আমতলী

চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো মা-ছেলেকে

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি

আমতলী-পটুয়াখালী সড়কে চলাচলকারী বাস মিশুক পরিবহন থেকে চলন্ত অবস্থায় মা-ছেলেকে ফেলে দেওয়া হয়েছে। এতে প্রভাষক ছেলের পা ভেঙে গেছে। অসুস্থ ও বৃদ্ধ মা কোমরে এবং পায়ে গুরুতর আঘাত পাওয়ায় এখন শয্যাশায়ী। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকাল পৌনে ১১টায় আমতলী এ কে স্কুল এলাকায়।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, বৃদ্ধা মা সাফিয়া বেগমকে (৭০) চিকিৎসক দেখানোর জন্য আমতলী চৌরাস্তা এলাকার বটতলা নামক স্থান থেকে বাসে ওঠেন আমতলী সরকারি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মনিরুল ইসলাম। বাসে উঠে দেখেন কোনো আসন খালি নেই। এ সময় মায়ের জন্য একটা সিটের ব্যবস্থা করে দিতে বলেন কন্ডাকটরকে। কন্ডাকটর তাকে এ কে স্কুল গিয়ে সিট দেওয়া হবে বলে জানান। কিন্তু সেখানে যাওয়ার পর কোনো সিটের ব্যবস্থা না করায় মনিরুল তার মাকে নিয়ে বাস থেকে নেমে যেতে চাইলে সেখানে না নামিয়ে একটু দূরে গিয়ে চলন্ত বাস থেকে তাদের ধাক্কা মেরে সড়কে ফেলে দেন কন্ডাকটর। এতে শিক্ষক মনিরুল ইসলামের পায়ের গোড়ালির হাড় ফেটে যায় এবং সাফিয়া বেগম কোমর ও পায়ের পাতায় গুরুতর আঘাত পান। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে তাৎক্ষণিক আমতলী হাসপাতালে নিয়ে যান।

আহত প্রভাষক মনিরুল ইসলাম জানান, 'বসার সিট দেওয়ার কথা বলে আমাদের বাসে উঠিয়ে পরে সিট না দেওয়ায় আমরা নেমে যেতে চাইলে চলন্ত বাস থেকে আমাদের ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয়। এতে আরও বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত। আমরা এর কঠিন বিচার চাই।'

বরগুনা জেলা বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহসভাপতি এবং বাস মালিক সমিতির সদস্য হাসান মৃধা জানান, অভিযুক্ত শ্রমিকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমতলী থানার ওসি আবুল বাশার জানান, এ বিষয়ে অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।