সাবিলা নূর। মডেল ও অভিনেত্রী। 'বঙ্গবন্ধু' বায়োপিকের শুটিং শেষে মুম্বাই থেকে সম্প্রতি ঢাকা ফিরেছেন তিনি। কাজ করেছেন ঈদের কয়েকটি নাটকের। এ ছাড়া যুক্ত হয়েছেন 'গ্লো অ্যান্ড লাভলী'র শুভেচ্ছাদূত হিসেবেও। এসব প্রসঙ্গে কথা হলো তার সঙ্গে-

সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু বায়োপিকের শুটিং শেষে দেশে ফিরেছেন। ছবিতে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

একেবারে অন্যরকম অভিজ্ঞতা হয়েছে। এক মাসেরও বেশি সময় শুটিং করেছি। মুম্বাই অংশের কাজ শেষ হয়েছে। শ্যাম বেনেগালের মতো খ্যাতিমান নির্মাতার সঙ্গে কাজ করে অনেক কিছু শিখেছি। ছবির আয়োজনও বড়। শুটিংয়ে ভালো সময় কেটেছে। পুরো ইউনিট থেকে আমি অনেক প্রশংসা আর উৎসাহ পেয়েছি। সবমিলিয়ে কাজের অভিজ্ঞতা খুবই ভালো। এতে অভিনয় আমার ক্যারিয়ার ও জীবনের মাইলফলক হয়ে থাকবে। এই ছবিতে আমি ১৪ থেকে ২২ বছরের শেখ রেহানার চরিত্রে অভিনয় করেছি।

'গ্লো অ্যান্ড লাভলী'র সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ...

'গ্লো অ্যান্ড লাভলী' ব্র্যান্ডটির শুভেচ্ছাদূত হতে পেরে আমার খুবই ভালো লাগছে। আমরা জানি, এটা দেশের আইকনিক ও এক নম্বর স্কিন কেয়ার ব্র্যান্ড; যা নারীদের নিজের পরিচয় নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার কথা বলে। 'গ্লো অ্যান্ড লাভলী' সবসময় সাহসী ও আত্মবিশ্বাসী নারীদের নিয়ে কথা বলে। এখন আমি নিজেই গ্লো অ্যান্ড লাভলীর মাধ্যমে দেশের আত্মবিশ্বাসী নারীদের প্রতিনিধি হয়েছি। এ ব্র্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে ভীষণ আনন্দিত ও সম্মানিত। এখন থেকে বাংলাদেশে এই ব্র্যান্ডের যাবতীয় বিজ্ঞাপন ও ব্র্যান্ড প্রচারণায় অংশ নেব।

ঈদের কাজ শুরু করেছেন নিশ্চয়ই-

বেশ কয়েকটি নাটকে অভিনয় করেছি। কিছু নাটকে কাজের কথা থাকলেও করোনার প্রকোপ বাড়ায় আর অভিনয় করা সম্ভব হয়নি। রাকেশ বসুর পরিচালনায় 'ফিজিকস কেমিস্ট্রি ম্যাথ' ও 'রক্ত', শিহাব শাহিনের 'পাশের বাসার ছেলেটা', রুবেল হাসানের নাটকে ব্যতিক্রমী চরিত্রে দর্শক আমাকে দেখতে পাবেন।

আগামীকাল পহেলা বৈশাখ। দিনটি কীভাবে কাটাবেন বলে ভাবছেন?

করোনার প্রকোপ বাড়ছে। আমার মনে হয়, বাঙালির এ উৎসব ঘটা করে উদযাপনের সুযোগ এবার কম। বাইরে যাওয়ার কথা একেবারে ভাবছি না। অনলাইন থেকে কেনা দেশি শাড়ি পরে দিনটি উদযাপন করব।

মন্তব্য করুন