একে অন্যের এটিএম বুথ ব্যবহার বাড়ছে

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

প্রয়োজনের তাগিদে এখন কার্ডভিত্তিক লেনদেন বাড়ছে। এক ব্যাংকের গ্রাহক অন্য ব্যাংকের এটিএম বুথ ব্যবহার করছেন আগের চেয়ে বেশি। কেনাকাটার বিল পরিশোধের ক্ষেত্রেও এক ব্যাংকের গ্রাহক আরেক ব্যাংকের পয়েন্ট অব সেলস বা পস ব্যবহার করছেন। আন্তঃব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং সেবা ব্যবহার করেও লেনদেন করছেন অনেকে। গত আগস্ট মাসে এসব ব্যবস্থায় ২ হাজার ৬৮ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। গত বছরের একই মাসের তুলনায় যা ১৮ দশমিক ৪০ শতাংশ বেশি। বাড়তি চার্জ শর্তেও সুবিধার কারণে অনেকেই এখন অন্য ব্যাংকের নিকটতম বুথ ব্যবহার করছেন।

সংশ্নিষ্টরা জানান, নিজ ব্যাংকের এটিএম বুথ ব্যবহার করে টাকা তুলতে বার্ষিক চার্জের বাইরে কোনো খরচ হয় না। এক ব্যাংকের গ্রাহক আরেক ব্যাংকের এটিএম বুথ ব্যবহার করে টাকা তুলতে প্রতি লেনদেনে ১৫ টাকা চার্জ দিতে হয়। আন্তঃব্যাংক পস টার্মিনাল ব্যবহার করে কেনাকাটার বিল পরিশোধে অবশ্য কোনো চার্জ লাগে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত আগস্টে এক ব্যাংকের এটিএম বুথ ব্যবহার করে আরেক ব্যাংকের গ্রাহক ডেবিট, ক্রেডিট ও প্রিপেইড কার্ডের মাধ্যমে এক হাজার ৭৮০ কোটি টাকা লেনদেন করেছেন। আগের মাস জুলাইয়ে লেনদেন হয় এক হাজার ৪৯৯ কোটি টাকা। এ হিসাবে আগের মাসের তুলনায় আন্তঃব্যাংক এটিএম বুথের মাধ্যমে লেনদেন বেড়েছে ১৮ দশমিক ৭২ শতাংশ। এ ব্যবস্থায় প্রায় ২৪ লাখ লেনদেন হয়েছে আগস্টে। আর পস থেকে ৫ লাখ ১১ হাজার লেনদেনের বিপরীতে পরিশোধ হয়েছে ১৮৩ কোটি টাকা। আগের মাসের তুলনায় যা ৭ দশমিক ৬২ শতাংশ বেশি। আন্তঃব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ১০৫ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। সব মিলিয়ে জুলাই মাসের তুলনায় আগস্টে কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন বেশি হয়েছে ২৬৮ কোটি টাকা, যা ১৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ। আর গত বছরের আগস্টের তুলনায় বেড়েছে ৩২১ কোটি টাকা, যা ১৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। গত বছরের জুনের তুলনায় চলতি বছরের জুন পর্যন্ত কার্ডভিত্তিক লেনদেনে প্রবৃদ্ধি ছিল ১৫ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে স্থাপিত ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইস বাংলাদেশের (এনপিএসবি) চ্যানেল ব্যবহার করে এক ব্যাংকের গ্রাহক আরেক ব্যাংকের বুথ থেকে সহজে টাকা তুলতে পারছেন। এর আগে কয়েকটি ব্যাংক নিজেদের এটিএম বুথ শেয়ারিংয়ের জন্য 'অমনিবাস' নামে একটি ব্যবস্থা চালু রেখেছিল। এজন্য অনেক বেশি চার্জ কাটা হতো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে এনপিএসবির আওতায় রয়েছে ৫১টি ব্যাংকের এটিএম বুথ। আর পসে সংযুক্ত রয়েছে ৫০টি ব্যাংক। এ ছাড়া আন্তঃব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ২১টি ব্যাংকের মধ্যে লেনদেন করা যায়। বর্তমানে সারাদেশে ব্যাংকগুলোর এটিএম বুথ রয়েছে ১০ হাজার ৭২২টি। আর পস টার্মিনাল রয়েছে প্রায় ৫৩ হাজার। সব ব্যাংকের এক কোটি ৫৮ লাখ ডেবিট কার্ড, ১২ লাখ ক্রেডিট কার্ড ও ২ লাখ ৭৭ হাজার প্রিপেইড কার্ড রয়েছে।