প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করে বলেছেন, দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষাসহ জাতীয় যে কোনো প্রয়োজনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে সদাপ্রস্তুত থাকবে।

গতকাল বুধবার মুজিব রেজিমেন্ট ও রওশন আরা রেজিমেন্টের কাছে নতুন পতাকা হস্তান্তর এবং সেনাবাহিনীর ১০টি ইউনিটকে ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট দুর্যোগ মোকাবিলাসহ আর্থসামাজিক এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নেও তাদের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। 'অপারেশন কভিড শিল্ড'-এর মাধ্যমে সেনাসদস্যরা করোনা প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

সরকারপ্রধান বলেন, বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং বিভিন্ন বৈদেশিক মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যরা আত্মত্যাগ, কর্তব্যনিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের মাধ্যমে দেশের জন্য বয়ে এনেছেন সম্মান ও মর্যাদা। এটা বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তিকে অত্যন্ত উজ্জ্বল করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে প্রতিষ্ঠিত মুজিব ব্যাটারির কামানের গোলাবর্ষণের মধ্য দিয়ে ঘোষিত হয়েছিল 'রেজিমেন্ট অব আর্টিলারি'র গৌরবময় পথচলা। যুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে মুজিব ব্যাটারি ১ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি হিসেবে যাত্রা শুরু করে। এটা বিভিন্ন প্রশাসনিক, প্রশিক্ষণ, আভিযানিক কর্মকাণ্ড এবং প্রতিযোগিতার কৃতিত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৯ সালে 'রেজিমেন্টাল কালার' এবং ২০২০ সালে গৌরবময় 'ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড' অর্জন করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের মধ্য দিয়ে জন্মলাভ করা এই রেজিমেন্টকে জাতির পিতার নামানুসারে 'মুজিব রেজিমেন্ট আর্টিলারি' হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, আজ মুজিব রেজিমেন্ট আর্টিলারির কাছে 'নতুন পতাকা' হস্তান্তর করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। আমি এই ইউনিটের সকল সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যোগাযোগের ক্ষেত্রে আধুনিক রণকৌশলগত সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য সম্প্রতি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ার সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানের শেষে সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে সেনাপ্রধান চট্টগ্রামের হালিশহরের আর্টিলারি সেন্টার অ্যান্ড স্কুলে ৪, ১২ ও ২০ ফিল্ড, ৫ এয়ার ডিফেন্স রেজিমেন্ট আর্টিলারি, ৫ ও ৭ রিভারাইন ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়ন, ১ ও ২ সিগন্যাল ব্যাটালিয়ন, আর্মি এভিয়েশন গ্রুপ এবং এনসিও একাডেমিকে জাতীয় পতাকা প্রদান এবং মুজিব রেজিমেন্ট ও রওশন আরা রেজিমেন্টকে আর্টিলারির নতুন পতাকা প্রদান করেন। অনুষ্ঠান থেকে মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানানো হয়।

বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট সভায় সভাপতিত্ব :জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের চেয়ারপারসন ও বঙ্গবন্ধুর বড় মেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল ট্রাস্টের নিয়মিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গণভবনে এ বৈঠকে ট্রাস্টের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।





মন্তব্য করুন