মেধাসম্পদ ইনস্টিটিউট হবে চলতি বছরে

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

মিরাজ শামস

দেশে মেধাসম্পদের উন্নয়ন ও পেশাজীবীদের দক্ষতা বাড়াতে স্থাপন করা হবে জাতীয় মেধাসম্পদ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট। চলতি বছরের মধ্যে এই ইনস্টিটিউট স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়ের। এটি স্থাপনে 'জাতীয় মেধাসম্পদ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট আইন' প্রণয়ন করা হচ্ছে। এরই মধ্যে খসড়া প্রণয়ন করা হয়েছে।

শিল্প মন্ত্রণালয় এবং পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) সূত্রে জানা যায়, দেশে নানা বিষয়ে উদ্ভাবন থাকলেও মেধাস্বত্ব না থাকায় তা শেষ পর্যন্ত তেমন কাজে আসে না। এগুলো কাজে লাগাতে এবং পরিকল্পিত উদ্ভাবনে সহযোগিতা করবে মেধাসম্পদ ইনস্টিটিউট। তা ছাড়া পেশা অনুযায়ী নানা কর্মক্ষেত্রে মেধাবীরা দক্ষতা উন্নয়নের অভাবে পিছিয়ে পড়ছেন। তাদের দক্ষতা উন্নয়নে জোর দেওয়া হবে।

ডিপিডিটির রেজিস্ট্রার সানোয়ার হোসেন সমকালকে বলেন, জাতীয় উদ্ভাবন ও মেধাসম্পদ নীতি অনুযায়ী মেধাসম্পদ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যাতে মেধাবীরা আরও ভালোভাবে উদ্ভাবনের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারেন। পাশাপাশি নানা খাতভিত্তিক শিল্প, ব্যবসা, আইন-শৃঙ্খলাসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষতা বাড়ানো হবে। এই উদ্দেশ্যে ডিপিডিটি আইনের খসড়া তৈরি করে শিল্প মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। তিনি বলেন, আগামী ১০ জুলাই এ আইনের খসড়া পর্যালোচনা করতে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভা হবে। এর পরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে খসড়া চূড়ান্ত করা হলে আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য যাবে। এরপর জাতীয় সংসদে আইন অনুমোদনে উপস্থাপন করা হবে।

আইনের খসড়া থেকে জানা যায়, মেধাসম্পদের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট ব্যক্তি ও অন্যান্য পেশাজীবীর পেশাগত দক্ষতা বাড়াতে যথোপযুক্ত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা দরকার। এই প্রশিক্ষণের আয়োজন ও পরিচালনার জন্য জাতীয় মেধাসম্পদ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন করা প্রয়োজন। এ কারণে নতুন এই আইন করা হচ্ছে। আইন অনুযায়ী এই ইনস্টিটিউট একটি স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা হবে।

এই ইনস্টিটিউটের কার্যাবলির মধ্যে মেধাসম্পদ অফিসের সব পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মেধাসম্পদ স্টেকহোল্ডারদের মেধাসম্পদ-সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। মেধাসম্পদ প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা এবং সংশ্নিষ্ট অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সম্মেলন, সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামের আয়োজন ও পরিচালনা করবে। প্রশিক্ষণের বিষয় ও পাঠ্যক্রম নির্ধারণ করবে। প্রশিক্ষণ পাওয়া ব্যক্তিদের সনদ, ডিপ্লোমা ও ডিগ্রি দেবে। এই ইনস্টিটিউট বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আবেদনের ভিত্তিতে ফি প্রদান সাপেক্ষে মেধাসম্পদ বিষয়ে পরামর্শ দেবে। এ-সংক্রান্ত আলাদা লাইব্রেরি স্থাপন ও পরিচালনা করবে। পাশাপাশি বই, সাময়িকী ও প্রতিবেদন প্রকাশনা প্রকাশ করবে। প্রশিক্ষণ ও পাঠ্যক্রমে সংশ্নিষ্ট বিষয়ে গবেষণা পরিচালনা এবং গবেষণার তথ্য প্রকাশ করবে। ইনস্টিটিউট পরিচালনা বোর্ডের নির্ধারিত শর্ত ও পদ্ধতি অনুযায়ী বিদেশি নাগরিককে প্রশিক্ষণ দিতে পারবে।