যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এবার সিনেটে বিচারের মুখোমুখি করার উদ্যোগ নিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা। আগামী বুধবার জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার কয়েকদিন পরই অভিশংসন ধারাটি সিনেটে পাঠানো হবে।

এদিকে ট্রাম্পের অভিশংসন ঘিরে বড় ধরনের সংকটে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল দল রিপাবলিকান পার্টি। প্রতিনিধি পরিষদে নজিরবিহীনভাবে ট্রাম্পের অভিশংসনের পক্ষে ভোট দিয়েছেন তারই দলের ১০ আইনপ্রণেতা। এতে দলে বিভক্তি চরমে পৌঁছেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অনেক রিপাবলিকান সমর্থক ডেমোক্র্যাট পার্টিতে যোগ দিচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট সদস্যরা ইতোমধ্যেই ট্রাম্পের বিচার নিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন। তার বিচারের  জন্য ডেমোক্র্যাটরা এবার সুবিধাজনক অবস্থায় আছেন। গত বছর সিনেটে ট্রাম্পকে অভিশংসন থেকে খালাস দেওয়া হলেও এবার তিনি সেখানে ফেঁসে যেতে পারেন। এক দশকের মধ্যে এই প্রথম সিনেটে ডেমোক্র্যাটরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। ডেমোক্র্যাট সিনেট নেতারা এখন রিপাবলিকান সিনেটরদের সঙ্গে ট্রাম্পের বিচার নিয়ে আলোচনা চালাচ্ছেন।

পরবর্তী সিনেটে একদিকে যেমন ট্রাম্পের বিচার প্রক্রিয়া চলবে, পাশাপাশি বাইডেনের মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়োগ অনুমোদন এবং নতুন প্রেসিডেন্টের ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ নিয়েও আলোচনা হবে। যুক্তরাষ্ট্র সিনেটে অভিশংসন নিয়ে আলোচনার মধ্যে অন্য কোনো বিষয় নিয়ে মাথা ঘামানোর নজির নেই।

কিন্তু এবার এমন সময় ট্রাম্পের বিচার শুনানির বিষয়টি সিনেটে গড়াচ্ছে যখন মন্ত্রীদের অনুমোদন ও প্রণোদনা প্যাকেজে সায়ও জরুরি। করোনায় গভীর সংকটে নিমজ্জিত যুক্তরাষ্ট্রে নতুন প্রেসিডেন্ট শপথ নিয়েই আদাজল খেয়ে কাজে নেমে পড়তে চান। এজন্য সবার আগে তার দরকার মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়োগ সিনেটে অনুমোদন। করোনায় অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত আমেরিকান নাগরিকদের জন্য সরকারি প্রণোদনাও জরুরি।

ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেন্থল এই অভিনব পরিস্থিতির দিকে ইঙ্গিত করে বলেছেন, কোনো সন্দেহ নেই যে এটা স্বাভাবিক ঘটনা নয়। একসঙ্গে সিনেটকে দুটো কাজ করতে হবে। তবে চাইলে সেটা সম্ভব। তিনি বলেন, ট্রাম্পের বিচার হবে সরাসরি। কারণ, সহিংসতার উস্কানি দিয়ে তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তার ভিডিও রয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে রিপাবলিকানরা গা-ঝাড়া দিয়ে উঠে ইতিহাসের মুখোমুখি হবেন কিনা।

বর্তমান সিনেটের মেজরিটি লিডার মিচ ম্যাককনেল তার উপদেষ্টাদের বলেছেন, ট্রাম্পকে সিনেটে বিচার করা হলে রিপাবলিকান পার্টি তার হাত থেকে মুক্তি পাবে। তখন ট্রাম্প আর ভবিষ্যতে প্রেসিডেন্ট পদে লড়তে পারবেন না। তবে ম্যাককনেল বলেছেন, ট্রাম্পের বিদায় নেওয়ার আগে সিনেটে তার বিচার সম্ভব নয়।

উচ্চকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রাম্পের বিচার শুরুর জন্য প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ডেমোক্র্যাট নেতা ন্যান্সি পেলোসিকে অভিশংসন ধারাটি সিনেটে পাঠাতে হবে। সিনেটে দণ্ডিত হলে ট্রাম্প ভবিষ্যতে আর রাষ্ট্রীয় কোনো পদে আসীন হতে পারবেন না। পেলোসি প্রস্তাবটি কবে পাঠাবেন তা তার মর্জির ওপর নির্ভর করছে। তবে এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত কয়েকজন জানিয়েছেন, ২৫ জানুয়ারির পর পেলোসি অভিশংসন ধারাটি সিনেটে পাঠাতে পারেন।

আগে সিনেটে ট্রাম্প যেভাবে রিপাবলিকান সদস্যদের সর্বাত্মক সমর্থন পেয়েছেন, এবার কিন্তু তা হচ্ছে না। গত বছর সিনেটে একমাত্র রিপাবলিকান সিনেটর হিসেবে মিট রমনি ট্রাম্পের বিপক্ষে ভোট দিয়েছিলেন। কিন্তু এবার বেশ কয়েকজন রিপাবলিকান সিনেটর ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান নিয়েছেন।

আলাস্কার রিপাবলিকান সিনেটর লিসা মার্কোস্কি ট্রাম্পের দণ্ডের পক্ষে অবস্থান নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, 'ট্রাম্পের কার্যকলাপ ছিল অবৈধ। প্রতিনিধি পরিষদে তাকে অভিশংসন যথোপযুক্ত ছিল।'

সিনেটর বেন সাসে, মিট রমনি, প্যাট্রিক জে টুমি, সুসান কলিন্সসহ ২০ জনের মতো রিপাবলিকান সদস্য এবার সিনেটে ট্রাম্পের বিচারের পক্ষে ভোট দিতে পারেন। সিনেটে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ট্রাম্পকে দণ্ডিত করতে প্রয়োজন ১৭ জন রিপাবলিকান সদস্যের সমর্থন। তবে ট্রাম্পের কট্টর সমর্থক সিনেটরের সংখ্যাও কম নয়। তারা চাচ্ছেন ট্রাম্পকে বাঁচাতে।

ট্রাম্পকে নিয়ে বিভক্ত রিপাবলিকানরা :কংগ্রেসের উভয় কক্ষে ট্রাম্পকে নিয়ে বিভক্তি থাকলেও দলের তৃণমূলে তার পক্ষে দৃঢ় সমর্থন রয়েছে। সেটাই এখন রিপাবলিকান দলের জন্য গভীর সংকট তৈরি করেছে। নেতা ও কর্মীদের মধ্যে এই দূরত্ব দলটির ঐক্য বিনষ্ট করছে।

তৃণমূলের রিপাবলিকান নেতারা ট্রাম্পের পক্ষে জোরালো অবস্থান নিয়েছেন। যেমন ক্লিভল্যান্ড কাউন্টির রিপাবলিকান চেয়ারম্যান ফেসবুকে লিখেছেন, 'সহিংসতা কেন গ্রহণযোগ্য নয়? আমেরিকার বিপ্লবে কি সহিংসতা ছিল না?' নেভাদার নায়ই কাউন্টির রিপাবলিকান চেয়ারম্যান ট্রাম্প বলেছেন, সমর্থকদের দায়ী করার জন্য কাপিটল ভবনে হামলার ঘটনা সাজানো হয়। তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে রাষ্ট্রদ্রোহী বলে অভিযুক্ত করেন।

শুধু তৃণমূল নেতারা নন, শীর্ষস্থানীয় রিপাবলিকান নেতাদের অনেকেও ট্রাম্পের কট্টর সমর্থক। ভার্জিনিয়ার দুইবারের সিনেটর আমান্ডা চেজ বিশ্বাস করেন ২০ জানুয়ারি ট্রাম্প আবার দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য শপথ নেবেন। এর বিকল্প কিছু হলে ট্রাম্প সমর্থকরা তার বিচার করবে। তিনি বলেন, ম্যাককনেল দলটিকে বিক্রি করতে চান। তার বিশ্বাস, ক্যাপিটলে হামলা ছিল ট্রাম্প সরকারকে উৎখাতের জন্য 'ডিপ স্টেটের' কাজ।

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, রিপাবলিকান দলের ৪০ নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎকার নিয়ে তারা বুঝতে পেরেছেন যে ট্রাম্প দলের অনেকের কাছেই ধর্মীয় গুরুর মর্যাদা পাচ্ছেন। ট্রাম্প ক্ষমতা থেকে বিদায় নিলেও তাদের ভালোবাসায় অটুট থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে যেসব রিপাবলিকান নেতা রণক্ষেত্র রাজ্যগুলোর শহুরে মধ্যপন্থি ভোটারদের আকৃষ্ট করার জন্য দলকে পুনর্গঠিত করতে চান, তাদের প্রচেষ্টা ব্যাহত হতে পারে।

আবার ট্রাম্পকে বাদ দিতে গেলে তার কোটি কোটি অনুসারীর ভোট হারাতে পারে রিপাবলিকান পার্টি। একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে আগে কোনো রিপাবিলকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থীই ট্রাম্পের মতো এতো বিপুল ভোট পাননি। বেশিরভাগ রিপাবলিকান ভোটারই আগামী নির্বাচনেও তাকে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান বলে সাম্প্রতিক জরিপে দেখা গেছে।

বাইডেনের ২ লাখ কোটি ডলারের প্রণোদনা প্রস্তাব :জো বাইডেন করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত আমেরিকান অর্থনীতির জন্য এক দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের একটি প্রণোদনা পরিকল্পনা হাজির করেছেন। আগামী সপ্তাহে প্র্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর কংগ্রেসে এ পরিকল্পনা পাস করানোই তার প্রশাসনের কাছে অগ্রাধিকার পাবে।

বাইডেনের এ প্রস্তাবে আমেরিকান পরিবারগুলোর জন্য এক ট্রিলিয়ন বা এক লাখ কোটি ডলার রাখা হয়েছে। কংগ্রেসে প্রস্তাবটি পাস হলেই আমেরিকান নাগরিকরা এককালীন এক হাজার ৪০০ ডলার করে পাবেন। প্রস্তাবে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ৪১৫ বিলিয়ন ডলার এবং ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ৪৪০ বিলিয়ন ডলার রাখা হয়েছে।

বাইডেনের প্রণোদনায় টিকাদান কর্মসূচিতে আরও ২০ বিলিয়ন ডলার যুক্ত করার প্রস্তাব করা হয়েছে; এই অর্থ দিয়ে নতুন নতুন টিকাদান কেন্দ্র স্থাপন ও দুর্গম এলাকাগুলোতে মোবাইল ইউনিট পাঠানো হবে।

বাইডেনের প্রায় ২ লাখ কোটি ডলারের এ প্রণোদনা প্রস্তাব নিয়ে রিপাবলিকান একাংশ আপত্তি জানালেও কংগ্রেসের উভয়কক্ষেই এটি পাস হবে বলে মনে করা হচ্ছে। সংসদের উভয়কক্ষেই এখন ডেমোক্র্যাটদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে। সূত্র :নিউইয়র্ক টাইমস ও বিবিসি।





মন্তব্য করুন