বাংলাদেশে এলজির নিজস্ব বিক্রয়োত্তর সেবা চালু

প্রকাশ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সরাসরি নিজস্ব বিক্রয়োত্তর সেবা কার্যক্রম শুরু করেছে এলজি ইলেকট্রনিক্স। গতকাল সোমবার রাজধানীর গুলশানে সেলেব্রিটি কনভেনশন হলে 'সেবা সম্মেলন-২০১৯' কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। সম্মেলনে এলজির এশিয়া অঞ্চলের কাস্টমার সার্ভিস ডিরেক্টর মুজে কিম, এলজি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডং কন সন, এলজি বাটারফ্লাইয়ের চেয়ারম্যান এম এ মান্নানসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ কার্যক্রম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এলজি বাংলাদেশের এমডি কন সন বলেন, বাংলাদেশে এলজির নিজস্ব সেবা কার্যক্রম ছিল না। আগে ডিস্ট্রিবিউটররা ক্রেতাদের সেবা দিত। এখন থেকে গ্রাহকরা সরাসরি এলজির কাছ থেকেই সেবা পাবেন।

এলজির প্রশিক্ষিত কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সেবা হলো যে কোনো প্রতিষ্ঠানের মূূল চালিকাশক্তি। সেবাদানকারীরা হলেন ব্র্যান্ডের বিশেষ দূত। এ কারণে কীভাবে আরও ভালো সেবা দেওয়া যায় তা আয়ত্ত করতে হবে। আত্মবিশ্বাসী হয়ে কাজ করতে হবে। সেবার মাধ্যমে এলজির সঙ্গে গ্রাহকদের সংযোগ স্থাপন করতে হবে।

এলজির এশিয়া রিজিওনের কাস্টমার সার্ভিস ডিরেক্টর মুজে কিম জানান, এখন থেকে বাংলাদেশের গ্রাহকরা সরাসরি এলজির সেবা উপভোগ করতে পারবেন। দক্ষিণ কোরিয়া থেকে বিশেষজ্ঞ দল দেশে কাজ করবে এবং গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করবে। এলজি পণ্যের ক্রেতারা কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই নির্দিষ্ট আউটলেট থেকে সেবা নিতে পারবেন। তিনি বলেন, ক্রেতাদের সন্তুষ্টি ছাড়া ব্যবসা করা যায় না। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে কঠোর প্ররিশ্রম করতে হবে এলজি কর্মীদের।

এলজি বাটারফ্লাইয়ের চেয়ারম্যান এম এ মান্নান বলেন, পণ্য বিক্রি করাই আসল কথা নয়। আস্থা বাড়াতে ক্রেতাদের সেবা দিতে হবে। যত দ্রুত

সম্ভব ক্রেতাদের যে কোনো সমস্যার সমাধান করতে হবে। এর মাধ্যমেই সহজে ক্রেতাদের মন জয় করা যাবে। এতে প্রতিষ্ঠানের প্রতি ক্রেতাদের

আস্থা বাড়বে।

এলজি সিঙ্গাপুরের জেনারেল ম্যানেজার রোনাল্ড লিম বলেন, সেবা কার্যক্রম যে কোনো প্রতিষ্ঠানকে বাঁচিয়ে রাখে। এর ওপর ভিত্তি করেই ভোক্তাদের আস্থা আরও টেকসই করা সম্ভব। যে কোনো সমস্যার সহজ সমাধানের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে ভোক্তাদের আস্থা ধরে রাখতে হবে।

সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে কর্মীদের সেবা সম্মেলনে সঙ্গীত পরিবেশন করে জনপ্রিয় ব্যান্ডদল 'সোলস'।