গাজী মাজহারুল আনোয়ার। বরেণ্য গীতিকার, সুরকার। একুশে পদকজয়ী এ গুণী মানুষটি ৩০ হাজারের বেশি গান রচনা করেছেন। এই চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বের আজ ৭৮তম জন্মদিন। এ দিনটির উদযাপন, বর্তমান ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা

হয় তার সঙ্গে-



জন্মদিনে সমকাল পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাকে শুভেচ্ছা। এবারে জানতে চাই দিনটি কীভাবে কাটানোর পরিকল্পনা করছেন?

শুভেচ্ছার জন্য সমকাল পরিবারের সবাইকে ধন্যবাদ। এই দিনটি কখনোই ঘটা করে উদযাপন করি না। ২২ ফেব্রুয়ারি এলেই কাছের মানুষেরা ফোন বা ফেসবুকে শুভেচ্ছা জানান। কেউ উপহার পাঠান। কেউ কেক নিয়ে বাসায় হাজির হন। পরিবার-পরিজন, কাছের মানুষদের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসায় কেটে যায় দিনটি। এছাড়াও আজ সন্ধ্যায় এ দিনটিকে ঘিরে রাজধানীর একটি ক্লাবে আমার বিভিন্ন গান নিয়ে 'অল্প কথার গল্প গান' নামে ভাষাচিত্র থেকে একটি বই প্রকাশ হবে। সেখানেও থাকছে জন্মদিনের আনন্দ আয়োজন।

কী থাকছে 'অল্প কথার গল্প গান' বইটিতে?

শ্রোতাপ্রিয় গান রচনার প্রেক্ষাপট ও গল্প স্থান পাবে বইটিতে। প্রতি খণ্ডে থাকবে ৫০টি গান রচনার গল্প এবং ২০০টি গানের কথা। গান রচনার গল্প থেকে জানা যাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ের চলচ্চিত্র জগতের কালজয়ী শিল্পী, সুরকার, সংগীত পরিচালক, প্রযোজক, নির্মাতা, পরিচালকসহ বিভিন্ন শিল্পী-কলাকুশলীর কীর্তিময় সময়ের বিভিন্ন ঘটনা। এককথায় বলতে পারি, স্মৃতির দুয়ার খুলে দিয়েছে আমার বই। ধারাবাহিকভাবে এই বইটি প্রকাশ হবে।

চ্যানেল আইয়ের 'পালকী' সংগীতানুষ্ঠান নিয়ে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

বেশ ভালো। যারা এটি দেখেছেন তারা তাদের ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন। পুরোনো গানগুলো নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছানোর জন্য এ আয়োজন। বাংলাদেশ একটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যমন্ডিত দেশ। সংস্কৃতি আমাদের অবহেলা কিংবা প্রচারের কারণে সেই ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। যে জন্য এ অনুষ্ঠানে গানের মাধ্যমে নিজস্ব সংস্কৃতি তুলে ধরেছি। আমার লেখা শ্রোতাপ্রিয় গানগুলোর পাশাপাশি এমন কিছু গান রয়েছে, যা শ্রোতারা খুব কমই শুনেছেন। সেই গানগুলোও অনুষ্ঠানে থাকছে।

পরিচালনার কথা নতুন করে ভাবছেন?

সময়-সুযোগ হলে অবশ্যই পরিচালনায় ফিরে আসার ইচ্ছা রয়েছে। আরও কয়েকটি সর্বজনীন চলচ্চিত্র নির্মাণ করার ইচ্ছা রয়েছে। আমাদের চলচ্চিত্রের যে ঐতিহ্য আছে, তা আবারও প্রমাণ করতে চাই।

সদ্যপ্রয়াত বরেণ্য অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানকে নিয়ে কিছু বলুন

এটিএম শামসুজ্জামান চলে যাওয়ায় শূন্যতার গভীরতা বেড়েছে। তিনি ছিলেন ভার্সেটাইল একজন শিল্পী।

চলচ্চিত্রের প্রায় শাখায়ই তার বিচরণ ছিল। পরিবার থেকে যখন একজন সদস্য চলে যায়, যে কিনা আর ফিরে আসবে না, তার জন্য কী কষ্টবোধ হবে তা তো বলে বোঝানো সম্ভব নয়।

মন্তব্য করুন