর একবার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও গত বছর তা হয়নি। গত ৪ অক্টোবর বিএফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাব মিলনায়তনে দুই বছরের সভা একসঙ্গে আয়োজন করা হয়। এই সভা নিয়েও ওঠে বিতর্ক। এখানে দুই বছরের আয়-ব্যয়সহ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নানা কার্যক্রম তুলে ধরা হলেও সে আয়-ব্যয় নিয়ে কমিটির গত মেয়াদের সহসভাপতি অভিনেতা রিয়াজকে কথা বলার সুযোগ দেওয়া হয়নি। এসব কারণেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে বাড়ছে বিতর্ক। সবমিলিয়ে বিতর্ক নিয়েই হয়তো ২৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন। আসবে নতুন নেতৃত্ব।