গণপরিবহনে হাফ ভাড়া কার্যকরের প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে আজ মঙ্গলবার বিআরটিএ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। গতকাল সোমবার রাজধানীর নীলক্ষেত এলাকায় বিক্ষোভ শেষে তারা এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। হাফ ভাড়া ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শান্তিনগরেও বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, হাফ ভাড়াসহ আরও কয়েকটি দাবিতে বামপন্থি আট ছাত্র সংগঠনের শাহবাগ অবরোধ কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্রনেতারা।

অন্যদিকে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি জানিয়েছে, হাফ পাসের বিষয়ে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরতে আজ সকাল ১১টায় পুরাতন এলিফ্যান্ট রোডের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করা হবে।

এর আগে ২৪ নভেম্বর গুলিস্তানে ঢাকা সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় নটর ডেম কলেজের ছাত্র নাঈম হাসান নিহত হওয়ার দিন থেকে শুরু হয় নিরাপদ সড়ক আন্দোলন। শুক্রবার বিরতির পর গতকাল পঞ্চম দিনের মতো বিক্ষোভ করেন তারা। এর আগে থেকেই গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ পাসের দাবিতে আন্দোলন চলছিল। নিরাপদ সড়ক ও হাফ পাসের দাবি এখন একসঙ্গেই উচ্চারিত হচ্ছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা গতকাল দুপুর ১২টার দিকে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নেন। 'নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে'র ব্যানারে তারা ৯ দফা দাবি তুলে ধরেন। আধাঘণ্টা অবস্থানের পর বিআরটিএর সামনে অবস্থান ধর্মঘটের ডাক দিয়ে সড়ক ছাড়েন তারা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী মহিদুল ইসলাম দাউদ বলেন, আমাদের দাবি গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া। সরকার শুধু বিআরটিসির বাসে অর্ধেক ভাড়ার ঘোষণা দিয়েছে। তবে এখনও প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি। এর আগেও বিভিন্ন আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে আশ্বাস পেলেও পরে তা বাস্তবায়ন হয়নি। এ কারণে আজকের (সোমবার) মধ্যে সব গণপরিবহনে হাফ পাসের প্রজ্ঞাপন না হলে মঙ্গলবার আমরা বিআরটিএ ভবনের সামনে অবস্থান নেব।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীরা সব সময় অর্ধেক ভাড়ায় গণপরিবহনে চলাচল করে এসেছে। এটি আমাদের অধিকার। সরকারের দায়িত্বশীলরাও এ দাবি সমর্থন করেছেন।

আরেক শিক্ষার্থী বলেন, কয়েকটি নিয়োগ পরীক্ষা থাকায় আজ (গতকাল) কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করা হচ্ছে। পরীক্ষার্থীদের অসুবিধার কথা বিবেচনায় নিয়ে আমরা কোথাও সড়ক অবরোধ করিনি। শুধু দাবিগুলো বাস্তবায়নের জন্য শিক্ষামন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেব। তবে আমাদের যৌক্তিক আন্দোলন প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য কিছু লোক রাস্তায় নেমে যায়।

অবশ্য শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ গতকালও বিআরটিএর সামনে বিক্ষোভ করেছেন।

হাফ পাস ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শান্তিনগরেও সড়কে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। তারা মিছিল নিয়ে কাকরাইল মোড় ঘুরে আবার শান্তিনগরে এসে অবস্থান নেন। দুপুর ২টা পর্যন্ত চলা কর্মসূচিতে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও হাবীবুল্লাহ বাহার কলেজের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

শাহবাগে আট ছাত্র সংগঠনের কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা :শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ পাস নিশ্চিত করাসহ অন্যান্য দাবিতে বামপন্থি আটটি ছাত্র সংগঠনের শাহবাগ অবরোধ কর্মসূচিতে বাধা দিয়েছে পুলিশ। দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে তারা মিছিল শুরু করেন। শাহবাগ পৌঁছানোর আগেই জাতীয় গণগ্রন্থাগারের সামনে পুলিশ তাদের থামিয়ে দেয়। সেখানে পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে জাতীয় জাদুঘরের সামনেই সমাবেশ করেন তারা।

তাদের অন্য দাবিগুলো হচ্ছে- জ্বালানি তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানো এবং বাস ও লঞ্চের বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার।

শাহবাগ অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নেয় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন (একাংশ), সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্কসবাদী), বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন (গণসংহতি আন্দোলন), বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন (জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল),গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলন।

সমাবেশে পুলিশি বাধার প্রতিবাদ এবং তিন দফা দাবির পক্ষে বক্তব্য দেন ছাত্র ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায়, ছাত্র ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক মিখা পিরেগু প্রমুখ।

ছাত্র ইউনিয়নের সহসভাপতি অনিক রায় বলেন, পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে পুলিশ বাধা দিয়েছে। তারা বলেছে, কোনোভাবেই শাহবাগ অবরোধ করতে দেবে না। প্রয়োজনে তারা বলপ্রয়োগ করবে।

এ প্রসঙ্গে শাহবাগ থানার ওসি মওদুত হাওলাদার সমকালকে বলেন, নগরের একটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট শাহবাগ চৌরাস্তা। তাই এখানে অবস্থান নিয়ে কোনো কর্মসূচি পালন করা হলে জনসাধারণ দুর্ভোগে পড়বেন। এ কারণে তাদের শাহবাগ মোড়ে না যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। তবে বলপ্রয়োগের কোনো ঘটনা ঘটেনি।





মন্তব্য করুন