মেগা প্রকল্পের বীমা হবে দেশি কোম্পানিতে অর্থমন্ত্রী

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

বিশেষ প্রতিনিধি

সরকারের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত সব মেগা প্রকল্পের বীমা দেশীয় ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির মাধ্যমে করার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, আগে বলা হতো স্থানীয় ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলো ছোট, সামর্থ্য কম। বড় দুর্ঘটনায় বীমার ক্ষতিপূরণ দিতে পারবে না, ক্ষতিও কাভার করতে পারবে না। এখন পরিস্থিতি বদলেছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে দেশি ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলোর সক্ষমতা অনেক বেড়েছে। অবকাঠামো খাতের বড় প্রকল্পের বীমাঝুঁকি নেওয়ার মতো ক্ষমতা আছে।

গতকাল বুধবার শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা কমিশনে অর্থমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাধারণ বীমা করপোরেশনের লভ্যাংশের চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

২০১৮ সালে সংস্থাটি সরকারকে লভ্যাংশ হিসেবে ৫০ কোটি টাকা দিয়েছে।

মুস্তাফা কামাল বলেন, এখন থেকে বড় প্রকল্পের বীমা দেশি কোম্পানির মাধ্যমে করতে হবে। এটা করা হলে বীমার বিপরীতে যে প্রিমিয়াম পরিশোধ করা হবে, তা আর বিদেশি কোম্পানি নিয়ে যেতে পারবে না।

অর্থমন্ত্রী জানান, সাধারণ বীমা করপোরেশন সাম্প্রতিক সময়ে পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, মাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্র ও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রকল্পের বীমার কাভারেজ করেছে। অথচ এক সময় বড় প্রকল্পের বীমার জন্য বিদেশি কোম্পানিগুলোর ওপর নির্ভরশীল ছিল। ফলে বীমার বিপরীতে যে প্রিমিয়াম দেওয়া হতো, তা দেশের বাইরে চলে যেত। এটা আর করতে দেওয়া হবে না।

অর্থমন্ত্রী জানান, সাধারণ বীমা করপোরেশন এনবিআরকে রাজস্ব দেওয়ার পাশাপাশি সরকারি কোষাগারে সরাসরি টাকা দিচ্ছে। মেগা প্রকল্পগুলোকে বীমার কাভারেজ দিচ্ছে। ফলে আগামীতে সরকারি কোষাগারে আরও বেশি টাকা দেবে সংস্থাটি।

তিনি আরও বলেন, সাধারণ বীমার রাজস্ব বাড়লে সেবাও বাড়বে। এতে গ্রাহকরা উপকার পাবেন বলে মনে করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, সাধারণ বীমা করপোরেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার আহসানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।