৩৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

মিনার চৌধুরীসহ ১৬ জন খালাস

প্রকাশ: ১৪ মার্চ ২০১৮      

শাহজালাল রতন, ফেনী

ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যা মামলার রায়ে ৩৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার সকালে জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হক চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। বহুল প্রতীক্ষিত এ রায়ে মামলার প্রধান আসামি বিএনপি নেতা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী ওরফে মিনার চৌধুরীসহ ১৬ জন খালাস পেয়েছেন। একরাম হত্যা মামলায় রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে যে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গতকাল ফেনীর আদালতপাড়ায় অতিরিক্ত ৫০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এ ছাড়া জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের প্রবেশমুখেও ছিল বিশেষ নিরাপত্তার আয়োজন।

২০১৪ সালের ২০ জুন প্রকাশ্যে ফুলগাজী উপজেলার চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হক একরামকে গুলি ও ছুরিকাঘাতের পর আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। স্মরণকালের নৃশংসতম এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় শিউরে ওঠে সারাদেশ। নিহতের ভাই রেজাউল হক জসিম এ ঘটনায় বিএনপি নেতা মিনার চৌধুরীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন। তদন্ত শেষে ৫৬ জনকে অভিযুক্ত করে ওই বছরের ২৮ আগস্ট চার্জশিট দেয় পুলিশ। এর প্রায় চার বছর পর গতকাল একরাম হত্যার রায় ঘোষণা করেন আদালত।

এ রায়কে দেশের অন্যতম বৃহৎ ও ঐতিহাসিক রায় বলে অভিহিত করেছেন ফেনী বারের আইনজীবীরা। তারা জানান, পিলখানা হত্যা মামলা বাদে কোনো মামলায় একসঙ্গে ৩৯ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার নজির নেই।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হাফেজ আহাম্মদ জানান, গতকাল রায় ঘোষণার সময় এ মামলার ৫৬ আসামির মধ্যে ৩৬ জন আদালতে হাজির ছিলেন। বাকিদের মধ্যে ১০ জন মামলার শুরু থেকেই পলাতক। জামিন নিয়ে পলাতক আছেন নয়জন। অপরাধ প্রমাণ না হওয়ায় ১৬ জন এই মামলা থেকে খালাস পেয়েছেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করেছেন আদালত।

একরাম হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া ৩৬ আসামি হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির আদেল, ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহিদ চৌধুরী, ফেনী পৌর কাউন্সিলর আবদুল্লাহ হিল মাহমুদ শিবলু, আবু বকর সিদ্দিক, আবিদুল ইসলাম আবিদ, এমরান হোসেন রাসেল ওরফে ইঞ্জিনিয়ার রাসেল, জিয়াউর রহমান বাপ্পি, আজমীর হোসেন রায়হান, শাহজালাল উদ্দিন শিপন, কাজী শাহনান মাহমুদ শানান, নূর উদ্দিন মিয়া, আবদুল কাউয়ূম, সাজ্জাদুল ইসলাম সিফাত, জাহিদুল হাসেম সৈকত, আবু বক্কর সিদ্দিক বক্কর, আরমান হোসেন কাউসার, নাফিজ উদ্দিন অনিক, জাহিদুল ইসলাম, ফেরদৌস মাহমুদ খান হীরা, সজীব, পাংকু আরিফ হুমায়ূন, ইসমাইল হোসেন ছুট্টু, জসিম উদ্দিন নয়ন, সোহান চৌধুরী, মানিক, কফিল উদ্দিন মাহমুদ আবির, টিটু, নিজাম উদ্দিন আবু, রাহাত এরফান, শরিফুল জামিল পিয়াস. টিপু, বাবলু, রুবেল শফিকুল রহমান ময়না, কালা মিয়া, একরাম হোসেন, মহি উদ্দিন আনিস, মোসলে উদ্দিন আসিফ। তাদের মধ্যে নয়জন পলাতক।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- জেলা তাঁতী দলের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনার, জেলা যুবলীগের নেতা জিয়াউল আলম মিস্টার, কাজীরবাগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান রউপ, আনন্দপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের হাজি বেলায়েত হোসেন পাটোয়ারী (টুপি বেলাল) এবং ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মী পবন, রিপন, ইকবাল হোসেন, শরিফুল জামিল পলাশ (পলাতক), কালামিয়া, ইউনুছ ভূঞা শামীম (পলাতক), আলমগীর, কাদের, ফারুক, জাহিদ হোসেন ভূঞা, মো. মাসুদ ও শাখাওয়াত হোসেন।

রায় ঘোষণার আগে :গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে একরাম হত্যা মামলার ৩৬ আসামিকে ফেনী কারাগার থেকে বিশেষ নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আদালতে এনে হাজতখানায় রাখা হয়। এ সময় থেকে জেলা জজ আদালত, পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রবেশমুখ নিয়ন্ত্রণে নেয় পুলিশ। জেলার সহকারী পুলিশ সুপার ঐক্য সিং জানান, এ রায় ঘিরে আদালত ও আশপাশের এলাকায় ছয়জন পরিদর্শকসহ ৫০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

গতকাল সকাল ৯টার দিকে তৃণমূল আওয়ামী লীগের ব্যানারে একদল যুবক আদালতের সামনের সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে আসেন। আসামিদের মুক্তির দাবি লেখা ব্যানার হাতে নিয়ে সড়কের পাশে অবস্থান নেন পাঁচ শতাধিক যুবক। সকাল ১০টার দিকে তাদের লাঠিচার্জ করে সরিয়ে দেয় পুলিশ। দুপুর ২টার দিকে আদালতপাড়া থেকে ভাসমান হকারদের বের করে দিয়ে পথচারীদের যাতায়াতও বন্ধ করেন পুলিশ সদস্যরা। আইনজীবী ছাড়া কাউকে এ সময় আদালতে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। দুপুর আড়াইটার দিকে আদালতের বারান্দায় সংবাদকর্মীদের অবস্থানের সুযোগ দেওয়া হলেও আদালত কক্ষের দরজা-জানালা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিকেল ৩টার দিকে দু'জন দু'জন করে আসামি আদালত কক্ষে আনা হয়। এ সময় ওই কক্ষ আইনজীবীদের উপস্থিতিতে পূর্ণ ছিল।

রায় ঘোষণা :বিকেল ৩টা ১২ মিনেটে জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হক তার খাস কামরা থেকে এজলাসে আসেন। আদালত কক্ষে তখন সুনসান নীরবতা নেমে আসে। নিহতের কোনো স্বজন উপস্থিত আছেন কি-না, জানতে চান বিচারক। একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে একরামের স্বজনদের খোঁজে আদালত কক্ষের বাইরেও পাঠানো হয়। কিন্তু বাদীপক্ষের কেউ আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। এ সময় বিচারক তার পর্যবেক্ষণে উল্লেখ করেন, এতই প্রভাবশালী ও ক্ষমতাবান যে তাদের বিপক্ষে কেউ সাক্ষ্য দেওয়ার সাহস পায়নি। এরপর বিচারক কিছু পর্যবেক্ষণ ও সাজার মূল অংশ আদালতে উপস্থিত আসামিদের পাঠ করে শোনান। মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে রায় ঘোষণা শেষ করেন তিনি। রায় পাঠ করে শেষে জেলা ও দায়রা জজ এজলাস ত্যাগ করেন। এ সময় ফাঁসির দণ্ড পাওয়া আসামিরা চিৎকার করে কান্না শুরু করেন। প্রত্যেক আসামি অশ্রুসজল হয়ে পড়েন। এ সময় একজন আরেকজনকে বুকে জড়িয়ে ধরে বিলাপ করতে দেখা যায়।

রায় ঘোষণার পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হাফেজ আহাম্মদ এজলাসের বাইরে এসে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের নাম প্রকাশ করেন। বাদী ন্যায়বিচার পেয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী কফিল উদ্দিন টিপু জানান, তিনি পাঁচজন আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছেন। তারা ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। তারা উচ্চ আদালতে যাবেন।



সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ১৯ আসন নিয়ে পুলিশের ...

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

দূরে মাইকে কোথাও বেজে চলেছে বিজয় দিবসে কচিকাঁচার কণ্ঠে আমার ...

সরব বাবলা, নীরব সালাহ উদ্দিন

সরব বাবলা, নীরব সালাহ উদ্দিন

ঢাকা-৪ আসনে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যাপকভাবে এগিয়ে আছেন মহাজোটভুক্ত জাতীয় পার্টির ...

২৭ লাখ নারী ভোটার নিয়ে বিশেষ কৌশল ৩২

২৭ লাখ নারী ভোটার নিয়ে বিশেষ কৌশল ৩২

চট্টগ্রামের বন্দর-পতেঙ্গা আসনে ৫ লাখ ৮ হাজার ভোটারের প্রায় অর্ধেকই ...

রক্তিম অলরেডসে রং চটা ম্যানইউ

রক্তিম অলরেডসে রং চটা ম্যানইউ

কোন দলের রং বেশি লাল। রেড ডেভিলস নাকি অল রেডসদের। ...

আ স ম রবের নির্বাচনী অফিসে তালা, ভাঙচুরের অভিযোগ

আ স ম রবের নির্বাচনী অফিসে তালা, ভাঙচুরের অভিযোগ

লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার বড়খেরী ও চরগাজী ইউনিয়নে আ স ম ...

শিক্ষামন্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন সমশের

শিক্ষামন্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন সমশের

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনে বিকল্পধারা বাংলাদেশ মনোনীত ...

ড. কামাল নীতিহীন: তোফায়েল

ড. কামাল নীতিহীন: তোফায়েল

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ...