প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা কমার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। প্রতিদিন বাড়ছে শনাক্তের সংখ্যা ও মৃত্যু। গত ২৪ ঘণ্টায় এ মহামারিতে আরও ২৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মহামারি শুরুর পর এক দিনে দেশে এটাই সর্বোচ্চ প্রাণহানি। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যু ছাড়িয়ে গেছে ১৮ হাজারের কোঠা। করোনা সংক্রমিত হয়ে মাত্র পাঁচ দিনে মারা গেছেন এক হাজার রোগী।

এর আগে গত ১১ জুলাই সর্বোচ্চ ২৩০ জন মারা গিয়েছিলেন করোনায়। পরদিন ১২ জুলাই ২২০ জন, ১৩ জুলাই ২০৩ জন এবং ১৪ জুলাই ২১০ জন করোনা সংক্রমিত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। গত ১৫ জুলাই তৃতীয় সর্বোচ্চ ২২৬ জন মারা গিয়েছিলেন। গত রোববার ২২৫ ও শনিবার ২০৪ জনের মৃত্যু হয়। দেশে এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৮ হাজার ১২৫ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আগের দিনের তুলনায় প্রায় দুই হাজার বেড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৩ হাজার ৩২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে বলে গতকাল সোমবার জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত রোববার ১১ হাজার ৫৭৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। অবশ্য আগের দিনের তুলনায় গতকাল নমুনা পরীক্ষাও বেড়েছে ৫ হাজারের বেশি। এর আগে

গত ১২ জুলাই ১৩ হাজার ৭৬৮ জন শনাক্ত হয়। এটিই এখন পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের ঘটনা। সব মিলিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১১ লাখ ১৭ হাজার ৩১০-এ পৌঁছাল।

গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি একশ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ২৯ দশমিক ৫৯ শতাংশের শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে। সব মিলিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩০ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমিত ৯ হাজার ৩৩৫ জন সুস্থতার তালিকায় এসেছেন। এ পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত মোট ৯ লাখ ৪১ হাজার ৩৪৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ হাজার ১২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ সময় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৪৬ হাজার ৪৫১টি। রোববার নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ছিল প্রায় ৩৯ হাজার। এখন পর্যন্ত সব মিলিয়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৭৩ লাখ ৩৯৯টি।

সরকারি হিসাবে সর্বশেষ ১০ দিনে নতুন করে এক লাখ ১৬ হাজার ৭৬৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে প্রতিদিন গড়ে রোগী পাওয়া গেছে ১১ হাজার ৬৭৭ জন। করোনার সংক্রমণে গত ১০ দিনে প্রাণ হারিয়েছেন দুই হাজার ১২১ জন। অর্থাৎ এই সময়ে প্রতিদিন গড়ে ২১২ জন রোগী মারা গেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা মহানগরে পাওয়া গেছে দেশের মোট শনাক্তের ৩৬ দশমিক ২৯ শতাংশ রোগী। এ সময় মহানগরে প্রায় ১৬ হাজার নমুনা পরীক্ষা করে ৪ হাজার ৮৩৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

অন্য দিনগুলোর মতোই সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে ঢাকা বিভাগে, ৬ হাজার ৫৪০ জন। এ বিভাগে নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৩৪ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে শনাক্ত করোনা রোগীর ৪৯ দশমিক ১০ শতাংশ বা প্রায় অর্ধেকই মিলেছে শুধু ঢাকা বিভাগে। অবশ্য নমুনা পরীক্ষায়ও এগিয়ে আছে এই বিভাগ। সারাদেশের মোট নমুনা পরীক্ষার ৪৬ দশমিক ৩৬ শতাংশ পরীক্ষাই হয়েছে ঢাকায়।

এ ছাড়া চট্টগ্রামে আগের দিনের এক হাজার ৮৬৩ থেকে বেড়ে দুই হাজার ২৮৮, খুলনায় এক হাজার ৩৪৫ থেকে কমে এক হাজার ১৬৫, বরিশালে আগের দিনের ৬০০ থেকে বেড়ে ৮৯১, রাজশাহীতে আগের দিনের এক হাজার ৪১ থেকে কমে ৮৮৭, রংপুরে ৮২১ থেকে কমে ৫৯২, সিলেটে আগের দিনের ৬৮১ থেকে কমে ৪৮৬ এবং ময়মনসিংহে আগের দিনের ৩৬৯ থেকে বেড়ে ৪৭২ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে।

শনাক্তের মতো মৃত্যুতেও শীর্ষে রয়েছে ঢাকা বিভাগ। গত ২৪ ঘণ্টায় এই বিভাগে ৭৩ জন করোনা সংক্রমিত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা খুলনা বিভাগে ৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া চট্টগ্রামে ৪৩, রংপুরে ১৭, রাজশাহীতে ১৬, ময়মনসিংহে ১১, সিলেটে ৮ এবং বরিশালে ৬ জন প্রাণ হারিয়েছেন করোনায়।



মন্তব্য করুন