ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অনশনকারী ছাত্রীদের হেনস্তার অভিযোগ

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০১৯      

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলে অনশনকারী ছাত্রীদের হেনস্তা ও বহিস্কারের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হল সংসদের নির্বাচন বাতিল ও প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবিতে দুই দিন তারা অনশন করেন।

অনশনকারীরা অভিযোগ করেছেন, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বুধবার রাতে শতাধিক নেতাকর্মীকে নিয়ে এসে তাদের হুমকি-ধমকি দেন। অনশনকারী শ্রবণা শফিক দীপ্তি বলেন, রাব্বানী আন্দোলনকারীদের চিহ্নিত করে স্থায়ী বহিস্কারের হুমকি দেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত দেড়টার দিকে নেতাকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে রোকেয়া হলের সামনে আসেন ডাকসুর নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক

(জিএস) রাব্বানী। সেখানে দাঁড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানীর সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন। ওই ছাত্রীরা হলের বাইরে অবস্থান করে অন্য শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করছে অভিযোগ করে তাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করতে প্রক্টরকে অনুরোধ করেন তিনি। অনশনকারীদের সঙ্গে থাকা বোরকা ও হিজাব পরা মেয়েদের ইসলামী ছাত্রী সংস্থার কর্মী বলে আখ্যা দেন।

তবে রাব্বানী দাবি করেছেন, হলের গেট খোলা রেখে ছাত্রীদের অবস্থানের কথা শুনে অন্য শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তিনি সেখানে যান। গিয়ে দেখেন, কয়েকজন মদ-গাঁজা খেয়ে আন্দোলন করছে।

রাব্বানীর প্রশ্ন, ১০-১৫ জনের কারণে অন্যদের ক্ষতি হলে দায় নেবে কে? তিনি বলেন, তারাই ভোটের দিন ব্যালট ছিনতাই করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ভোট দিতে দেয়নি। প্রাধ্যক্ষকেও লাঞ্ছিত করেছে। সবারই আন্দোলন, অনশন করার অধিকার আছে। কিন্তু রাত ২টার দিকে হলের গেট খোলা রেখে অন্যের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার অধিকার কারও নেই।

পাঁচ ছাত্রীকে হেনস্তার অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে রোকেয়া হলের প্রাধ্যক্ষ জিনাত হুদা বলেন, এ বিষয়ে তিনি অবগত নন। কোনো হাউস টিউটরও তাকে অবহিত করেননি। অনশনকারীরা হলের গেটের বাইরে, সেখানে হেনস্তার ঘটনা তার দেখার বিষয় নয়।