কাজী নওশাবা আহমেদ। অভিনেত্রী ও মডেল। 'শুভ বৈশাখ' শিরোনামে একটি গানের মডেল হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি অনলাইন মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে এটি। নতুন গান, এ সময়ের ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হয় তার সঙ্গে-



'শুভ বৈশাখ' গানের মিউজিক ভিডিও নিয়ে দর্শকদের প্রতিক্রিয়া কী?

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে প্রকাশিত মিউজিক ভিডিওটি প্রকাশের প্রথম দিন থেকেই বেশ সাড়া পাচ্ছি। অনেক দিন ধরে মিউজিক ভিডিওতে কাজ করেছি, তবে এবারই প্রথম বৈশাখ নিয়ে এক ভিন্নধর্মী কাজের সুযোগ হয়েছে। এর মধ্যে যারা গানটি দেখেছেন তারা ভালোলাগার কথা জানিয়েছেন। এটি গেয়েছেন সিলন সুপার সিঙ্গারখ্যাত শিল্পী শিলা দেবী। কথা লিখেছেন জয়ন্ত কর্মকার, সুর করেছেন আলভি আল বেরুনি ও জয়ন্ত কর্মকার। সংগীতে আছেন আলভি আল বেরুনি।

কোন ভাবনা থেকে এ কাজটি করেছেন?

এই গানটির যখন পরিকল্পনা হয় তখন বেশ কয়েকবার নির্মাতার সঙ্গে মিটিং করেছি। তাকে বলেছি, যদি কেবল উৎসবমুখর পরিবেশে নাচের ভিডিওচিত্র বানানো হয়, করোনাকালে দর্শকের সেটা ভালো লাগবে না। কারণ এখন বাইরে বেরিয়ে নাচ-গান করার সময় নয়। সবার জন্য দুঃসময় যাচ্ছে। এটা এমনভাবে করা উচিত, শিশুরাও সময়টাকে যাতে সহজে বুঝতে পারে। আবার গান দেখেশুনে যেন উৎসবের আমেজের শামিল হতে পারেন সবাই। নির্মাতা আমার প্রস্তাবে সায় দিয়েছেন বলে কাজটি করেছি। করোনা যে মানুষের মনের ভেতরের উদযাপনটাকে বন্দি রাখতে পারেনি, এমনই আবহে তৈরি হয়েছে এর ভিডিও। এতে বর্তমান বাস্তবতা তুলে ধরা হয়েছে। রয়েছে সাম্যতা ও আশার বাণী।

আজকাল মিউজিক ভিডিওর কাজকে কি বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন?

না, বিষয়টি তেমন নয়। কাকতালীয়ভাবে কয়েকটি মিউজিক ভিডিওতে পরপর কাজ হয়েছে। যে জন্য অনেকের কাছে এমনটি মনে হয়েছে। তবে আমার কাছে কোন মাধ্যমে কাজ করছি, সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। নাটক, টেলিছবি, মিউজিক ভিডিও- যেখানে কাজ করি না কেন, আমি কী বলতে চেয়েছি আমার কাছে সেটি গুরুত্বপূর্ণ। সবকিছুর মধ্যেই তো আমরা একটি বার্তা দিতে চাই। বার্তাটি দর্শকদের কাছে মানসম্মতভাবে পৌঁছানোই আমার মূল কাজ।

'ব্যাচ ২০০৩' ওয়েব ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। এ নিয়ে কিছু বলুন?

থ্রিলারধর্মী এ ধরনের গল্পে এটাই আমার প্রথম কাজ। কাজেও অনেক যত্ন ছিল। সায়েন্স ল্যাবরেটরির মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শুটিং করেছি। ছবিতে আমার কাজ ছিল একটা তরল মেডিসিন ছুড়ে মেরে টেবিলের ওপর আগুন ধরিয়ে ফেলা। আমার ছুড়ে মারায় কোনো সমস্যা ছিল। মুহূর্তেই আমার আর সজল ভাইয়ের সামনে অনেক উঁচু হয়ে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। প্রচণ্ড তাপ এসে লাগছিল গায়ে। আমার কিছু চুল পুড়ে যায়। রাফায়েল আহসানের গল্পে ওয়েব ছবির চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন পার্থ সরকার। এটি কিছুদিন আগে বিনজে মুক্তি পেয়েছে। ছবিটি দর্শক দেখলেই আমাদের কষ্ট সার্থক হবে।

মন্তব্য করুন