উপজেলা নির্বাচন

পরের তিন ধাপে ভোটহীন ২৭ উপজেলা

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচন ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। গত রোববার অনুষ্ঠিত সেই নির্বাচনে ১৫ জন চেয়ারম্যানসহ ৩১ প্রার্থী বিনাভোটে জয় পেয়েছেন। পরের তিন ধাপে ৩৭৩ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ২৭টি উপজেলায় ভোটেরই প্রয়োজন পড়ছে না। কারণ ওই উপজেলাগুলোয় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বী কোনো প্রার্থী নেই। ৮০টি উপজেলায় শুধু ভাইস চেয়ারম্যান পদের জন্য ভোটের আয়োজন করতে হচ্ছে।

ভোটহীন ২৭ উপজেলা হচ্ছে- ভোলা সদর, মনপুরা ও চরফ্যাসন, বরিশালের গৌরনদী ও আগৈলঝাড়া, ময়মনসিংহের গফরগাঁও, যশোরের শার্শা, কুমিল্লার  লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, নাঙ্গলকোট, চৌদ্দগ্রাম ও দেবীদ্বার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা, নওগাঁ সদর, পাবনা সদর, মাদারীপুরের শিবচর, ফরিদপুর সদর, ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও সাভার, নরসিংদীর পলাশ, নোয়াখালীর হাতিয়া ও কোম্পানীগঞ্জ, ফেনীর পরশুরাম, চট্টগ্রামের আনোয়ারা, রাউজান ও মিরসরাই, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া। এর মধ্যে উল্লাপাড়ায় নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন বাতিল হওয়া এক প্রার্থী উচ্চ আদালতে রিট করায় নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় প্রথম ধাপে নাটোর সদর, জামালপুরের মাদারগঞ্জ ও মেলান্দহ ভোট হয়নি।

দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে ২৫, তৃতীয় ধাপে ৩০ ও চতুর্থ ধাপে ৪০ জন নৌকার প্রার্থী নির্বাচিত হচ্ছেন বিনা ভোটে। এ তিন ধাপ মিলে ভাইস চেয়ারম্যান পদে শতাধিক প্রার্থী জয় পেতে পারেন। এতে ৪ ধাপ মিলে বিনা ভোটে নির্বাচিত হওয়ার সংখ্যা ২ শতাধিক ছাড়িয়ে যাবে।

জানা যায়, প্রথম দফায় ৮৭ উপজেলায় নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও ৭৮টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ছয়টিতে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। বাকি ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ভোটের দরকার হয়নি।

নিবন্ধিত অনেক দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না তাই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী কম বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা। তারা মনে করেন, এক্ষেত্রে কমিশনের তেমন কিছু করার নেই।