বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার বিষয়ে সরকারের অনুমতির অপেক্ষায় আছে তার পরিবার। আজ রোববার এ বিষয়ে সরকারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যেতে পারে। সরকার ইতিবাচক সিদ্ধান্ত  নেবে ধরে নিয়ে তাকে বিদেশে নেওয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করছে পরিবার।

গতকাল শনিবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সমকালকে জানান, খালেদা জিয়ার বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে শর্ত শিথিলের সুযোগ আছে কিনা তা নিয়ে মতামত প্রদান শেষে আজ রোববার এ-সংক্রান্ত নথি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

তিনি বলেন, শনিবার ছুটির দিনে কর্মকর্তা-কর্মচারী না থাকায় নথি পাঠানো সম্ভব হয়নি। আইনি মতামতসহ রোববার সকালে কাগজপত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সে অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। কী মতামত দেওয়া হয়েছে- জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, কী মতামত দিয়েছি সেটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ই হয়তো জানাবে।

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসকরা। তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের একজন চিকিৎসক গতকাল জানান, তাকে গতকালও অক্সিজেন দেওয়া হয়েছে। তবে আগের ৩ থেকে ৪ লিটারের পরিবর্তে ১ থেকে ২ লিটার অক্সিজেন দেওয়া হয়েছে। তিনি সামান্য খাবার খেতে পারছেন। স্যালাইন চলছে। তার ফুসফুসের ওপরের স্ট্ক্রিনের ভেতর পানি জমছে। যেটা আশঙ্কাজনক মনে হলেও পরীক্ষায় তেমন কিছু পাওয়া যায়নি। সাধারণত হৃদযন্ত্রের কোনো ত্রুটির কারণে এ পানি জমা হয়। তবে তার হৃদযন্ত্র অনেকটাই ভালো বলে জানান ওই চিকিৎসক।

বিদেশে নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত থাকলেও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেওয়ার মতো অবস্থা তৈরি হচ্ছে। এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে কাছাকাছি দেশে নেওয়ার মতো অবস্থা তার এখনও রয়েছে। তবে সরকারের অনুমতি পাওয়ার পর মেডিকেল টিমের সদস্যরা তার সব বিষয়ে আবারও পর্যবেক্ষণ করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে। আজ রোববার মেডিকেল টিমের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

অবশ্য আরেকজন চিকিৎসক বলেন, এখানকার মেডিকেল টিমের সিদ্ধান্ত বা পরামর্শ নিলেই হবে না। যে দেশে এবং যে হাসপাতালে তার চিকিৎসা নেওয়া হবে, সেখানকার চিকিৎসকরাও তার সর্বশেষ অবস্থা জেনে তার বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের পারিবারিক সূত্র জানায়, বিদেশে চিকিৎসা নেওয়ার বিষয়ে সরকারের সবুজ সংকেত পেয়ে তারা ইতোমধ্যে প্রায় সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। এখন সরকারের অনুমতি পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে পাসপোর্ট, ভিসাসহ অন্যান্য বিষয় চূড়ান্ত করবেন তারা। এ ক্ষেত্রে সরকারের আদেশে অল্প সময়ের মধ্যে সেসব করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন তারা।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসক ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন সমকালকে বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে তারা এখনও কিছু জানেন না। তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা এখনও স্থিতিশীল, আগের দিনের মতো অপরিবর্তিত রয়েছে।

দোয়া মিলাদ :খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় গতকাল রাজধানীর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে এবং পাশের মসজিদে স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে দোয়ার আয়োজন করা হয়। এতে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূইয়া জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের আয়োজনে দোয়া, কোরআন খতম ও ইফতারসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি শাজাহান বেপারির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সহকোষাধ্যক্ষ মেহের কায়সার খান রানা, জেলা যুবদলের সহসভাপতি আলমগীর হোসেন, সহসাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াসিম মল্লিক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসাধারণ সম্পাদক আবির ইসলাম খান, জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী পাপিয়া ইসলাম প্রমুখ।

দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাহমুদুল হাসান বাপ্পীর উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মিলাদের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের সহসভাপতি মুনতাজুল হাসান মুন, যুগ্ম সম্পাদক হাসিবুল হাসান সজীব, তেজগাঁও কলেজ ছাত্রদলের মুনকীর হাসান সাগর প্রমুখ।

সুচিকিৎসা ও স্থায়ী মুক্তি চায় ড্যাব : খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও তার দ্রুত স্থায়ী মুক্তি দাবি করেছে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)। সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশিদ ও মহাসচিব অধ্যাপক ডা. আব্দুস সালাম এক বিবৃতিতে বলেন, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত অবস্থা নিয়ে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী সব সংগঠনের নেতাকর্মীসহ দেশের জনসাধারণ চরম উদ্বিগ্ন, উৎকণ্ঠিত। ড্যাব তার সুচিকিৎসার জন্য স্থায়ী মুক্তিসহ প্রয়োজনে দ্রুত বিদেশে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে।

মন্তব্য করুন