ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার ২০১৫

এবার জয়ী নির্মলেন্দু গুণ রাজকুমার সিংহ ও স্বকৃত নোমান

প্রকাশ: ২৮ মে ২০১৬      

বিশেষ প্রতিনিধি

এবার জয়ী নির্মলেন্দু গুণ রাজকুমার সিংহ ও স্বকৃত নোমান

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বিচারকমণ্ডলী, সমকাল প্রকাশক, নির্বাহী সম্পাদক ও ব্র্যাক ব্যাংক ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে পুরস্কারপ্রাপ্ত তিন লেখক -সমকাল

গান, নৃত্য, বক্তৃতা_ সবই ছিল। তবু সবার আকর্ষণের কেন্দ্রে ছিল পুরস্কার_ কারা পাচ্ছেন ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার? রীতি অনুযায়ী ঘোষণার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত গোপন রাখা হয় বিজয়ী লেখকদের নাম। এই গোপনীয়তায় আকর্ষণ যে বেশ বাড়ে তা সমবেতজনের কৌতূহলেই নিশ্চিত হওয়া যায়। তাদের কৌতূহল থেকে এটাও বোঝা গেল, ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার আকাঙ্ক্ষার ও গর্বের বিষয়ে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশের লেখক সম্প্রদায়ের কাছে। পুরস্কার প্রবর্তনকারী প্রতিষ্ঠান দুটিও শুরু থেকে এমনটা চেয়ে আসছে।
দেশের বরেণ্য সাহিত্যিকদের সম্মাননা জানানো এবং তরুণ লেখকদের উৎসাহিত করার লক্ষ্যে এ পুরস্কার প্রবর্তিত হয়েছে মাত্র পাঁচ বছর আগে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের কার্নিভাল হলে ২০১৫ সালে প্রকাশিত বিভিন্ন বইয়ের মধ্য থেকে নির্বাচিত তিনটি বইয়ের লেখকদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়ার জন্য আয়োজিত অনুষ্ঠানে দেশবরেণ্য নবীন-প্রবীণ লেখক উপস্থিত হয়েছিলেন স্বতঃস্ফূর্তভাবে। সুধীজনের এমন স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে মুগ্ধ আয়োজকরা। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার দেরিতে সমবেতজন কাটিয়ে দেন আড্ডা-গল্পে।
এবার নির্মলেন্দু গুণ, রাজকুমার সিংহ ও স্বকৃত নোমান জিতে নিলেন 'ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার ২০১৫'। নির্মলেন্দু গুণ তার 'রক্ষা করো হে ভৈরব' বইটির জন্য কবিতা ও
কথাসাহিত্য শ্রেণীতে, রাজকুমার সিংহ তার 'মৈত্রেয়ী নেই, মৈত্রেয়ী আছে' বইয়ের জন্য প্রবন্ধ, আত্মজীবনী, ভ্রমণ ও অনুবাদ শ্রেণীতে এবং স্বকৃত নোমান তার 'কালকেউটের সুখ' উপন্যাসের জন্য 'হুমায়ূন আহমেদ তরুণ সাহিত্যিক পুরস্কার' বিজয়ী হন। 'রক্ষা করো হে ভৈরব' বিভাস, 'মৈত্রেয়ী নেই, মৈত্রেয়ী আছে' পলক এবং 'কালকেউটের সুখ' জাগৃতি প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়েছে।
প্রত্যেক শাখার বিজয়ী পুরস্কার হিসেবে পান এক লাখ টাকা। প্রত্যেককে পদক এবং সম্মাননাপত্রও দেওয়া হয়। পুরস্কারের জন্য তিন শ্রেণীতে ৪৭২টি বই জমা পড়ে। জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, কবি আসাদ চৌধুরী ও কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত জুরি বোর্ড সেরা তিনটি বই নির্বাচন করেন। পুরস্কারের বই নির্বাচনের জন্য শুরু থেকে চার সদস্যের বিচারকমণ্ডলীতে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী। ২০১৪ সালের ১১ নভেম্বর অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকীর মৃত্যু ঘটে। এরপর গত বছর থেকে বিচারকমণ্ডলীতে যুক্ত হয়েছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।
বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে 'ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার-২০১৫' বিজয়ীদের হাতে পুরস্কারের অর্থ ও সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিজয়ীদের উত্তরীয় পরিয়ে দেন ও হাতে পুরস্কারের সম্মাননা স্মারক ও চেক তুলে দেন প্রধান অতিথি, বিচারকমণ্ডলীর দুই সদস্য মুস্তাফা নূরউল ইসলাম ও আসাদ চৌধুরী এবং সমকাল প্রকাশক এ. কে. আজাদ, ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম আর. এফ. হোসেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমকালের নির্বাহী সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি।
অনুষ্ঠানের শুরুতে সমকালের ফিচার সম্পাদক মাহবুব আজীজ সবাইকে স্বাগত জানান। তারপর উপস্থাপন করা হয় একটি সংক্ষিপ্ত তথ্যচিত্র। ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অব করপোরেট অ্যাফেয়ার্স জারা জাবীন মাহবুব উপস্থাপিত তথ্যচিত্রে জানানো হয়, বাংলা সাহিত্যের মৌলিক সৃষ্টিকর্মকে উৎসাহিত করার জন্য ২০১১ সাল থেকে ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার প্রবর্তন করা হয়। পরে প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তরুণ সাহিত্য পুরস্কারটির নামকরণ করা হয় এই বরেণ্য লেখকের নামে। প্রথম দুটি পুরস্কারের অর্থমূল্য শুরু থেকেই এক লাখ টাকা করে। হুমায়ূন আহমেদ তরুণ সাহিত্য পুরস্কারের মূল্য ছিল ৫০ হাজার টাকা। গত বছর থেকে এ পুরস্কারের অর্থমূল্যও এক লাখ টাকা করা হয়েছে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত পুরস্কারের জন্য যারা বিচারকের দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের বিশেষ ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, 'এই কাজটি অত্যন্ত কঠিন। সাহিত্যকে বিচারের মানদণ্ডে ফেলা অত্যন্ত কঠিন। তবে যত কঠিনই হোক সাহিত্যে পুরস্কার প্রদানের এমন আয়োজন বিস্তৃত করা উচিত। আমরা কোটি কোটি মানুষের এই দেশটিকে আরও বড় স্বপ্ন বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব।'
বিচারকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম জানান, অত্যন্ত নির্লিপ্তভাবে বিচারকাজ করা হয়েছে। তিনি বিচার কাজটাকে নিজের জন্য একটা বড় সুযোগ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, 'এই বিচার কাজ করতে গিয়ে দেশের সেরা সব লেখার সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সুযোগ হয়েছে।' তিনি জানান, পুরস্কারের জন্য জমা পড়া প্রায় পাঁচশ' বই থেকে প্রাথমিক বাছাইয়ের পর শতাধিক বইয়ের সংক্ষিপ্ত তালিকা করা হয়। সেগুলো পড়ে অত্যন্ত নির্লিপ্তভাবে বিচারকাজটি করা হয়েছে। তিনি বলেন, 'যারা পুরস্কার পেয়েছেন, তারা লেখালেখিতে সমকালীন এবং কালোত্তীর্ণও। তবে তারা কেউ পুরস্কার পাওয়ার জন্য লেখেন না।'
চিকিৎসার জন্য বিদেশে থাকায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার। তবে অনুষ্ঠান উপলক্ষে নির্মিত তথ্যচিত্রে তিনি বলেন, 'একটি জাতীয় দৈনিক হিসেবে সমকাল সব সময়ই শিল্প-সাহিত্যের উন্নয়নে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছে। তবে সমকাল পুরস্কার দিয়েই নিজের দায়িত্ব শেষ হয়ে গেছে বলে মনে করে না। তাই সমকাল একটি প্রকাশনা সংস্থা প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা করছে।'
অসুস্থ থাকায় অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং বিদেশে অবস্থান করায় কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেনও অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে বিচারকমণ্ডলীর পক্ষে কবি আসাদ চৌধুরী পুরস্কার-সংক্রান্ত তথ্যচিত্রে বলেন, 'স্বচ্ছতার সঙ্গে সেরা লেখাগুলো বাছাই করা হয়েছে। এটি করতে গিয়ে নিজের সাহিত্য বিবেচনার প্রতি যথেষ্ট আস্থা থাকার পরও ব্যক্তিগতভাবে আমি বারবারই দ্বিধান্বিত হয়েছি। পুরো কাজটির সঙ্গে বোদ্ধা ও জ্ঞানী ব্যক্তিরা যুক্ত। বইগুলো পড়ার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, বাংলাদেশের সাহিত্য একেবারে দিক বদলে নতুন দিকে যাত্রা শুরু করেছে।' পুরস্কার বিতরণ শেষে মঞ্চের বক্তৃতায় তিনি আশা প্রকাশ করেন, পুরস্কারপ্রাপ্ত বইগুলোর প্রতি সমালোচকের নজর পড়বে। আরও আলোচনা-সমালোচনার মধ্য দিয়ে বইগুলো পাঠকের আরও কাছে যাবে।
সমকাল প্রকাশক এ. কে. আজাদ বলেন, 'সমকাল ১২ বছরে পদার্পণ করছে। বাধ্য না হলে আমি সমকালের অনুষ্ঠানে থাকি না। তবে গত বছর ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে এসে আমি মুগ্ধ হই পুরস্কারপ্রাপ্ত সুস্মিতা ইসলাম সম্পর্কে জেনে। এবার এসে আবার মুগ্ধ হলাম।' তিনি ব্র্যাক ব্যাংকের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, 'আমি নিজেও একটি ব্যাংক পরিচালনায় যুক্ত আছি, কিন্তু ব্র্যাক ব্যাংক সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।' অন্য ব্যাংকগুলোকেও তিনি এমন কাজে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।
ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম আর. এফ. হোসেন বলেন, 'বিগত পাঁচ বছরের ধারাবাহিকতায় এই পুরস্কার লেখকদের মধ্যে আগ্রহের জন্ম দিয়েছে, হয়তো পুরস্কৃতদের কিছুটা হলেও উদ্বেলিত করছে। পুরস্কারটি লেখকদের, বিশেষ করে তরুণ লেখকদের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করছে।' তিনি বলেন, 'ব্র্যাক ব্যাংক এই কাজে থাকবে, কারণ এটি একটি মননশীল বিনিয়োগ।'
ধন্যবাদ জ্ঞাপন বক্তব্যে সমকালের নির্বাহী সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি বলেন, 'ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার যেন ভবিষ্যতে বাংলাদেশে সাহিত্যাঙ্গনের শ্রেষ্ঠ পুরস্কার হিসেবে বিবেচিত হয়, সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। একটি জাতীয় দৈনিক হিসেবে সমকাল সব সময়ই শিল্প-সাহিত্যের উন্নয়নে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছে। সমকালের সাপ্তাহিক আয়োজন কালের খেয়া বাংলাদেশের নবীন-প্রবীণ সাহিত্যানুরাগীদের আকাঙ্ক্ষা পূরণ করে চলেছে। তবে পুরস্কার দিয়ে এবং কালের খেয়া প্রকাশ করেই সাহিত্য ক্ষেত্রে নিজের দায়িত্ব শেষ করতে চায় না সমকাল। আমরা সাহিত্যের উন্নয়নে আরও আরও কাজ করতে চাই। যুক্ত হতে চাই প্রকাশনায়ও।'
পুরস্কার পাওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে নির্মলেন্দু গুণ বলেন, 'মাত্র কিছুদিন আগে আমি স্বাধীনতা পুরস্কার চেয়েছিলাম এবং শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর বদান্যতায় পুরস্কারটা পেয়েও ছিলাম। গত পাঁচ মাসে আমি ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কারসহ ছয়টি পুরস্কার পেয়েছি। তবে স্বাধীনতা পুরস্কার ছাড়া আর কোনো পুরস্কারের জন্য আমি তদবির করিনি।' তিনি বলেন, 'পুরস্কার পাওয়া সব সময় আনন্দের নয়, কিছুটা লজ্জারও। সবার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা, সবার সামনে পুরস্কার নেওয়া কিছুটা বিব্রতকর।' প্রতিক্রিয়া শেষে তিনি তার পুরস্কারপ্রাপ্ত কাব্যগ্রন্থ 'রক্ষা করো হে ভৈরব' থেকে সাম্প্রদায়িকতাবিরোধী একটি কবিতা পাঠ করে শোনান।
পুরস্কার বিজয়ী রাজকুমার সিংহ তার কন্যার মর্মন্তুদ মৃত্যু নিয়ে লেখা 'মৈত্রেয়ী নেই, মৈত্রেয়ী আছে' বইটি সম্পর্কে বলেন। এ রচনাটিকে তিনি 'আত্মজৈবনিক উপন্যাস' বলে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, 'অকালপ্রয়াত মেয়েটির লাশ সামনে রেখে আমাদের খাওয়া-দাওয়া করতে হয়েছে। দেশের বাইরে মেয়ের চিকিৎসার জন্য গিয়ে প্রতিটি মুহূর্ত কেটেছে চরম কষ্টে।' তার মতে, পুরস্কারপ্রাপ্তির মধ্য দিয়ে মৈত্রেয়ী আছে এটা আবারও জানা গেল।
হুমায়ূন আহমেদ তরুণ সাহিত্য পুরস্কার বিজয়ী লেখক স্বকৃত নোমান জানান, তার স্বপ্ন বাংলাদেশের উপন্যাসকে একটা ভিন্ন মাত্রায় পেঁৗছে দেওয়া। তার ভাষায়, 'আমি খাই লেখার জন্য, হাসি লেখার জন্য, হাঁটি লেখার জন্য, মোদ্দাকথা বাঁচি লেখার জন্য।' তিনি পুরস্কারপ্রাপ্তিকে একটি সামাজিক স্বীকৃতি হিসেবে অভিহিত করেন। তিনি পুরস্কারটি পুরস্কৃত উপন্যাসের প্রকাশক ছুরিকাঘাতে নিহত ফয়সল আরেফিন দীপনকে উৎসর্গ করে সংশয় প্রকাশ করেন, 'জানি না তার হত্যার বিচার হবে কি-না।'
অনুষ্ঠানের মধ্যবর্তী পর্বে পুরস্কার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা শেষে তাদের উত্তরীয় পরিয়ে দেওয়ার পর তাদের হাতে পুরস্কারের চেক ও পদক তুলে দেওয়া হয়। পুরস্কৃত লেখকদের রচনা এবং তাদের জন্য রচিত সম্মাননা পাঠ করেন অভিনেতা ও আবৃত্তিশিল্পী জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায় ও রূপা চক্রবর্তী। শুরুতে ওয়ার্দা রিহাব ও তার দল 'আগুনের পরশমণি' গানটির সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন; তার পর শামা রহমান গেয়ে শোনান কয়েকটি রবীন্দ্রসঙ্গীত।


পরবর্তী খবর পড়ুন : মমতার ব্যতিক্রমী শপথ

ঘরের মাঠে মস্কোয় বিধ্বস্ত রিয়াল

ঘরের মাঠে মস্কোয় বিধ্বস্ত রিয়াল

রাশিয়া নামক এক জুজু বুড়ির ভয় ভর করেছে রিয়ালের ওপর। ...

হারাচ্ছে জমি, অস্তিত্ব সংকটে সমতলের আদিবাসীরা

হারাচ্ছে জমি, অস্তিত্ব সংকটে সমতলের আদিবাসীরা

'জমি চাই মুক্তি চাই' স্লোগানে ১৮৫৫ সালে সাঁওতাল নেতা সিধু, ...

'কোল্ড আর্মসে' কক্সবাজার সৈকতে দুর্ধর্ষ হামলার ছক

'কোল্ড আর্মসে' কক্সবাজার সৈকতে দুর্ধর্ষ হামলার ছক

দুনিয়াব্যাপী কমান্ডো নাইফ এবং বিশেষ ধরনের ছুরি ও চাকু 'কোল্ড ...

সহিংসতা রোধে ইসিকে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ আওয়ামী লীগের

সহিংসতা রোধে ইসিকে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ আওয়ামী লীগের

দেশের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্ট সহিংসতা ঠেকাতে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) আরও ...

গ্রেফতার হামলা বন্ধে সিইসির হস্তক্ষেপ চায় বিএনপি

গ্রেফতার হামলা বন্ধে সিইসির হস্তক্ষেপ চায় বিএনপি

প্রতীক বরাদ্দের পরও বিএনপির নেতাকর্মীদের হয়রানি, গ্রেফতার ও সন্ত্রাসী হামলার ...

বৃহত্তম সমাবেশ যুক্তরাজ্যে

বৃহত্তম সমাবেশ যুক্তরাজ্যে

১ আগস্ট ১৯৭১। যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারে দুপুর থেকেই ...

চট্টগ্রামে আমীর খসরুর প্রচারে হামলায় আহত ৫

চট্টগ্রামে আমীর খসরুর প্রচারে হামলায় আহত ৫

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর গণসংযোগে হামলার ...

২৪ থেকে ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সেনা মোতায়েন

২৪ থেকে ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সেনা মোতায়েন

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আগামী ...