তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উদ্যোক্তাদের দ্রুত সেবা দিতে ওয়ান স্টপ সার্ভিস (ওএসএস) চালু করতে উদ্যোগ নিয়েছে হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষও। এ-সংক্রান্ত সেবা দেওয়ার বিধিমালার খসড়া চূড়ান্ত করেছে সংস্থাটি। দ্রুত তা চূড়ান্ত করতে এখন কাজ চলছে। বিধিমালা অনুযায়ী, হাইটেক পার্কে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এক দরজায় ১৬৪ সেবা পাবেন উদ্যোক্তারা। এর ফলে তাদের আলাদাভাবে অন্য কোনো সংস্থায় যেতে হবে না। এসব সেবা ১ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে মিলবে। বেশিরভাগ সেবা এক সপ্তাহের মধ্যে পাওয়া যাবে।

হাইটেক পার্কের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের সেবা মিলবে ওএসএস কেন্দ্রে। যার মধ্যে প্রায় সব ধরনের অনুমতি, সেবা সংযোগ, বাংলাদেশের ভিসা, কাজের অনুমতি, মুনাফা ও মূলধন ফেরত নেওয়া, বাণিজ্য সংস্থার সনদ ও পরিবেশ-সংক্রান্ত ছাড়পত্রসহ বিভিন্ন সেবা দেওয়া হবে।

হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম সমকালকে বলেন, এরই মধ্যে অনলাইনে অনেক সেবা দেওয়া শুরু হয়েছে। শিগগির ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করতে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। গত বুধবার ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে বিধিমালার খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। এখন আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য পাঠানো হবে। এর পর মন্ত্রিসভা অনুমোদন করলে পুরোপুরি ওয়ান স্টপ সেবা চালু করা হবে।

বিধিমালার খসড়ায় বলা হয়েছে, একদিনেই কোম্পানির নামে ছাড়পত্র দেওয়া হবে। একইভাবে টিআইএন রেজিস্ট্রেশন, ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন, আমদানি-রফতানি ও এর নমুনা অনুমোদন, কাস্টমস ছাড়পত্র ও কান্ট্রি অব অরিজিন সনদ একদিনে পাবেন বিনিয়োগকারীরা। দু'দিনে পাওয়া যাবে ভিসার সুপারিশপত্র, কাজের অনুমতির সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স, বয়লার আমদানির অনাপত্তি সনদ, পোস্ট পার্সেল ছাড়পত্র, ব্রিং-ব্যাক অনুমতিপত্র ও স্থানীয় বিক্রয় অনুমোদন। ট্রেড লাইসেন্স পাওয়া যাবে তিন দিনে। এ ছাড়া নিবন্ধন বা ছাড়পত্র নবায়ন, সব ধরনের ভিসা, ব্যাংক ঋণের অনাপত্তিপত্র, ভূমি লিজ দলিল রেজিস্ট্রেশন, বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন স্থাপনে অনাপত্তিপত্র, টেলিফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ, বৈদেশিক ঋণে অনাপত্তি সনদ, সাব-কন্ট্রাক্ট অনুমোদনসহ বিভিন্ন সেবা মিলবে তিন দিনে। এতে এক থেকে তিন দিনেই ৪৪ ধরনের সেবা পাবেন উদ্যোক্তারা। বিনিয়োগ নিবন্ধনসহ ৪১ ধরনের সেবা পাওয়া যাবে পাঁচ থেকে সর্বোচ্চ সাত দিনে। এ ছাড়া অন্যান্য সেবা ১০ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে দেওয়া হবে।

এ বিধিমালা কার্যকর করতে কেন্দ্রীয় ওয়ান স্টপ সার্ভিস কর্তৃপক্ষ গঠন করা হবে। হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদাধিকারবলে এর প্রধান নির্বাহী হবেন। এ সংস্থার একজন পরিচালক, সংস্থার মনোনীত ফোকাল পয়েন্ট এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিনিধি সদস্য হবেন। কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের মনোনীত প্রতিনিধি হবেন সদস্য সচিব।

মন্তব্য করুন