পরিবারভিত্তিক ব্যবসা উদ্যোগের পরামর্শ

এফবিসিসিআইর সঙ্গে বৈঠকে ভারতীয় হাইকমিশনার

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

পরিবারভিত্তিক ব্যবসা উদ্যোগের পরামর্শ

ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনে রোববার এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিমসহ প্রতিনিধি দলকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাশ- সংগৃহীত

এশিয়ার দেশগুলোতে পরিবারভিত্তিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ভারতেও 'পরিবারভিত্তিক ব্যবসা উদ্যোগ' বেশ সাফল্য পেয়েছে। বাংলাদেশেও পারিবারিক ব্যবসাকে আরও ছড়িয়ে দিতে নতুন উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দেন ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাশ। তিনি বলেন, এ দেশে এমন উদ্যোগ নেওয়া হলে প্রয়োজনে সহায়তা দেবে তাদের হাইকমিশন।

গতকাল রোববার এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিমের নেতৃত্বে একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আলোচনাকালে এ পরামর্শ দেন হাইকমিশনার। রাজধানীতে ভারতীয় হাইকমিশনে আয়োজিত এ বৈঠকে সংগঠনের সহসভাপতি হাসিনা নেওয়াজ ও রেজাউল করিম রেজনুসহ অন্য পরিচালক এবং হাইকমিশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় প্রতিবেশী দেশ দুটির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বৃদ্ধি এবং শিক্ষা ও কারিগরি সহায়তা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়।

পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পরিচালিত হয় পরিবারভিত্তিক ব্যবসা। এমন ব্যবসা উদ্যোগ গত কয়েক বছরে ভারতে বেশ সফল হয়েছে। দেশটি এ পদ্ধতিতে ব্যবসা থেকে বার্ষিক গড়ে ১৩ শতাংশের বেশি আয় করছে। অন্যদিকে অন্যান্য উদ্যোগের ব্যবসা থেকে আয় হচ্ছে মাত্র ৬ শতাংশ। ভারতের পাশাপাশি এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, চীন ও তাইওয়ানসহ বিভিন্ন দেশে এমন উদ্যোগে সফলতা এসেছে। এশিয়ার ৫০ লাভজনক পরিবারভিত্তিক ব্যবসার মধ্যে ১২টি ভারতের। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে- ইমামি, বাজাজ, গোদরেজ কনজুমার প্রডাক্টস, আইশার, সিম্ম্ফনি, এইচসিএল টেকনোলজি, পেজ ইন্ডাস্ট্রিজ, ম্যারিকো ও হিরো মোটর করপোরেশনসহ আরও কিছু নামি কোম্পানি।

বৈঠকে ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অনেক উন্নয়ন হয়েছে। এর যথাযথ ব্র্যান্ডিং হলে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যবসায়ীরা অবগত হবেন। এতে তার দেশের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে ব্যবসা করতে আগ্রহী হবেন। তারা বিনিয়োগ করলে এ দেশ আরও এগিয়ে যাবে। হাইকমিশনার বলেন, উভয় দেশের স্থলবন্দর দিয়ে যাতে দু'দেশে রফতানিযোগ্য সব পণ্য আসা-যাওয়া করতে পারে সে বিষয়টিতে বিশেষ নজর দেওয়া প্রয়োজন।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ব্যবসার পরিবেশ উন্নত করতে সরকার বাণিজ্যনীতির সংস্কার এবং ব্যবসা পরিচালনা সহজ করছে। এ জন্য তাদের সংগঠন সহযোগিতা করছে। তিনি বলেন, দেশে দক্ষ জনশক্তির চাহিদা মেটাতে সংগঠনের স্থাপিত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে ভারতের বিশেষজ্ঞরা জ্ঞান বিনিময়ের পদক্ষেপ নিয়ে সহায়তা করতে পারে।